‘আজরাইল দেইখ্যা ফালাইছি, অল্পের লাইগা প্রাণে বাইচ্যা গেছি’

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৪:১০:০০

রাজধানীর চকবাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড। ছবি: ইমরান

রাজধানীর চকবাজারে ভয়াবহ আগুনের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৭৮ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে বেশ কিছু লাশ পুড়ে কয়লা হয়ে গেছে। নিহতদের দেখে পরিচয় শনাক্ত করার কোনো উপায় নেই।

অগ্নিকাণ্ডের ভয়াবহতা থেকে প্রাণে বেঁচে যাওয়া একজন হলেন- আহত রিকশাচালক নূর আলম (৩০)।

ভয়াবহ সেই অগ্নিকাণ্ডের বর্ণনা দিয়েছেন রিকশাচালক নূর আলম। তিনি বলেন, রাত সাড়ে ১০টার দিকে চকবাজার এলাকার নন্দকুমার দত্ত রোড দিয়ে রিকশায় যাত্রী নিয়ে যাচ্ছিলাম। তখনই বিকট শব্দ শুনতে পাই। ওই সময়ই আমার রিকশার ওপর ভেঙে পড়ে ভবনের দেয়ালের কিছু অংশ।

নূর আলম বলেন, ‘আমার ওপরে পড়ার সঙ্গে সঙ্গেই রিকশা থেকে পইড়া যাই। আর যাত্রীরা গিয়া পড়ে রাস্তার লগের ড্রেইনে।’

আহত নূর আলম আগুনের ভয়াবহতার বর্ণনা করে আরও বলেন, দেয়ালের অংশ পড়ে মাথা ফেটে গেলেও তখনও আমার জ্ঞান ছিল। এরপর আমি ফোনে পাশেই এক আত্মীয়কে জানাই। পরে ওই আত্মীয় ঘটনাস্থলে এসে আমাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে যান। মাথা ফাইট্যা গেছে। হাতে আর পিঠে ও আঙুলেও ব্যথা পাইছি।

নিজে প্রাণে বাঁচলেও, তার উপার্জনের একমাত্র অবলম্বণ রিকশাটি এখনও খুঁজে পাননি তিনি।

বৃহস্পতিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) চিকিৎসা নিয়ে মাথায় ব্যান্ডেজ নিয়েই ভোর রাত সাড়ে ৪টার দিকে হাসপাতাল থেকে ছুটে আসেন পুরান ঢাকার চকবাজারের চুড়িহাট্টা শাহী মসজিদ এলাকার সেই দুর্ঘটনাস্থলে। কারণ ওই সময় রিকশা ফেলে রেখেই জীবন বাঁচাতে হাসপাতালে ছুটে যান তিনি।

এ সময় তিনি বলেন, এমন দৃশ্য জীবনেও দেখি নাই। আজকে আমি আজরাইল দেইখ্যা ফালাইছি। অল্পের লাইগা প্রাণে বাইচ্যা গেছি।

রাজধানীর চকবাজারের চুড়িহাট্টা শাহী মসজিদের পেছনের ভবনগুলোতে লাগা ভয়াবহ আগুনে দগ্ধ এখন পর্যন্ত অন্তত ৭৮ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া মরদেহের মধ্যে ৬৬ পুরুষ ৭ জন নারী ও ৫ জন শিশু রয়েছে।

এর আগে বুধবার রাত ১০টা ৩৮ মিনিটে শুরু হওয়া আগুন ১টা ৫ মিনিটে নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। ভয়াবহ আকারে ছড়িয়ে পড়ে আশপাশের ৫টি বিল্ডিংয়ে। ফায়ার সার্ভিসের ৩৭টি ইউনিট চারঘণ্টার মতো কাজ করে আগুন নিয়ন্ত্রণে নেয়। এই ঘটনায় দগ্ধসহ আহত কমপক্ষে অর্ধশত ব্যক্তিকে ইতোমধ্যে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

বিডি২৪লাইভ/টিএএফ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: