একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

প্রথমবারের মতো ভোটের দায়িত্বে ভাতা পাচ্ছে গ্রাম পুলিশ

১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ , ০৮:১১:০০

ছবি : প্রতীকী

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দায়িত্ব পালনের জন্য এই প্রথমবারের মতো দৈনিক ভাতা পাচ্ছেন গ্রাম পুলিশের সদস্যরা। বুধবার (১৯ ডিসেম্বর) নির্বাচন কমিশন সচিবালয় এই ভাতা অনুমোদন করেছে। মোট চার দিনের জন্য বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে গ্রাম পুলিশের সদস্যদের নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। নির্বাচনের ভোট গ্রহণের দিনসহ মোটা চারদিন হিসেব করা হবে।

এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) অতিরিক্ত সচিব মো. মোখলেছুর রহমান জা্নান, দফারদারদের জন্য প্রতিদিন ৬০০ টাকা এবং চৌকিদারদের জন্য প্রতিদিন ৫০০ টাকা করে নির্বাচনকালীন দায়িত্ব পালনের জন্য ভাতা নির্ধারণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রতি ইউনিয়ন পরিষদে একজন করে দফাদার এবং প্রতি ওয়ার্ডে একজন করে চৌকিদার নির্বাচনী দায়িত্বে থাকবেন।

জেলা প্রশাসকের অনুকূলে এ অর্থ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয় সূত্রে জানা গেছে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহযোগী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন গ্রাম পুলিশের সদস্যরা। এর দুটি পদ আছে—দফাদার ও চৌকিদার।

দফাদার পদে চার দিনের জন্য নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে ৪ হাজার ১২ জনকে। দফাদারদের প্রত্যেককে দিন প্রতি ৬০০ টাকা করে ভাতা দেওয়া হবে। এই খাতে খরচ হবে মোট ৯৬ লাখ ২৮ হাজার ৮০০ টাকা।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয় সূত্র বলছে, নির্বাচনের কাজে ৩৬ হাজার ২৭৮ জন চৌকিদারকে নিয়োগ দেওয়া হবে। চৌকিদারদেরও চার দিনের জন্য নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। প্রতিদিন ৫০০ টাকা করে ভাতা দেওয়া হবে। এই খাতে ব্যয় হবে মোট ৭ কোটি ২৫ লাখ ৫৬ হাজার টাকা।

অর্থাৎ চৌকিদার ও দফাদারের ভাতা বাবদ মোট খরচ হবে ৮ কোটি ২১ লাখ ৮৪ হাজার ৮০০ টাকা।

এর আগেও অনেক নির্বাচনে দায়িত্ব পালন করেছেন গ্রাম পুলিশের সদস্যরা। কিন্তু কখনোই তাঁরা ভাতা পাননি। এবারই প্রথম গ্রাম পুলিশের সদস্যদের ভাতা দেওয়া হচ্ছে।

৩০ ডিসেম্বর সারা দেশে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

বিডি২৪লাইভ/এইচকে

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: