মনজুরুল ইসলাম

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

এলইডি টিভির জন্য অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে নিমর্মভাবে হত্যা করল স্বামী!

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৪:০৯:০০

ছবি : প্রতীকী

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ায় এলইডি টেলিভিশনের জন্য ৪ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস শিমু নামে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে এক স্বামীর বিরুদ্ধে।

নিহত শিমু ফুলবাড়িয়া উপজেলার ধামর বেলতলী গ্রামের দরিদ্র সিরাজুল ইসলামের কন্যা। ঘাতক স্বামী শামিম আহম্মেদ উপজেলার ধামর উত্তর পাড়া গ্রামের হুরমত আলীর ছেলে।

মঙ্গলবার (১৯ ফেব্রয়ারি) ভোরে ফুলবাড়িয়া উপজেলার ধামর উত্তর পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পরে ওই দিন রাত সাড়ে ৮ টায় নিহতের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

এলাকাবাসীর বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, ধামর উত্তর পাড়া গ্রামের হুরমত আলীর পুত্র শামিম আহম্মেদের সাথে শিমুর প্রেমের সম্পর্ক ছিল। গত ৯ মাস পূর্বে শিমুকে নিয়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় শামীম। পরে দুই পরিবারের আলোচনার মাধ্যমে তাদের বিয়ে হয়।

বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই যৌতুকের জন্য শিমুকে মারপিট করে শামীম। দেড় মাস পূর্বে শ্বশুড় বাড়ি থেকে এলইডি টিভি আনার জন্য স্ত্রী শিমুকে চাপ প্রয়োগ করে তার স্বামী ও শ্বশুর-শাশুড়ি। টিভি এনে না দেওয়ায় শিমুকে তার স্বামী ব্যাপক মারপিট করার পর বাবার বাড়ি চলে যেতে বলে।

সোমবার (১৮ ফেব্রয়ারি) রাতে যৌতুকের জন্য শামীম ও শিমুর মাঝে ঝগড়া হয়। পরে মঙ্গলবার (১৯ ফেব্রয়ারি) সকাল সাড়ে ৬টার দিকে ঘরের বারান্দায় অজ্ঞান হয়ে পড়লে হাসপতালে নেওয়ার পথে সকাল ৯টার দিকে মারা যায়।

নিহত শিমুর পিতা সিরাজুল ইসলাম বলেন, কয়েক দিন আগে এলইডি টিভি যৌতুক দাবি করে শামীম। আমরা দরিদ্র হওয়ায় জামাইয়ের চাহিদা পূরণ করতে পারিনি। তাই বিভিন্ন সময় শারীরিক নির্যাতন করত। যৌতুকের জন্য আমার মেয়েকে স্বামী ও তার পরিববারের লোকজন পিটিয়ে হত্যা করেছে। আমি আমার মেয়ে হত্যার বিচার চাই।

ফুলবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ কবিরুল ইসলাম বলেন, মঙ্গলবার রাতে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত মেয়েটির পরিবারের কেউ থানায় কোনো অভিযোগ দেয়নি। ময়নাতদন্ত ছাড়া কিছু বলা যাচ্ছে না।

বিডি২৪লাইভ/টিএএফ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: