রাসেল ইসলাম

দিনাজপুর প্রতিনিধি:

দিনাজপুরে নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী

যে মানুষের বিশ্বাসে আঘাত হানবে আ’লীগ তার দায়িত্ব নিবে না

২৪ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:১৬:০০

ছবি : প্রতিনিধি

নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, আমাদের অঙ্গীকার অনুয়ায়ী গত ১০ বছরে বাংলাদেশে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। যে প্রান্তেই আপনারা চোখ দিবেন সেই প্রান্তেই অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। দিনাজপুরে যে উন্নয়নগুলো হয়েছে সেগুলো সব দৃশ্যমান। এই দিনাজপুর একটি ঐতিহ্যবাহী জেলা, সেই ঐতিহ্যকে আমাদেরকে ধারণ করতে হবে। সেই ঐতিহ্যর জায়গা থেকে আমরা সরে যেতে চাইনা। সেই ঐতিহ্যকে ধারণ করে আমরা দিনাজপুরের মানুষ বাংলাদেশে মাথা উচু করে দাঁড়াতে চাই।

বাংলাদেশের অন্য জেলার থেকে দিনাজপুরের প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভালবাসা অন্যরকম। তিনি কৃতজ্ঞ ও সহানুভূতিশীল।

কারণ আমরা যদি ৫৪ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত দিনাজপুরের মানুষ কখনও নৌকাকে ছেড়ে যায়নি। এই দিনাজপুরের মানুষ নৌকাকে আকড়ে ধরে অধিকার প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করেছে। এই দিনাজপুরের মানুষ স্বাধীনতা যুদ্ধে বীরত্ব গাঁথা ইতিহাস সৃষ্টি করছে।

এই দিনাজপুরের মানুষ ৭৫ পরবর্তী সামরিক জান্তা জিয়া এরশাদের বিরুদ্ধে লড়াই সংগ্রাম করেছে। কখনো বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে সরে যায়নি। শেখ হাসিনার নেতৃত্ব থেকে কখনো সরে যায়নাই।

কিন্তু তারপরও আমরা দেখতে পাই এই দিনাজপুরে বার বার আঘাত করার চেষ্টা করা হয়েছে।

দিনাজপুরে আওয়ামী লীগের ঐক্যকে ধ্বংস করার জন্য, ঐক্যকে ফাটল ধরানোর জন্য বার বার চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু দিনাজপুরের মানুষ বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাস করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ। কোন অপশক্তি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে কখনো দাবিয়ে দিতে পারে নাই। সেটা ইতিহাস প্রমাণ করেছে।

আজকে আমরা পবিত্র শহীদ মিনারের এই মঞ্চ থেকে স্পষ্টভাবে বলতে চাই আগামী দিনে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশে যে উন্নয়ন হবে, বাংলাদেশের যে অগ্রগতি হবে দিনাজপুরের মানুষ ও দিনাজপুর কখনো বঞ্চিত হবেনা।

বুধবার (২৩ জানুয়ারি) দিনাজপুর গোর-এ শহীদ বড় ময়দানে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

এ সময় তিনি আরও বলেন, অনেক ঘাত প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ পথ অতিক্রম করেছে। ৭৫এ বঙ্গবন্ধুকে স্ব-পরিবারে হত্যা করার পরে ২১ বছর আমরা অনেক কঠিন পথ পাড়ি দিয়েছি। আমাদের মিছিল থেকে অনেকে হারিয়ে গেছে।

এই দিনাজপুরের মাটিতে অজয় দাস রক্ত দিয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লিখে গেছে।

আমরা কখনো আমাদের রাস্তা থেকে বিচ্যুত হইনি। ২১ বছরের লড়াই সংগ্রাম শেষে আমরা প্রথম বারের মত সরকার গঠন করি।

বাংলাদেশের স্বর্ণযুগ হিসাবে খ্যাত আছে ৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত।

২০০১ সালের ১লা অক্টোবরের নির্বাচনে ষড়যন্ত্র করে বাংলাদেশকে হারিয়ে আওয়ামী লীগকে পরাজিত করা হয়েছে। তার পর আমরা দেখেছি জঙ্গিবাদ সন্ত্রাসবাদ। আমাদের উপর হামলা চালানো হয়েছে। এই দিনাজপুরে বার বার আঘাত থেকে বাদ যায়নি। দিনাজপুরের শান্তির আবাসভূমিতে হামলা করা হয়েছে।

এই দিনাজপুরে সভামঞ্চে রক্তাক্ত করা হয়েছে। বোমা ভাটিয়ে দিনাজপুরকে রক্তাক্ত করার চেষ্টা করা হয়েছে। এই বাংলাদেশে সংসদ সদস্যকে হত্যা করা হয়েছে। এই বাংলাদেশে প্রধান বিরোধী দলীয় নেতা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ২১শে আগষ্ট হত্যা করার চেষ্টা করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগ অনেক কঠিন পথ অতিক্রম করেছে। আজকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে আমরা দেখছি কি অগ্রগতি, পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশকে কি সম্মানের জায়গায় নিয়ে গেছি।

চতুর্থবারের মত বাংলাদেশের মানুষ আমাদেরকে ভোট দিয়েছে। দিনাজপুরের মানুষ ভোট দিয়েছে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের উদ্দ্যেশে শেখ হাসিনার ভাষায় বলতে চাই, এই আওয়ামী লীগকে মানুষ ভোট দিয়েছে কোন মালিকানা প্রতিষ্ঠা করার জন্য নয়, এখানে কোন মালিকানা থাকবেনা, এখানে বাংলাদেশের মানুষকে সেবা করার জন্য দৃঢ় প্রতিজ্ঞ ও অঙ্গীকার বদ্ধ হতে হবে।

আমি আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের অনুরোধ জানাতে বর্তমান সরকারের একজন সদস্য হিসাবে জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রথম মন্ত্রী সভায় মন্ত্রীদের উদ্দ্যেশে বলেছেন, সৎ এবং নিষ্ঠার সঙ্গে আমাদেরকে কাজ করতে হবে।

পুরো মন্ত্রী পরিষদের সদস্যদের বলেছেন, আমার এই কথা শুধু মন্ত্রী পরিষদ পর্যন্ত সীমাবদ্ধ রাখলে হবেনা, সমস্ত বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের কাছে পৌঁছে দিতে হবে।

আমরা দিনাজপুরে কোন প্রকার উশৃঙ্খলা চাইনা। দিনাজপুরে কোন প্রকার মাস্তানতন্ত্র, কোন ধরণের স্বৈরতন্ত্র চাইনা। কেউ যদি কোন প্রকার মালিকানা প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করে তাহলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এবং সরকার তার দায়িত্ব গ্রহণ করবেনা।

আপনারা ইতিমধ্যে তার কিছু ফলাফল দেখতে পাচ্ছেন। বাংলাদেশে সুশাসনের বাতাস প্রবাহিত হচ্ছে। এই বাতাস টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া পর্যন্ত প্রবাহিত হবে।

শেখ হাসিনার প্রতি বাংলাদেশের মানুষের যে বিশ্বাস, দিনাজপুরের মানুষের যে বিশ্বাস সে বিশ্বাসের প্রতি যে আঘাত হানবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এবং সরকার তার দায়িত্ব গ্রহণ করবেনা।

দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সবাপতি সাবেক মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল ইমাম চৌধুরী।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, দিনাজপুর -১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল, দিনাজপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য শিবলী সাদিকসহ জেলার বিভিন্ন স্তরের আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী।

বিডি২৪লাইভ/এইচকে

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: