শরবত নিয়ে যাওয়া সেই মিজানুরের বাসায় গিয়ে হুমকি!

২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ২২:৪৬:০০

ছবি: ইন্টারনেট থেকে

শরবত বানিয়ে ঢাকা ওয়াসা ভবনে নিয়ে যাওয়া সেই মিজানুর রহমানের বাসায় গিয়ে তাকে হুমকি দেয়া হয়েছে। বুধবার (২৪ এপ্রিল) রাজধানীর জুরাইন এলাকাস্থ বাসায় গিয়ে মিজানুরকে হুমকি দেন ওয়াসার লোকজন।

এর আগে মঙ্গলবার ওয়াটার সাপ্লাই অ্যান্ড সুয়ারেজ অথরিটির (ওয়াসা) ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তাকসিম এ খানকে ‘শতভাগ বিশুদ্ধ’ পানি দিয়ে শরবত বানিয়ে খাওয়ানোর উদ্যোগ গ্রহণ করেন জুরাইন নাগরিক অধিকার বাস্তবায়ন পরিষদের সমন্বয়ক মিজানুর রহমান।

বুধবার সন্ধ্যায় মিজানুর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, আজ দুপুরে কয়েকজন লোক আমার বাসায় প্রবেশ করে কোনো অনুমতি ছাড়াই। পরে আমি তাদের সঙ্গে ফোনে কথাবার্তা বললে তারা আমার ওপর চড়াও হয়। এরপর আমি ফোন কেটে দিয়ে তাড়াতাড়ি বাসায় যাই। বাসায় যাওয়ার পর স্ত্রীকে জিজ্ঞাসা করি তারা অনুমতি নিয়ে প্রবেশ করেছে কিনা। তারা অনুমতি নিয়ে প্রবেশ করেছে বললেও আমার স্ত্রী বলে তারা অনুমতি নেননি।

হুমকির বিষয়ে প্রশ্ন করলে মিজানুর বলেন, তারা আমাকে মামলা-হামলার হুমকি দিয়েছে। আমার সঙ্গে খারাপ আচারণ করেছে। তারা দেখে নেয়ারও হুমকি দিয়েছে।

হুমকিদাতারা কারা? এমন প্রশ্নের জবাবে মিজানুর বলেন, ওরা পাঁচ/ছয়জন আসে আমার বাসায়, তারা সবাই ওয়াসার লোকজন, আমি তাদের সবাইকে চিনি। তারাই এসে আমাকে হুমকি দিয়েছে।

জিডির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটাতো আমার একার সমস্যা না। তাই গোটা এলাকা মিলে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

এর আগে ঢাকা ওয়াসার পানি ‘শতভাগ বিশুদ্ধ’ দাবি করেছিলেন প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম এ খান। সেই বক্তব্যের প্রতিবাদে জুরাইন এলাকার পানি দিয়ে শরবত পান করাতে গতকাল মঙ্গলবার ওয়াসা ভবনের সামনে হাজির হয়েছিলেন মিজানুর রহমান। সে সময় অফিসে ছিলেন না ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম এ খান।

পরে জুরাইনবাসীর সঙ্গে সঙ্গে কথা বলেন ওয়াসার প্রকৌশলী ও কে এম সহিদ উদ্দিন। এ সময় সহিদ উদ্দিন বলেন, পাইপ লাইনের ত্রুটির কারণে ওয়াসার পানি দূষিত হয়ে থাকতে পারে, তবে ওয়াসার পানি সুপেয়।

সে সময় মিজানুর বলেন, এ পর্যন্ত ঢাকা ওয়াসার পানি খেয়ে যারা অসুস্থ হয়েছে বা মারা গেছে, তদন্ত করে ওয়াসাকে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। এ পর্যন্ত ওয়াসা দূষিত পানি দিয়ে যে বিল নিয়েছে, তা গ্রাহকদের ফেরত দিতে হবে। এই ব্যবস্থা না নেয়া পর্যন্ত ওয়াসাকে আর এক পয়সাও বিল দেব না।

মিজানুর বলেন, জুরাইন এলাকায় ওয়াসার পাইপ ৪০ বছর আগের। এই পানি আমরা খাই না। খাওয়ার উপযোগী না। বাধ্য ও নিরুপায় হয়ে অন্য কাজে ব্যবহার করি।

প্রসঙ্গত ১৭ এপ্রিল ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) পক্ষ থেকে ‘ঢাকা ওয়াসা : সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক এক গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। প্রতিবেদনে ওয়াসায় অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয়টি উল্লেখ করে টিআইবি।

এতে বলা হয়, ঢাকা ওয়াসার পানির নিম্নমানের কারণে ৯৩ শতাংশ গ্রাহক বিভিন্ন পদ্ধতিতে পানি পানের উপযোগী করেন। এর মধ্যে ৯১ শতাংশ গ্রাহকই পানি ফুটিয়ে বা সিদ্ধ করে পান করেন। গৃহস্থালি পর্যায়ে পানি ফুটিয়ে পানের উপযোগী করতে প্রতিবছর আনুমানিক ৩৩২ কোটি টাকার গ্যাসের অপচয় হচ্ছে।

এ প্রতিবেদনের প্রতিবাদে শনিবার এক সংবাদ সম্মেলন করে ওয়াসার এমডি তাকসিম এ খান বলেন, ‘ওয়াসার পানি শতভাগ সুপেয় ও বিশুদ্ধ। একে ফুটিয়ে খাওয়ার প্রয়োজন হয় না।’ এ ছাড়া টিআইবির এই প্রতিবেদনকে তিনি নিম্নমানের বলে উল্লেখ করেন।

তাকসিম এ খানের এই বক্তব্যের প্রতিবাদ জানান পুরান ঢাকার বাসিন্দারা। তারা নিরাপদ পানির দাবি করে আসছেন। এরই অংশ হিসেবে তারা মঙ্গলবার বেলা সোয়া ১১টায় কারওয়ান বাজারে অবস্থিত ওয়াসা ভবনের সামনে অবস্থান নেন।

কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দেয়া মিজানুর রহমানের ভাষ্য, আমাদের এলাকায় ওয়াসার পানি ড্রেনের পানির মতো অপরিষ্কার। ময়লা ও দুর্গন্ধযুক্ত এ পানি কাপড় কাচায়ও ব্যবহার করা যায় না। এটি তো খাওয়া দূরের কথা, গন্ধে হাতে নেয়াই দায়। এ অবস্থায় ওয়াসার এমডি কীভাবে বলেন- ওয়াসার পানি শতভাগ সুপেয় ও বিশুদ্ধ!

বিডি২৪লাইভ/এইচকে

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: