মো. ইলিয়াস

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

সাত কলেজ

দাবি না মানলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি

২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ১২:৩৫:৩২

ছবি: প্রতিনিধি

গণহারে ফেল এবং সেশনজটের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্ভুক্ত সাত কলেজের সমন্বয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) বেলা পৌনে ১২টার দিকে সাত কলেজের সমন্বয় ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী আবু বকর সাংবাদিকদের একথা জানান।

তিনি বলেন, ভিসি স্যার আমাদের এখানে আসুন এবং আমাদের দাবিগুলো দেখুন শুনুন। যদি দাবিগুলো যুক্তি সঙ্গত হয় তাহলে মেনে নেবেন।

ওই শিক্ষার্থী বলেন, আমাদের দাবি মেনে না নেওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাব। প্রয়োজনে আমরা এর থেকেও কঠোর আন্দোলনে যাব। প্রয়োজনে অনশন গণ-অনশনের ডাক আসতে পারে বলেও জানান তিনি।

দাবির বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভিসিকে কোন স্মারক লিপি দেয়া হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা এর আগে আরও অনেক বার স্মারক লিপি নিয়ে ভিসির সাথে সাক্ষাৎ করতে গিয়ে ছিলাম, কিন্তু অনেক বাধার মুখে পরতে হয়। পরবর্তীতে আর সাক্ষাৎ করা সম্ভব হয় নি।

এর আগে গণহারে ফেলসহ নানা সমস্যা সমাধানের দাবিতে বুধবার (২৪ এপ্রিল) বেলা ১১টায় দ্বিতীয় দিনের মতো সড়ক অবরোধ করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা।

প্রসঙ্গত, আগে সেশনজট নিরসন, ত্রুটিপূর্ণ ফল সংশোধন এবং ফল প্রকাশের দীর্ঘসূত্রিতা দূর করাসহ নানা সমস্যা সমাধানের দাবিতে মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) সকাল ১০টায় ঢাকা কলেজের সামনে থেকে মানববন্ধন শুরু করেন সাত কলেজ অধিভুক্ত শিক্ষার্থীরা। পরবর্তীতে নীলক্ষেত মোড়ে এসে টানা সাড়ে চার ঘণ্টা অবরোধ করে রাখে। আজ বুধবারে ফের অবরোধের ঘোষণা দিয়ে তারা স্থান ত্যাগ করে।

দাবিগুলো হচ্ছে-

১. একসঙ্গে পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে ত্রুটিমুক্ত ফলাফল প্রকাশসহ একই বর্ষের সব বিভাগের ফলাফল একত্রে প্রকাশ

২. গণহারে অকৃতকার্য হওয়ার কারণ প্রকাশসহ খাতা পুনঃমূল্যায়ন

৩. সাত কলেজ পরিচালনার জন্য স্বতন্ত্র প্রশাসনিক ভবন

৪. প্রতিটি বিভাগে মাসে দু’দিন করে অধিভুক্ত সাত কলেজে মোট ১৪ দিন ঢাবি শিক্ষকদের ক্লাস নেয়া

৫. সেশনজট নিরসনে একাডেমিক ক্যালেন্ডার প্রকাশসহ ক্রাশ প্রোগ্রাম চালু।

বিডি২৪লাইভ/এমই/এসএ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: