শাহিনুর রহমান শাহিন

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

মদের আসরে ছিল অনেকেই, জাবি ছাড়া বাকিদের তথ্য ফাঁস!

২০ জানুয়ারি, ২০১৯ ২০:১৮:৪১

ছবিতে উল্লেখিত ওই দুই ছাত্রী মাদকের আসর থেকে পালিয়ে রক্ষা পান

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে মাদক দ্রব্য সেবন ও মদ্যপ অবস্থায় ৫ নারী শিক্ষার্থীসহ ১৬ জন ঢাকা ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীকে আটক করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

রবিবার (২০ জানুয়ারি) রাত ১০ টায় ও মধ্যরাত ২ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তমঞ্চ ও কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে অভিযান চালিয়ে ওই ১৬ জন শিক্ষার্থীকে আটক করে প্রশাসন।

শনিবার (১৯ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় মুক্তমঞ্চে হিম উৎসব চলাকালে প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা অভিযান চালিয়ে মাদক সেবনরত অবস্থায় ২ জন নারী শিক্ষার্থী ও ৮ জন ছাত্রকে আটক করেন।

তবে তাদের ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কোন তথ্য দিচ্ছেন না। সূত্রমতে রাতেই সতর্ক করে তাদের দ্রুত হলে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। হল প্রভোস্টকেও বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

আটকদের মধ্যে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে এমন শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৮ থেকে ১০ জন হবে। তাদের মধ্যে জবি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রয়েছে। এছাড়া জাবি শিক্ষার্থীদের গোপনে হলে পাঠিয়ে দেয়া হয়। বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী ঘটনাস্থল থেকেই পালিয়ে যান।

প্রত্যক্ষদর্শী একাধিক শিক্ষার্থী জানান, হিম উৎসবের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান চলাকালে একাধিক ব্যক্তিকে মুক্তমঞ্চের পেছনে মদ্যপান ও মদ ভাগাভাগি করতে দেখা গেছে। এছাড়া মঞ্চের আশেপাশে জটলা করে বিভিন্ন স্থানে গাঁজার আসর জমায় বহিরাগতরা। এসব আসর থেকে অভিযুক্ত শিক্ষার্থীদের আটক করে প্রশাসন।

এরপর রাত ২ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে মদ্যপ অবস্থায় ৩ নারী শিক্ষার্থীসহ ৬ জনকে আটক করে প্রক্টরিয়াল টিম।

প্রক্টর অফিস সূত্রে জানা যায়, রাত ২ টার দিকে প্রক্টরিয়াল বডি ও নিরাপত্তা শাখার সদস্যরা ক্যাম্পাসে টহলরত অবস্থায় কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ থেকে ৬ জন শিক্ষার্থীকে হাতেনাতে মদ্যপ অবস্থায় আটক করে। তাদের পরিচয় জানতে চাওয়া হলে তারা সবাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বলে পরিচয় দেয়।

এসময় তাদের মুখ থেকে মদের গন্ধ পাওয়া যায় এবং তারা মাতলামির স্বরে অশোভন আচরণ করতে থাকে। এতো রাতে কেন তারা মাঠে জানতে চাইলে আটকৃত এক ছাত্রী প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যকে বলেন, আমরা প্রায় এখানে আসি।

পরে নিরাপত্তা শাখার সদস্যরা তাদেরকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে নিরাপত্তা অফিসে সোর্পদ করে। এরপর ছাত্র ৩ জনের শরীরে তল্লাশী চালিয়ে ইয়াবা প্যাকেট, সিগারেট এবং তাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচয়পত্র উদ্ধার করে। সেখানে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা তাদের ভুল স্বীকার করেন এবং ভবিষ্যতে এরকম ঘটনার সাথে জড়িত হবে না বলে প্রতিজ্ঞা করেন। পরে তাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে মুচলেকা নিয়ে অভিভাবকদের বিষয়টি জানানো হয়েছে।

আটকদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পরিচয় দেয়া কয়েকজনের নাম প্রকাশ করা হয়েছে। তারা হলেন, সাইকোলজি বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্রী নুসরাত জাহান,ফার্সি বিভাগের অনার্সের ছাত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস, এমআইএসের অনার্সের ছাত্র সামিহা হক, ডেপলভমেন্ট স্টাডিজের অনার্সের ছাত্র হাবিব আহসান, একই বিভাগের আশফাক হোসেন, এবং খাইরুল ইসলাম শুভ।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ফিরোজ-উল-হাসান বলেন, আমরা দুই দফায় অভিযান চালিয়ে রাত ১০ টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ১০ শিক্ষার্থীকে প্রকাশ্যে মাদক দ্রব্য সেবনরত অবস্থায় এবং রাত ২ টার দিকে কেন্দীয় খেলার মাঠ থেকে মদ্যপ অবস্থায় ৬ জন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীকে আটক করেছি। পরে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাদে আটককৃতরা তাদের অপরাধ স্বীকার করে ও ভবিষ্যতে এরকম ঘটনার সাথে জড়িত থাকবে না বলে মুচলেকা দেয়।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা সুদীপ্ত শাহীন বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাদে আটককৃতরা তাদের অপরাধ স্বীকার করেছে। পরে তাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে মুচলেকা নিয়ে অভিভাবকদের বিষয়টি জানানো হয়েছে।

বিডি২৪লাইভ/এআইআর

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: