রাস্তার জ্যামে বসেই আগুনে পুড়ে ছাই বাবুল

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৩:৪৮:৫১

ছবি: ইন্টারনেট

রাজধানীর পুরান ঢাকার চকবাজারে অগ্নিকাণ্ডে নিখোঁজ আর নিহতদের খোঁজে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতাল চত্বরে নেমে এসেছে মাতাম শোকের ছাঁয়া। প্রিয়জনদের খোঁজে বেহুশ হয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েছে অনেকে আবার কেউ প্রিয়জনের সেই মুখখানি দেখতে আশায় বুক বাঁধছেন। কিন্তু অনেকেই নিজের চেনা মুখটা আহত-নিহত কোন তালিকাতেই খুঁজে পাননি।

বুধবার (২০ ফেব্রুয়ারি) রাতে মর্মান্তিক অগ্নিকাণ্ডে নিখোঁজ হওয়া প্রিয় মানুষের মুখটা দেখতে এসে যেন অনেকে নিজেই মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে।

এদিকে ঢামেক মর্গের এক কোণায় শোনা যায় আফরোজা নামে নিখোঁজ হওয়া এক বাবার আর্তচিৎকার। উদভ্রান্তের মত ছোটাছুটি। কখনো ফায়ার সার্ভিসের লোকদের কাছ প্রিয়জনের একটা খবর জানার চেষ্টা করছেন । কিন্তু তখনও তিনি জানেন না জামাতার মৃত্যুর খবর। এক মাস আগেই বিয়ে হয়েছিল মেয়ের।

অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাস্থলের একটি টেলিফোনের দোকান ছিলো তার জামাতার। বড় ভাইকে নিয়ে সেসময় নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেই ছিলেন তিনি বলে জানা যায়। কিন্তু আগুনের লেলিহান শিখা শেষ করে দিয়েছে তাদের সব স্বপ্ন।

এদিকে আরেক ব্যবসায়ী পেশায় জুতা দোকানদার, নাম মোশাররফ হোসেন বাবুল। জানা গেছে তার আরেক ব্যবসায়ী বন্ধুকে নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে চকবাজারের চুড়িহাট্টা এলাকায় ট্রাফিক জ্যামের কারণে থেমেছিলো তার রিকশা। সেই থামাই কাল হলো তার জন্য। হঠাৎ বিস্ফোরণে অজানায় হারিয়ে গেলেন বাবুল।

তবে বিধাতার লীলা খেলায় বেঁচে গেছেন রিকশায় তার সঙ্গে থাকা বন্ধু সাইফুল ইসলাম। আহত হয়ে প্রানভয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করার পর, মর্গে এসেছেন বন্ধুর লাশ খুঁজতে। অবশেষে মরদেহ শনাক্তের পর ভেঙ্গে পড়েছেন অঝোর কান্নায়।

বেঁচে যাওয়া সাইফুল বলেন, একসঙ্গেই রিকশায় ফিরছিলাম আমরা। এরমধ্যেই বিকট শব্দে দুইতলা সমান আগুন। আমরা দুইদিকে পরে গেলাম। আমার মাথায় আগাত লাগে। কিন্তু আমার বন্ধু তো আর নেই। রিকশাওয়ালা ঘটনাস্থলেই মারা যায়।

তারা অন্তত মরদেহটি খুঁজে পেয়েছে স্বজনের। তবে এতোটা সৌভাগ্যও ছিলোনা সবার। ভবনটির পাশের এক ডেকোরেটরের দোকানে থাকা জুম্মনের কোন খোঁজ-ই জানা নেই স্বজনদের। নানা মানুষের কথা শুনে বেশ কয়েকটি হাসপাতাল ঘুরে মর্গে এসে পৌঁছেছেন তারা। আশা যদি একটা খবর মিলে প্রিয় মানুষটার।

বিডি২৪লাইভ/এসএএস

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: