প্রচ্ছদ / সারাবিশ্ব / বিস্তারিত

সিরিজ হামলায় নিহত ২১৫

এবার শ্রীলঙ্কার বিমানবন্দরে দুই মিটার লম্বা বোমা

২২ এপ্রিল ২০১৯ , ০৮:২০:০০

ছবি: সংগৃহীত

সিরিজ হামলার রেশ কাটতে না কাটতেই শ্রীলঙ্কার কলম্বো বিমানবন্দরের কাছ থেকে একটি শক্তিশালী বোমা উদ্ধার করা হয়েছে। বিমানবন্দরের মূল গেইটের কাছে বোমাটি পাওয়া যায়। এটি প্রায় দুই মিটারের মতো লম্বা বলে জানা যায়।

বিমানবন্দরের দায়িত্বরত গিহান সেনেবিরাতেন বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

ধারণা করা হচ্ছে উদ্ধারকৃত এই বোমা সিরিজ বিস্ফোরণের একটি অংশ।

বর্তমানের বিমানবন্দরে সর্বোচ্চ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এখানে চার স্তরের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে।


এর আগে গতকাল শ্রীলঙ্কায় ভয়াবহ সিরিজ হামলার ঘটনা ঘটে। যাতে অন্তত ২১৫ জন নিহত এবং প্রায় ৫০০ জন আহত হয়েছেন। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান।

দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে নিহতদের মধ্যে রয়েছেন ৩৫ বিদেশি নাগরিক। নিহত বিদেশি নাগরিকদের বেশিরভাগই ভারত ও পাকিস্তানের নাগরিক।

রোববার (২১ এপ্রিল) স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ৬টি গির্জা ও শহরের প্রধান দু’টি হোটেলকে লক্ষ্য করে ইস্টার সানডে’র অনুষ্ঠান চলার মধ্যে এসব বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। তবে কে বা কোন জঙ্গি গোষ্ঠী এই বিস্ফোরণ ঘটায় তা এখনো জানা যায়নি।

মৃত্যুর সংখ্যা ক্রমেই বেড়ে চলছে বলে কলম্বো ন্যাশনাল হাসপাতালের প্রধান চিকিৎসক ডা. আনিল জাসিংগে বলেন, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে লাশের সংখ্যা যেন বেড়েই চলেছে। তবে সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে মনে করেন তিনি।


এক প্রতিবেদনে রয়টার্স বলে, সকালে ইস্টার সানডে উপলক্ষে অনেক মানুষের ঢল নামে কলম্বোর গির্জাগুলোতে। এসময় ৩টি গির্জা একসঙ্গে সিরিজ বোমা হামলা ঘটানো হয়, ওই কলম্বো শহর থেকে কিছু দুরে অবস্থিত আরও কয়েকটি গির্জায় হামলা চালানো হয়। এদিকে শুধু গির্জায় হামলা করেই ক্ষান্ত হয়নি জঙ্গিরা গির্জার পাশে অবস্থিত শহরের প্রধান দু’টি হোটেলেও সিরিজ বোমা হামলা চালানো হয়।

এদিকে ওই ঘটনায় দেশটির বোমা স্কোয়াডের একটি সূত্র জানায়, কলম্বের যে গির্জায় সিরিজ বোমা হামলা চালানো হয়েছে। তার থেকে ঠিক কয়েক কিলোমিটার দুরে অবস্থিত শহর নিগোম্বোতে আরও একটি গির্জায় একই সময়ে একই কায়দায় বোমা বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে।

কলম্বোর সেন্ট অ্যান্থনি চার্চে প্রথম বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। ওই বিস্ফোরণের এক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন বিস্ফোরণে পুরো ভবন কেঁপে ওঠে। দ্বিতীয় আরেকটি বিস্ফোরণ ঘটেছে রাজধানী কলম্বোর উত্তরেনেগোম্বো শহরের আরেকটি চার্চে। নিজেদের ফেসবুক পাতায় সাহায্য চেয়ে আবেদন করেছে ওই চার্চ কর্তৃপক্ষ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ছবিতে কুতুয়াপিটায়ে-এর সেন্ট সিবাস্তিয়ান চার্চের অভ্যন্তরণে ছিন্নভিন্ন ছাদের ছবি দেখা গেছে। মেঝেতে রক্ত পড়ে থাকার ছবিও দেখা গেছে।

সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের দেশ শ্রীলঙ্কার মাত্র ছয় শতাংশ মানুষ ক্যাথলিক খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী। দেশটির দুই নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠী তামিল ও সিংহলিজ উভয়ের মধ্যেই এই ধর্মাবলম্বীদের দেখতে পাওয়া যায়। এক দশক আগে গৃহযুদ্ধ অবসানের পর দেশটিতে বিক্ষিপ্ত সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। গত বছরের মার্চে সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী সিংহলি সম্প্রদায়ের সদস্যরা মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের মসজিদ ও সম্পত্তিতে হামলা শুরু করলে দেশটিতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়।

এদিকে ২১ এপ্রিলের ভয়াবহ সিরিজ বিস্ফোরণের ঘটনায় শ্রীলঙ্কায় অনির্দিষ্টকালের কারফিউ জারি করা হয়েছে। কলম্বোতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী জানিয়েছেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত কারফিউ জারি থাকবে। উত্তেজনা ও গুজব ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে জনপ্রিয় সব সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম। দুই দিনের জন্য সব স্কুল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। সরকারি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপসহ গুরুত্বপূর্ণ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও বার্তা পাঠানোর অ্যাপস দেশটিতে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে যাতে করে ভুল তথ্য ও গুজব ছড়ানো না যায়।

বিডি২৪লাইভ/এইচকে

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: