কে এই নতুন প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বাবু

১৭ জানুয়ারি ২০১৯ , ১০:২৭:৫৬

ছবি: ইন্টারনেট

রাজনৈতিক বিশ্লেষকের মতে সমাজ, দেশ ও জাতিকে ভালো কিছু দেওয়ার বয়স হলো ৬৫ বছর পর্যন্ত। কে. এম খালিদ বাবু ও শরিফ আহমেদের বয়স নির্ধারিত সীমানার মধ্যে।

সাধারণত পৃথিবীর ৬৫ উর্ধ্ব ব্যক্তিরা শারীরিক ও মানুষিকভাবে দূর্বল হয়ে পরে। নির্ভরশীল হয়ে পরে অন্যের উপর। যার ফলে তারা নিজস্ব চিন্তা চেতনায় কাজ করতে পারে না অন্যের দ্বারা প্রভাবান্নিত হয়। আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেই দৃষ্টিভঙ্গির আলোকে ময়মনসিংহ জেলায় অপেক্ষাকৃত তরুণ ২ জনকে প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব প্রদান করেছেন।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অন্যতম প্রধান ঘাঁটি বৃহত্তর ময়মনসিংহ। তার মধ্যে ময়মনসিংহ জেলায় এবার দুজকে প্রতিমন্ত্রী দেয়া হয়েছে। জেলার মানুষের মাঝে আনন্দের জোয়ার বইছে।

সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বাবু জন্মগ্রহন করেন ১৯৫৫ সালে ৪ আগষ্ট। মা রাবেয়া খাতুন ও বাবা এম এ ওয়াদুদ। ময়মনসিংহ ৫ মুক্তাগাছা থেকে এবার নিয়ে ২ বার এমপি নির্বাচিত হয়েছেন। ছাত্রজীবনে তিনি ছিলেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের (জালাল জাহাঙ্গীর) গ্রুপের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি। বর্তমানে তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি। তার বড় ভাই বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ম. হামিদ। যিনি বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক হিসেবে কর্মরত ছিলেন এবং বর্তমানে সেক্টর কমান্ডার ফোরামের অন্যতম নেতা।

কে এম খালিদ আনন্দমোহন কলেজ থেকে তিনি ভিপি হিসেবে ছাত্রসংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহন করেছিলেন তারপর কেন্দ্রীয় যুবলীগের সদস্য হিসেবে এবং ময়মনসিংহ জেলা যুবলীগের সদস্য হয়ে ৭৫ পরবর্তী সময়ে মুজিব আদর্শ বাস্তবায়নের জন্য লড়াই সংগ্রামে অংশগ্রহন করেন। ব্যক্তি জীবনে তিনি একজন সফল ব্যবসায়ী। সততা নিষ্ঠা যার চরিত্রের প্রদান গুণ। সদরের বাসিন্দা হওয়া সত্বেও প্রথমবারের মত নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মুক্তাগাছা থেকে নির্বাচন করে এমপি নির্বাচিত হন। এমপি নির্বাচনের পর মুক্তাগাছাবাসী তার কর্মদক্ষতা সততা ও অসহায় জনগণের প্রতি ভালবাসার গুণে মুগ্ধ হয় এবং তাকে আপন করে গ্রহন করে নেয়।

পরবর্তীতে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় মহাজোট সরকারের আমলে জাতীয় পার্টির রওশন এরশাদ তার এই আসনটি জাতীয় পার্টির দলীয় প্রার্থীকে মনোনয়ন দেয় এবং কেন্দ্রীয় আ’লীগের সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে তিনি জাতীয় পার্টির পক্ষে তার মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেন। এবারের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কে এম খালিদ বাবু পুনরায় আ’লীগের হয়ে নৌকা প্রতিক নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহন করেন। নির্বাচনে তিনি অন্যান্য সব প্রার্থীর চেয়ে লক্ষাধিক ভোট বেশি পেয়ে জয়লাভ করেন। নির্বাচন চলাকালীন সময়ে মুক্তাগাছাবাসীর দাবি ছিল খালিদ বাবুকে তারা এমপি হিসেবে নির্বাচিত করলে তাকে মন্ত্রী করতে হবে। জননেত্রী শেখ হাসিনা খালিদ বাবুকে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী করে সে দাবি পূরণ করেছেন। 

বিডি২৪লাইভ/এসবি/এমআর

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: