প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

আরমান হোসেন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

রওশন এরশাদকে বিরোধী দলীয় উপনেতা করে প্রজ্ঞাপন

২৫ মার্চ, ২০১৯ ১৫:১২:০০

ফাইল ফটো

জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান বেগম রওশন এরশাদকে জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় উপনেতা করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে জাতীয় সংসদ। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ স্বাক্ষরিত চিঠির প্রেক্ষিতে তাকে সংসদের বিরোধী দলীয় উপনেতার স্বীকৃতি দিয়েছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

রোববার (২৪ মার্চ) এই প্রজ্ঞাপন জারি করা হলেও আজ তা প্রকাশ করে সংসদ সচিবালয়। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ‘জাতীয় সংসদে সরকারি দলের বিরোধিতাকারী সর্বোচ্চ সংখ্যক সদস্য লইয়া গঠিত জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও মাননীয় বিরোধীদলীয় নেতা জনাব হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এমপি (রংপুর-৩) এর ২৩শে মার্চ তারিখে পত্রের প্রেক্ষিতে জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় উপনেতা জনাব গোলাম মোহাম্মদ কাদের (লালমনিরহাট-৩) এর পরিবর্তে ময়মনসিংহ-৪ হতে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ সদস্য বেগম রওশন এরশাদকে ‘বিরোধীদলীয় নেতা এবং উপনেতা (পারিতোষিক ও বিশেষাধিকার) অধ্যাদেশ, ১৯৭৯’ মোতাবেক জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় উপনেতা হিসেবে মাননীয় স্পিকার স্বীকৃতি দান করিলেন।’

প্রসঙ্গত, এর আগে জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় উপনেতার পদ থেকে গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের বাদ দেন তার ভাই ও সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তার স্থলে বিরোধী দলীয় উপনেতা হিসেবে রওশনকে দায়িত্ব দেয়ার জন্য স্পিকারের কাছে চিঠিও দেন তিনি।

শনিবার (২৩ মার্চ) এক সাংগঠনিক নির্দেশে সংসদের বিরোধীদলীয় উপনেতার পদ থেকে তাকে অপসারণ করা হয়েছে।

সাংগঠনিক নির্দেশে বলা হয়েছে, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান, প্রধান বিরোধী দলীয় নেতা এবং পার্লামেন্টারি পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে আমি প্রধান বিরোধী দলের উপনেতার পদ থেকে গোলাম মোহাম্মদ কাদেরকে অপসারণ করছি। এখন প্রধান বিরোধী দলের উপনেতার পদে বেগম রওশন এরশাদকে মনোনীত করা হলো। পার্টির গঠনতন্ত্রের ২০/১/ক ধারা মোতাবেক এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে সংসদের স্পিকারের সমীপে প্রস্তাব পেশ করা হলো।

এর আগে শুক্রবার (২২ মার্চ) রাতে এক সাংগঠনিক নির্দেশে তাকে জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান পদ থেকে অব্যাহতি দেন জাপা চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ। ওই নির্দেশে তাকে দলের সাংগঠনিক দায়িত্ব থেকেও অব্যাহতি দেয়া হয়। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের ডেপুটি প্রেস সচিব খন্দকার দেলোয়ার হোসেন জালালী বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

নির্দেশে আরও বলা হয়, যেহেতু কাদের পার্টি পরিচালনা করতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছেন, পার্টির সাংগঠনিক কার্যক্রম ঝিমিয়ে পড়েছে এবং তিনি পার্টির মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করেছেন। পার্টির সিনিয়র নেতারাও তার নেতৃত্বে সংগঠন করতে অপারগতা প্রকাশ করেছেন। এমনতাবস্থায় সংগঠনের স্বার্থে পার্টির সাংগঠনিক দায়িত্ব এবং কো-চেয়াম্যানের পদ থেকে গোলাম মোহাম্মদ কাদেরকে অব্যাহতি দেয়া হলো। তবে তিনি পার্টির প্রেসিডিয়াম পদে বহাল থাকবেন।

বিডি২৪লাইভ/এইচকে

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: