হাবিবুর রহমান

কুমিল্লা প্রতিনিধি

চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রকে অমানবিক বেত্রাঘাত

২০ এপ্রিল, ২০১৯ ২২:১০:০০

ছবি: প্রতিনিধি

কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার মাধাইয়া ইউনিয়নের বড়কলাগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মো. সামিরুল হাসান (৯) নামের এক ছাত্রকে বেধরক বেত্রাঘাত করে আহত করেন ওই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. হানিফ সরকার।

শনিবার (২০ এপ্রিল) ক্লাশ চলাকালীন ওই অমানবিক ঘটনা ঘটে। সামিরুল ওই বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র। তার ক্লাশ রোল-১৭। সে কলাগাঁও গ্রামের আবুল হাশেম ও হাসিয়া বেগমের ছেলে।

বেত্রাঘাতে ওই কোমলমতি শিক্ষার্থীর পিঠে ফুলা জখম হয়ে যায়। সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী বিদ্যালয়ে বেত ব্যবহার নিষিদ্ধ হলেও ওই শিক্ষক বেত ব্যবহার করে শিশুটিকে বেধরক মারধর করে। পরে শিশুটিকে স্থানীয় চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে শিশুটি তাদের নিজ বাড়িতে রয়েছে।

শনিবার সন্ধ্যায় এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিক্ষক হানিফ সরকার বলেন- ‘সামিরুল হাসান একটি ছুরি নিয়ে ক্লাশে আসে। ছুরিটি আমি তার কাছ থেকে নিতে চাইলে সে দেয় নি। এজন্য মারধর করেছি। তবে, আমি অনুতপ্ত। আঘাত যে এত বেশি হবে আমি বুঝতে পারিনি।’ তিনি আরও বলেন- ‘আমি এখন সামিরুলের বাড়িতেই আছি।’

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহাবুব আলম সরকার বলেন, ‘আমরা বাচ্চাটিকে চিকিৎসা দিয়েছি। আসলে ঘটনাটি অনাকাঙ্ক্ষিত। ওই শিক্ষককে সতর্ক করা হয়েছে।’

এ ব্যাপারে উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার আবদুল ওয়াহাব জানান, ‘বিষয়টি শুনেছি। রোববার শিশুটিকে দেখতে যাবো। পরে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

বিডি২৪লাইভ/এজে

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: