প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

আমন্ত্রণ পাবে না জামায়াতে ইসলামী

এবার আ’লীগসহ মহাজোটকে সংলাপে ডাকতে যাচ্ছে ঐক্যফ্রন্ট

১৭ জানুয়ারি ২০১৯ , ০১:০১:০০

গত ১ নভেম্বর সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সংলাপে বসেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা। ছবি: ইন্টারনেট থেকে

ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর এই প্রথম আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সহ নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী সব রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতাদের সংলাপের জন্য আমন্ত্রণ জানাচ্ছে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

সূত্র জানায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন-পরবর্তী ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে ২৮ জানুয়ারি বেলা ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এ সংলাপের আয়োজন করা হয়েছে। এতে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটসহ নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী সব রাজনৈতিক দলের শীর্ষ নেতাদের আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে। এছাড়া দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তি এবং নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদেরও এতে ডাকা হবে। তবে আমন্ত্রণ থেকে বাদ যাবে নিবন্ধন বাতিল হওয়া জামায়াতে ইসলামী। এ সংলাপ থেকে ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের অনিয়ম তুলে ধরে এটি বাতিল ও নতুন নির্বাচনের দাবি জোরদার করা হবে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

জানা যায়, নানা বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে বিএনপিকে নিয়ে গঠিত নির্বাচনী জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। তবে এ নির্বাচনে ভোট ডাকাতির অভিযোগ তুলে ফলাফল প্রত্যাখ্যান ও নতুন নির্বাচনের দাবি জানিয়েছে এ জোটটি। এছাড়া ঐক্যফ্রন্ট থেকে নির্বাচিত সাতজন এমপি শপথ নেবেন না বলেও ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

গত ৮ জানুয়ারি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠক থেকে ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন ইস্যুতে জাতীয় সংলাপসহ তিন দফা কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। কর্মসূচি অনুযায়ী নির্বাচনের সময় সহিংসতা হওয়া এলাকায় গণসংযোগ করছেন ফ্রন্টের নেতারা। চলছে নির্বাচনি ট্রাইব্যুনালে মামলার প্রস্তুতি। আর ২৮ জানুয়ারি জাতীয় সংলাপের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

এ সংলাপের আয়োজন সম্পর্কে জানতে চাইলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শীর্ষ নেতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ২৮ জানুয়ারি জাতীয় প্রেসক্লাবের অডিটরিয়ামে জাতীয় সংলাপ অনুষ্ঠিত হবে। এতে বিশিষ্ট ব্যক্তি এবং সব দলের নেতাদের আমন্ত্রণ জানানো হবে। তবে জামায়াতকে ডাকা হবে না।

তিনি বলেন, এখনও কাউকে আমন্ত্রণের চিঠি দেওয়া শুরু হয়নি। বৃহস্পতিবারের (১৭ জানুয়ারি) মধ্যে আমন্ত্রণপত্র বিতরণ শুরু করা হবে। সংলাপে নির্বাচনের বিষয়ে সবার কথা শোনা হবে।

এর আগে, গত রবিবার ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী জানিয়েছিলেন, আমরা ১৬ থেকে ১৭ জানুয়ারি তারিখের দিকে জাতীয় সংলাপ করতে চেয়েছিলাম। তবে মিলনায়তন ভাড়া নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি করার কারণে তা হচ্ছে না।

বিডি২৪লাইভ/এএইচ/টিএএফ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: