প্রচ্ছদ / বিনোদন / বিস্তারিত

অশ্লীল দৃশ্যে অভিনয়, সালমানকে আনলাইকের হিড়িক

১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ , ০৬:০১:৩৯

অশ্লীলতার অভিযোগে দেশের জনপ্রিয় ইউটিউবার সালমান মুক্তাদিরের ইউটিউব চ্যানেল ‘সালমান দ্যা ব্রাউনফিস’ আনসাবস্ক্রাইব ঝড়ের মধ্যে পড়েছে। ইতিমধ্যে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়েছে। তার ইউটিউব চ্যানেলে ‘অভদ্র প্রেম’ টাইটেলে একটি ভিডিও টিজার প্রকাশ করার পর থেকে এই আনসাবস্ক্রাইবের ঘটনার মূল সূত্রপাত হয়। এরপর থেকেই শুরু হয় সমালোচনা।

প্রতি সেকেন্ডে কমে যাচ্ছে তার চ্যালেনটির সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা। গত তিন দিনে তার চ্যানেল থেকে আনসাবস্ক্রাইব হয়েছে ১ লাখেরও বেশি। অনেকে নিজেরাই শুধু চ্যানেলটি থেকে আনসাবস্ক্রাইব হচ্ছেন না, বরং সোশ্যাল মিডিয়ায় অন্যকেও উদ্বুদ্ধ করছেন। এরই মধ্যে আনসাবস্ক্রাইব করার সেই ভিডিওগুলো সামাজিক যোগাযোগামাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

হঠাৎ করে তার এই ইউটিউব চ্যালেনটি থেকে কেন মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন নেট জনতা? কারণ হিসেবে জানা গেছে, অশ্লীলতার বিরুদ্ধে নেট জনতার এ এক অভাবনীয় প্রতিবাদ।

কয়েকদিন আগে সালমান মুক্তাদির তার জনপ্রিয় এই ইউটিউব চ্যানেলে ‘অভদ্র প্রেম’ টাইটেলে একটি ভিডিও টিজার প্রকাশ করে। ভিডিওটি প্রকাশের পর থেকেই সালমানের কঠোর সমালোচনায় মেতে ওঠেন ভার্চুয়ালবাসী। ভিডিওটি ইউটিউব থেকে সরিয়ে ফেলার অনুরোধ জানায় অনেকে। সেই সমালোচনার আগুনে ঘি ঢালেন তাহসিন এন রাকিব (তাহসিনেশন) নামের আরেক ইউটিউবার।

সালমানের ওই ‘অভদ্র প্রেম’ ভিডিও টিজারটির বিষয়ে গত ৭ ফেব্রুয়ারি তাহসিন রাকিব তার ফেসবুক পেইজে একটি পোস্ট করেন। সেখানে তিনি সালমান মুক্তাদিরের অশ্লীলতার বিরুদ্ধে ও ‘অভদ্র প্রেম’ ভিডিওটির নেতিবাচক দিকটি তুলে ধরে সমালোচনামূলক ভিডিও বানানোর কথা জানান। এতে ৫ লাখেরও বেশি ফেসবুক ব্যবহারকারী এমন ভিডিও বানাতে উৎসাহ দেন।

গত শুক্রবার রাতে তাহসিন তার ইউটিউব চ্যানেলে সালমানের বিষয়ে প্রতিবাদি বা জনসচেতনতামূলক পোস্ট (রোস্টিং ভিডিও) প্রকাশ করেন। ওই রোস্টিং ভিডিওতে তাহসিন এন রাকিব ইউটিউব ভিউয়ারদের ‘সালমান দ্যা ব্রাউনফিস’ চ্যানেল আনসাবস্ক্রাইব করতে অনুরোধ করেন।

তাহসিনের ভিডিওটি পোস্ট করার রাতেই সালমান মুক্তাদিরের চ্যানেল থেকে প্রায় ৫০ হাজার লাইক হাওয়া হয়ে যায়। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত সাবস্ক্রাইবারের সংখ্য ১০ লাখ ৯৬ হাজারে নেমে এসেছে। এভাবে সালমান মুক্তাদির ইউটিউব চ্যানেলটি থেকে মানুষ মুখ ফিরিয়ে নিতে থাকলে অদূর ভবিষ্যতে চ্যানেলটি আর টিকে থাকতে পারবে কিনা তা নিয়ে সংশয় জেগেছে। তবে চ্যানেলটি আনস্ক্রাইবের ঘটনাকে অশ্লীলতার বিরুদ্ধে অভাবনীয় পদক্ষেপ মন্তব্য করে তরুণদের প্রশংসা করছেন সচেতনরা।

বিডি২৪লাইভ/আরআই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: