মনজুরুল ইসলাম

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

প্রেমিকার ছুরিকাঘাতে মৃত্যুশয্যায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র! 

১৯ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৪:৩৪:০০

ছবি : প্রতিনিধি

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী ফেরদৌসী শামীম সেজুতির ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হয়েছেন মাওলানা ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মোশাররফ হোসেন নামে এক ছাত্র। তারা প্রেমিক-প্রেমিকা যুগল বলে জানা যায়।

শুক্রবার (১৮ জানুয়ারি) সকাল ১১টার দিকে বাংলাদেশ কৃষি বিদ্যালয়ের জব্বারের মোড় এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে।

এ ঘটনার পর গুরুতর আহত মোশাররফ হোসেনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ সময় প্রেমিকা সেজুতি ও শামসুল হক নামে দুজনকে আটক করেছে রেলওয়ে পুলিশ।

জানা গেছে, আটক সেজুতি জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি তৃতীয় বর্ষের শিক্ষাথী। শামসুল হক একই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র।

আহত মোশাররফ হোসেন টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। সে ত্রিশাল উপজেলার কোনাবাড়ি এলাকার বাসিন্দা।

এ ঘটনায় মোশাররফ হোসেনের বড় ভাই মোসা বাদী হয়ে জাতীয় কবি নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী ফেরদৌসী শামীম সেজুতি ও একই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শামসুল হককে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলার বরাত দিয়ে ময়মনসিংহ রেলওয়ে থানার ওসি মোশাররফ হোসেন জানান, জাতীয় কবি নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী ফেরদৌসী শামীম সেজুতির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে একই বিশ্ববিদ্যালয়ের আজিজার রহমানের। ২০১৭ সালে সেজুতি ও আজিজার রহমান গোপনে বিয়ে করে। বিয়ের কিছু দিন যেতে না যেতেই আজিজার সেজুতির উপর নির্যাতন চালায়। সেজুতি আজিজারকে তালাক দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

এরইমধ্যে ফেসবুকে সেজুতির সঙ্গে পরিচয় হয় মাওলানা ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মোশাররফ হোসেনের। পরিচয়ের এক পর্যায়ে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে তাদের মাঝে। পরে মোশাররফের সহায়তায় সেজুতি আজিজার রহমানকে তালাক দেয়। এর কিছু দিন পর মোশাররফের সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিন্ন করে সেজুতি।

আবারও সেজুতি একই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শামসুল হকের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। সেজুতি ও শামসুল হক শুক্রবার সকালে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় বেড়াতে আসে। এ সময় তাদের মাঝে এসে হাজির হয় মোশাররফ হোসেন।

তারা তিন জন রেল লাইনে বসে কথা বলছিল। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সেজুতি রাগান্বিত হয়ে মোশাররফকে ছুরিকাঘাত করে। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা মোশাররফকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী সেজুতি জানায়, শামসুল পরিকল্পিত ভাবে মোশাররফের কথায় আমাকে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যায়ে নিয়ে আসে।

সেজুতি আরও জানান, আমি মোশাররফকে ছুরিকাঘাত করিনি। সে নিজেই তার শরীরে আঘাত করে।

সেজুতির সাবেক স্বামী আজিজার রহমানের ফোন বন্ধ থাকায় তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি। আজিজার রহমান জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র।

ময়মনসিংহ রেলওয়ে থানার ওসি মোশাররফ জানান, আহত মোশাররফের অবস্থা আশঙ্কাজনিত হওয়ায় রাতেই তার অপারেশন করা হয়।

এ সময় ঘটনাস্থল থেকে ছুঁড়ি উদ্ধার করা হয়েছে। আটক সেজুতি ও শামসুল হককে আজ শনিবার (১৯ জানুয়ারি) আদালতে পাঠানো হবে বলেও জানান তিনি।

বিডি২৪লাইভ/টিএএফ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: