এটিএন বাংলায় ‘ফ্রুটিকা ইসলামিক জিনিয়াস’

২১ এপ্রিল, ২০১৯ ২২:১০:০০

ছবি: সংগৃহীত

প্রতি বছরের মতো এটিএন বাংলার পর্দায় আবারও শুরু হচ্ছে শুদ্ধ ইসলামিক জ্ঞানের প্রতিযোগিতা ফ্রুটিকা ইসলামিক জিনিয়াস।

দেশের প্রান্তিক পর্যায় থেকে ধর্মীয় বিষয়ে সমান পারদর্শী শিশু কিশোরদের খুঁজে আনতে দেশজুড়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে- ফ্রুটিকা ইসলামিক জিনিয়াসের চতুর্থ আয়োজন।

আয়োজকরা জানিয়েছেন, আট অঞ্চলের বাছাইপর্ব নিয়ে বিশেষায়িত পর্বগুলো এটিএন বাংলায় দেখা যাবে রমজানের আগ পর্যন্ত প্রতি সপ্তাহে রবি থেকে বুধবার বিকেল ৫:৩০ মিনিটে। একই সময়ে অনুষ্ঠানটি শুনতে কান পাতুন রেডিও নেক্সট ৯৩.২ এফএম।

রমজান মাসের শুরু থেকে ২৫ তারিখ পর্যন্ত স্টুডিও রাউন্ডের পর্বগুলো এটিএন বাংলায় প্রচারিত হবে বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহে কুমিল্লা থেকে শুরু হয়ে খুলনা, রাজশাহী, বগুড়া, সিলেট, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহের পর রাজধানী ঢাকায় পুরো মার্চ জুড়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে দেশের সবচে বড় ইসলামী প্রতিযোগিতা।

এএফবিএলের সহকারি মহাব্যবস্থাপক মাইদুল ইসলাম বলেন, ফ্রুটিকা ইসলামিক জিনিয়াস সাফল্যের ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছে। শিশুদের অংশগ্রহণ গত তিন আয়োজনের চেয়ে বেশি ছিল।

তিনি বলেন, অভিভাবকদের আগ্রহ আমাদের উৎসাহিত করেছে। শিশুদের মাঝে শুদ্ধ ইসলামী মানবিক মূল্যবোধ বিকাশ ও জাগ্রত করার লক্ষ্যে এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে যাতে করে নবীন শিক্ষার্থীরা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার বাইরে ধর্মীয় বিষয়ে নিজেদের পারদর্শী হিসেবে গড়ে তুলতে পারবে।

আট অঞ্চলের প্রায় দশ হাজারের মত প্রতিযোগিকে পেছনে ফেলে দেশ সেরা ৫৪ জন স্থান পায় চূড়ান্ত পর্বে। দুদিনের গালারাউন্ডে সেরা হয়ে ২৫ জন প্রতিযোগী যোগ দেয় স্টুডিও পারফর্মেন্সে।

টেলিভিশন সম্প্রচার পূর্বে অবতীর্ণ হবার পূর্বে প্রতিযোগীদের প্রশিক্ষিত করেছেন ইসলামী বিষয়ে পারদর্শী মেন্টরগণ। তিনটি বিষয়ে সমানভাবে প্রতিযোগ করতে সময় নিয়ে নিজেদের প্রস্তত করেছেন অংশগ্রহণকারিরা।

ইসলামী বিষয়ক প্রতিযোগিতায় ফ্রুটিকা ইসলামিক জিনিয়াস ‘নতুনমাত্রা’ যোগ করেছে বলে মন্তব্য করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক ওমর ফারুক।

তিনি বলেন, কোমলমতি শিশু কিশোরদের মাঝে বিশুদ্ধ ইসলামী চর্চা পরিচয় করিয়ে দিতে ভূমিকা রাখছে ফ্রুটিকা ইসলামিক জিনিয়াস। প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণে শিক্ষার্থীদের মাঝে যে মনোভাবের সৃষ্টি হয় সেটির চর্চা ধরে রাখার পরামর্শ দিয়েছেন অধ্যাপক ওমর।

আকিজফুড এন্ড বেভারেজ লিমিটেডের (এএফবিএল) উদ্যোগে দেশজুড়ে আটটি আঞ্চলিক বাছাইপর্বে প্রতিভা অন্বেশন করেছে এই ইসলামী প্রতিযোগীতা।

বিদ্যালয় এবং মাদ্রাসার ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সী শিক্ষার্থীরা এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছে, যারা ক্বিরাত, ইসলামী জ্ঞান, হামদ নাতে সমান পারদর্শী। পাশাপাশি আযানেও নিজের দক্ষতা প্রমাণের সুযোগ পেয়েছে শিক্ষার্থীরা। সকল বিষয়ে পারদর্শীদের খুঁজে আনছে বলে অন্যান্য প্রতিভা অন্বেষণের থেকে এই আয়োজনের ভিন্নতা রয়েছে বলে জানান কর্মকর্তারা।

তরুণ শিক্ষার্থীদের মাঝে ধর্মীয় চর্চা করতে উৎসাহিত করছে বলে আয়োজকদের ভাষ্য। আয়োজকরা জানান, প্রতিযোগীতার চূড়ান্ত পর্বে বিজয়ী ৫ লাখ, দ্বিতীয় ও তৃতীয় বিজয়ীকে যথাক্রমে দুই ও এক লাখ টাকা পুরস্কার দেওয়া হবে। চতুর্থ থেকে দশম স্থান অধিকারীরা পাবেন ২৫ হাজার টাকার সম্মানী।

দেশেরজুড়ে সকল বাছাই পর্বে বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামী ইতিহাস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপকওমর ফারুক, ইসলামী সংগীত শিল্পী জাফর সাদেক এবং এটিএন বাংলার এসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট ক্বারী একেএম ফিরোজ। স্টুডিও রাউন্ডে প্রতিযোগিরা নতুন বিচারকদের দেখা পাবেন বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা।

দেশের নবীন শিক্ষার্থীদেও ইসলামী বিষয়ে পারদর্শীতা যাচাইয়ে আকিজ গ্রুপ ২০১৬ সাল থেকে ‘ফ্রুটিকা ইসলামিক জিনিয়াস’ প্রতিযোগীতার আয়োজন করে আসছে।

বিডি২৪লাইভ/এমএম/টিএএফ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: