সম্পাদনা: আমিনুল ইসলাম রোমান

ডেস্ক এডিটর

পাকিস্তানিদের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রাজস্থান ছাড়ার নির্দেশ

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৬:০৫:১৯

ছবি: ইন্টারনেট

ভারত অধিকৃত জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় আত্মঘাতী হামলায় ভারতের বিশেষ বাহিনীর (সিআরপিএফ) ৪৪ জওয়ান নিহত হওয়ার পর কাশ্মীরজুড়ে আতঙ্ক বেড়েই চলছে। শুধু কাশ্মীরই নয়, এই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে গোটা ভারতজুড়ে।

এবার ভারতের উত্তরাঞ্চলীয় সীমান্তবর্তী প্রদেশ রাজস্থানে বসবাসরত পাকিস্তানিদের উপর কড়া নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে প্রশাসন। আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পাকিস্তানের সব নাগরিককে রাজ্য ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) ভারতের উত্তরাঞ্চলীয় এই প্রদেশের বিকানার জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এই নির্দেশনা জারি করেন।

নির্দেশনায় বলা হয়, ‘রাজ্যের প্রতিটি হোটেল বা বাড়িতে পাকিস্তানি নাগরিকদের নতুন করে থাকতে দেওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এমনকি, পাকিস্তানি নাগরিকদের কোনো ধরনের স্পর্শকাতর তথ্য দেওয়া পুরোপুরি নিষিদ্ধ।’

জেলা ম্যাজিস্ট্রেট থেকে পাঠানো নির্দেশনায় এও বলা আছে, ‘তাছাড়া মোবাইল কিংবা টেলিফোনে পাকিস্তানের নাগরিকদের সঙ্গে কথা বলা এবং ব্যবসা-বাণিজ্যের উপরো কড়া নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। যেকোনো পাকিস্তানি নাগরিককে কাজ দেওয়ার উপরও থাকছে পুরোপুরি নিষেধাজ্ঞা। প্রশাসন এই নির্দেশ প্রত্যাহার না করলে আগামী দু’মাস পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞা বলবত থাকবে।’

অপরদিকে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, পাকিস্তান থেকে বিকানার বসবাসরত শহরবাসীকে ফোন করে ব্যাঙ্গ, বিদ্রূপ এবং নানা উপহাস করা হচ্ছে। মূলত এ কারণে টেলিফোনে পাক নাগরিকদের সঙ্গে সব ধরনের কথা বলা কিংবা ইন্টারনেট ব্যবহারের মাধ্যমে যোগাযোগ রাখার পাশাপাশি ব্যবসা বাণিজ্য অথবা অন্য কোনো রকম লেনদেনের উপরেও পুরোপুরি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। তাছাড়া বিকানা শহরে বসবাসরত কোনো লোক পাকিস্তানি সিম কার্ডও ব্যবহার করতে পারবেন না।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু কাশ্মিরে এক আধাসামরিক বাহিনীর গাড়ি বহরে পাকিস্তান ভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন জয়েশ-ই-মোহাম্মদের করা হামলায় অন্তত ৪৪ সেনা নিহত হন। হামলার সময় গাড়িটিতে ভারতের কেন্দ্রীয় রিজার্ভ পুলিশ বাহিনীর (সিআরপিএফ) কমপক্ষে ৫৪ জন সদস্য ছিলেন।

উল্লেখ্য, পাক-ভারত সীমান্ত সংলগ্ন শহর বিকানায় প্রায়ই অনেক পাকিস্তানি নাগরিক আসেন। তারা ব্যবসা-বাণিজ্যসহ নানা কারণে শহরটিতে প্রবেশ করেন। তবে পুলওয়ামা হামলার পর আমাদের মধ্যে পাকিস্তান বিরোধী এক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। মূলত সেই ক্ষোভের কারণের বাধ্য হয়ে ভারত সরকার এসব সিদ্ধান্ত গ্রহণ করছে।

বিডি২৪লাইভ/এআইআর

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: