প্রচ্ছদ / সারাবিশ্ব / বিস্তারিত

কাশ্মীরে সেনাবাহিনীর ‘অপারেশন-২৫’ শুরু

প্রকাশিত: ০৩:৪০ অপরাহ্ণ, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

ছবি : ফাইল ফটো

পুলওয়ামার ঘটনায় ভারতবাসীর ক্ষোভ এবং প্রতিশোধের চাহিদার মাঝে এখন সেনার সামনে সব থেকে বড় চ্যালেঞ্জ পুলওয়ামার মাস্টারমাইন্ডকে ধরা৷ পুলওয়ামার মাস্টারমাইন্ড মানে আত্মঘাতী জঙ্গি আদিল দারকে প্রশিক্ষণ দেওয়া আফগানি জঙ্গি গাজী় রাশিদ৷ সেনার অনুমান যেভাবে ঘটনার পর তারা গোটা এলাকাকে ঘিরে ফেলেছিল তাতে গাজী় পুলওয়ামা থেকে ২৫ কিলোমিটারের বেশি পালাতে পারেনি৷ এটাই এবার সেনার “আপারেশন-২৫”৷ এ খবর দিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম কলকাতা ২৪।

সেনা গোপন সূত্রে খবর পেয়েছে, পুলওয়ামা থেকে ২৫ কিলোমিটারের মধ্যে আশ্রয়ে রয়েছে জঙ্গিরা৷ সেনা নজরদারি কমার অপেক্ষা করছে বলে সেনা আধিকারিকরা মনে করছেন৷ নজরদারী ঢিলে হলেই তার সুযোগ নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করছে গাজ়ী, এমনটাই অনুমান সেনার৷ তাকে খুঁজতে চিরুনি তল্লাশি চালানো হচ্ছে৷ তাকে খুঁজে বের করার এই প্রক্রিয়ার নাম দেওয়া হয়েছে “অপারেশন-২৫”৷

জানা যাচ্ছে, গত বছর আদিল কে আত্মঘাতী হামলার প্রশিক্ষন দেওয়া হয়৷ ২০১৬ সাল থেকে আদিল ওভার গ্রাউন্ড ওয়ার্কার হিসেবে কাজ শুরু করে৷ সূত্রের খবর আদিল লষ্কর জঙ্গিদের গা ঢাকা দিতে সাহায্য করত৷ এছাড়া আদিল লস্কর কমান্ডার এবং তাদের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার প্রক্রিয়ায় মধ্যস্থতাকারীর কাজ করত৷ এই সংবাধমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়া খবর অনুযায়ী আদিলের পরিবারের কয়েকজন সদস্যদের জঙ্গি সংগঠনগুলির সঙ্গে যোগাযোগ রয়েছে৷
 
অন্যদিকে জম্মু কাশ্মীরে একের পর এক জঙ্গি হামলায় যে স্থানীয় বাসিন্দারা জঙ্গিদের সাহায্য করছে তাদের চিহ্নিত করার জোরদার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে৷ সংবাদমাধ্যম “অমর উজালার” খবর অনুযায়ী দক্ষিন কাশ্মীরে জঙ্গি সংগঠনগুলির জন্য যে যুবক থেকে শুরু করে মহিলারা কাজ করছে তাদের ইতিমধ্যেই খুঁজে বের করেছে সেনা ও জম্মু কাশ্মীরে পুলিশের টিম৷ মূলত, পুলওয়ামার সেই এলাকায় নজরদারি বাড়ানো হয়েছে যেখানে বৃহস্পতিবার সিআরপিএফের কনভয়ের উপর হামলা চালানো হয়েছে৷

এই সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী, শ্রীনগর থেকে নিয়ে পাম্পোর পর্যন্ত ন্যাশনাল হাইওয়ে লাগোয়া গ্রামগুলিতে একটা বড় লোকাল নেটওয়ার্ক কাজ করছে৷ প্রায় ৫০টি এমন গ্রাম আছে যেখানে এই জঙ্গি সংগঠনগুলির জন্য কাজ চালানো হচ্ছে৷ জঙ্গিরা সিআরপিএফ জওয়ানদের উপর গামলার জন্য লেথপোড়া এলাকাকে বেছে নিয়েছে৷ তদন্তকারী সংস্থার অনুমান লেথপোরা এলাকায় জঙ্গি একটা বড় অংশ কাজ করছে৷ লেথপোরা সহ অন্য এলাকাগুলিতে লোকাল নেটওয়ার্কের রেকর্ড খতিয়ে দেখছেন গোয়েন্দারা৷ তারা মোবাইল নম্বর থেকে শুরু করে তাদের ব্যাকগ্রাউন্ড, ব্যাঙ্কের খাতা এবং কর্মস্থল খতিয়ে দেখছেন৷ সূত্রের খবর অনুযায়ী, এই কাজের জন্য এই বিশেষ টিমে প্রথম সারির আধিকারিকেরা সামিল রয়েছে৷ তাদের মধ্যে অনেকেই ১৯৯০ এর দশকে কাজ করেছে৷ এই কাজের জন্য কয়েকজন প্রাক্তন অফিসারদের সাহায্য নিচ্ছে৷

পুলিশ এলাকার লোকাল নেটওয়ার্কে শেষ করতে চাইছে কারন তারা মনে করছেন লোকাল নেটওয়ার্ক সন্ত্রাসবাদ গতিবিধির মুল শক্তি৷ এই সংবাদ মাধ্যম জানাচ্ছে ওভার গ্রাউন্ডের ওয়ার্কারের পরিবার, স্কুল কলেজের ছাত্রদের তালিকাও তৈরি করা হচ্ছে৷ যারা এই সাহায্য যোগাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে রাজ্য পুলিশ দেশদ্রোহিতার মামলা করতে চলেছে বলে এই সংবাদ মাধ্যম জানাচ্ছে৷

পুলওয়ামার ঘটনার পর জম্মু শহরে কার্ফু জারি করা হয়েছিল৷ তার পর থেকে সেখানকার পরিস্থিতির অবনতি ঘটতে শুরু করেছে৷ এই সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে জানিপুরে সকাল থেকে সিআরপিএফের উপর হামলা চালানোর ঘটনার বিরুদ্ধে স্থানীয় যুবকরা মিছিল বের করে৷ এই মিছিল দেখে গভর্মেন্টস কোয়াটারস থেকে পাকিস্তান জিন্দাবাদের স্লোগান শোনা যায়৷ অভিযোগ স্লোগানের পাশাপাশি এই বহুতল থেকে যুবকদের লক্ষ্য করে পাথর ছোঁড়া শুরু হয়৷ তৎপরতার সঙ্গে পুলিশ এবং সেনা গোটা এলাকাটি কে ঘিরে ফেলে৷ এই মিছিলে স্থানীয় মহিলারাও যোগ দেয়৷ ঘটনায় নিয়ন্ত্রন আনতে পুলিশ আট যুবক কে আটক করে৷ তবে তাদের আটক করায় পরিস্থিতি আরও বেসামাল হয়ে যায়৷ মহিলারা অভিযোগ করে এই যুবকদের অকারনে আটক করেছে পুলিশ৷

বিডি২৪লাইভ/এআইআর

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: