দেশের দ্বাদশ মেয়রের প্রথম সাক্ষাৎকার

ময়মনসিংহকে নিয়ে প্রথম মেয়রের যেসব পরিকল্পনা রয়েছে

১৮ এপ্রিল ২০১৯ , ০১:১৫:৪৯

ছবি: সংগৃহীত

দেশের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী শহর ময়মনসিংহ। ব্রক্ষ্মপুত্র নদী ঘেরা এ শহরটির নানান ঐতিহাসিক দিক রয়েছে। ময়মনসিংহ শিক্ষা ও শিল্পসাহিত্যের নগরী হিসেবে পুরো দেশবাসীর কাছে পরিচিত। কিন্তু কালের পরিক্রমায় আজ ময়মনসিংহ নগরী অনেক উপেক্ষিত, আধুনিকতার ছোয়া ঐ অর্থে নেই বললেই চলে। তবে সরকার ময়মনসিংহকে বিভাগ ঘোষণা করার পর আবার এই নগরী তার পূর্বের ঐতিহ্য ফিরে পাবে বলে প্রত্যাশা করছে এই নগরবাসী।

আগামী ৫ মে প্রথমবারের মতো এ সিটিতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে মেয়র নির্বাচন কিন্তু নির্বাচনের পূর্বেই বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রথম নগর পিতা হলেন ইকরামুল হক টিটু। এ নগর পিতা ময়মনসিংহকে উন্নয়নের শিখরে পৌঁছাতে নানান ধরনের পরিকল্পনা করেছেন। মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পরই তিনি প্রথম সাক্ষাৎকার দিয়েছেন বিডি২৪লাইভকে। তার সাক্ষাৎকারটি নিয়েছে বিডি২৪লাইভের স্টাফ করেসপন্ডেন্ট শিমুল বারী।

বিডি২৪লাইভ: আপনি দেশের দ্বাদশ সিটির প্রথম নগর পিতা হয়েছেন। এ নগরীকে আপনি কতদূর এগিয়ে নিতে চান?
ইকরামুল হক টিটু: আমি এ নগরীকে দেশের অন্যতম আধুনিক সিটি হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। যেখানে নগরবাসী অনায়াসে তার কাঙ্খিত সেবা পাবে। কোন ধরনের ঝামেলা ছাড়াই সকল নাগরিককে সব সময় সেবা দিতে বাধ্য থাকবে সিটি করপোরেশন। এটাই হবে আমার প্রধান কাজ। আমি যেহেতু পূর্বে ছিলাম পৌরসভার দায়িত্বে, তাই আমি জানি কী সমস্যা আছে এবং কী করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমার প্রতি আস্থা রেখেছেন, এর জন্য আমি কৃতজ্ঞ। উনার (প্রধানমন্ত্রী) ইচ্ছার বাস্তবায় করতে চাই। উনি পুরো দেশকে বিশ্বের কাছে উন্নয়নের মডেল হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করছেন আর আমি চাই ময়মনসিহকে দেশের অন্যতম আধুনিক নগরী করতে, পুরো দেশের মানুষ যেন ময়মনসিংহ নগরী দেখে আবেগে আপ্লুত হয়ে যায়। একথা সত্য, অন্যান্য শহরের চেয়ে আমরা অনেক পিছিয়ে আছি। আমি সব কিছুর উর্ধ্বে যেতে আমি নিরলস ভাবে কাজ করে যাব। ময়মনসিংহবাসীর সকল সুখ-দুঃখ দূর করতে কাজ করব। এটাই আমার অন্যতম পরিকল্পনা। নগরবাসীর উন্নয়ন ছাড়া আমি বিকল্প কিছু ভাবছি না। আমি আমার রাজনৈতিক জীবন শুরু করেছি পৌরসভার কমিশনার নির্বাচিত হওয়ার মাধ্যমে। অতএব আমি জানি সমস্যা ও সমাধানের রাস্তা। আমি ময়মনসিংহ বাসীকে বলব, আপনারা আমার প্রতি আস্থা রাখুন, আমি বাংলাদেশে মাঝে ময়মনসিংহকে আধুনিক সিটি হিসেবে গড়ে তুলব ইনশাল্লাহ।

বিডি২৪লাইভ: ময়মনসিংহ শহরকে আপনি কিভাবে সাজাতে চান?
ইকরামুল হক টিটু: ময়মনসিংহের মাটি আমার মস্তিস্কে লেগে আছে। এই শহরের উন্নয়ন এবং ময়মনসিংহবাসীর জন্য কাজ করতে পারাটাই আমার জীবনের একমাত্র ব্রত। আমি এই শহরকে পরিচ্ছন্ন, জলাবদ্ধতা নিরসন, বেকারত্বমুক্ত এবং সত্যিকার অর্থে শিক্ষা ও শিল্প সাহিত্যের নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করে যাব। ময়মনসিংহের উন্নয়নে আমি দল মত নির্বিশেষে সকলকে নিয়েই কাজ করব।

বিডি২৪লাইভ: কর্মস্থানের অভাব এখানে বড় সমস্যা, এটাকে নিরসনে কিভাবে কাজ করবেন?
ইকরামুল হক টিটু: সিটি করপোরেশনের বর্ধিত অংশে দেশের শিল্প উদ্যোক্তাদের দিয়ে কলকারখানা, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, বিনোদন পার্ক নির্মাণ করার ব্যবস্থা নিব। যাতে করে নতুন নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টির সুযোগ হয়। ময়মনসিহ জেলায় প্রচুর মাছ চাষ হয়, তাই যুব সমাজকে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে মাছ চাষে উদ্বুদ্ধ করবে সিটি করপোরেশন।

বিডি২৪লাইভ: ময়মনসিংহ আবাসন সমস্যা প্রকট, এটি নিরসনে আপনি কি কি উদ্যোগ গ্রহণ করবেন?
ইকরামুল হক টিটু: ময়মনসিংহে নিম্ন আয়ের মানুষদের বসবাসের জন্য এখনও কোন ব্যবস্থা গড়ে ওঠেনি। আমি মেয়র নির্বাচিত হলে এই শ্রেণির মানুষদের জন্য বহুতল বিশিষ্ট ফ্ল্যাটবাড়ি নির্মাণ করে সহজ কিস্তিতে মালিকানা প্রদানের ব্যবস্থা করব। এছাড়াও বীর মুক্তিযোদ্ধা, সম্মানিত শিক্ষক, আলেম ওলামা ও সাংবাদিকদের জন্য পৃথক আবাসিক এলাকা গড়ে তোলা হবে। এর মাধ্যমে আবাসন সঙ্কট নিরসন হবে।

বিডি২৪লাইভ: ময়মনসিংহ শহর উন্নয়নে কি কি কার্যকরী পদক্ষেপ থাকবে আপনার?
ইকরামুল হক টিটু: ময়মনসিংহ সিটিকে আধুনিক নগরী গড়ে তুলতে কাজ করব। মহানগরীর চতুর্দিকে রিং রোড ও লেক নির্মাণ করা, নগরীর বিভিন্ন স্থানে গণশৌচাগার স্থাপন করা, নগরীর অনুন্নত এলাকার রাস্তাঘাট ও ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন করা, যানজট নিরসনে শহরে সুরু রাস্তাকে প্রসারিত করার চেষ্টা করব। শহরের ঐতিহাগিক স্থান গুলোর উন্নয়ন করে পর্যটন বান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি করা, প্রতিটি ওয়ার্ডে একটি করে খেলাধূলার মাঠ স্থাপন করা, শিক্ষা ও চিত্তবিনোদনের জন্য পার্ক নির্মাণের কাজ দ্রুততার সাথে করব এবং ময়মনসিংহ পূর্ণাঙ্গ টেলিভিশন কেন্দ্র চালু করার ব্যবস্থার চেষ্টা করব।

বিডি২৪লাইভ/এসবি/এমআর

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: