বিবাহিত যুবতীকে নিয়ে পালাল যুবক! এরপর...

১৬ মে ২০১৯ , ০১:৫০:০০

ছবি: প্রতীকী

প্রেম মানে না কোনো বাঁধা। এই প্রেমের কারণে মানুষ কত কিছুই না করে। তবে সম্প্রতি একটি প্রেম ঘটিত ঘটনা ঘটেছে যার পরিণতি খুবই করুন। চলুন তাহলে মূল ঘটনা জেনে নেওয়া যাক-

একজন যুবক বিবাহিত এক নারীকে নিয়ে পালিয়ে যায়। আর সেই কাজে সহযোগিতা করে ওই যুবকের দুই মেয়ে কাজিন। এমন অভিযোগে ওই যুবক ও তার দুই মেয়ে কাজিনকে গাছের সঙ্গে বেঁধে প্রচণ্ড মারধর করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, এ সময় তাদেরকে যৌন নির্যাতনও করা হয়েছে।

ভুক্তভোগীদের বেশ কয়েক ঘণ্টা বেধড়ক পিটানো হয়েছে। আর এই দৃশ্য দেখেছে শত শত মানুষ। কিন্তু তাদের সাহায্য করতে কেউ এগিয়ে আসে নি। যে যুবতী নারী তার স্বামীকে রেখে ওই প্রেমিক যুবকের সঙ্গে পালিয়েছেন তিনিও ওই মারধরকারীদের মধ্যে ছিলেন। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়া।

ভারতের মধ্য প্রদেশের ধর জেলার অর্জুন কলোনিতে এ ঘটনাটি ঘটেছে। সেখানে অভিযুক্ত ওই যুবক ও তার মেয়ে কাজিনদের মারধরের দৃশ্য ভিডিও ধারণ করেছেন বিপুল সংখ্যক মানুষ।

পরে ওই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশ করা হয়। সাথে সাথে তা ভাইরাল হয়ে পড়েছে। বেশ কিছু ভিডিওতে দেখা যায়, যখন ওই যুবক ও যুবতীদের চাবুক দিয়ে নির্দয়ের মতো পিটানো হচ্ছিল তখন উপস্থিত লোকজন ও ছেলে-মেয়েরা হাসাহাসি করছে। দুই যুবতীর মধ্যে একজন অনেক চেষ্টা করে তার ব্লাউজ ঢাকার চেষ্টা করেন। কিন্তু বয়স্ক এক ব্যক্তি তার বাহু ধরে মোচড় মারেন। সঙ্গে সঙ্গে অন্য একজন পুরুষ ও নারী তাকে চাবুক দিয়ে আঘাত করতে থাকে। এমন নির্মম দৃশ্য দেখে অনেকেই অবাক হচ্ছেন।

এ ঘটনায় ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এদের মধ্যে ৪ জন এখন পলাতক।

এ বিষয়ে পুলিশের সিএসপি সঞ্জয় মুওয়েল বলেছেন, আমরা এ ঘটনায় ৫ জনকে গ্রেফতার করেছি। এর মধ্যে রয়েছে তিনজন নারী। তাদেরকে জেলে পাঠানো হয়েছে। আশা করছি বাকি ৪ জনকে শিগগিরই ধরতে পারবো। এই নির্যাতনের মূল অভিযুক্ত মুকেশ। তার স্ত্রী কয়েকদিন আগে প্রেমিকের সঙ্গে পালিয়েছিলেন। এ জন্য তিনি ডাহি পুলিশ স্টেশনে একটি নিখোঁজ ডায়েরি করেন।

তিনি আরও বলেন, গত মঙ্গলবার স্ত্রীকে খুঁজে পান তিনি। স্ত্রীর প্রেমিকের সঙ্গে যোগাযোগ হয় তার। তিনি তাকে অর্জুন কলোনিতে যেতে বলেন সমঝোতার জন্য। ঘটনার দিন ওই যুবক তার কাজিনদের সঙ্গে নিয়ে পূর্ব নির্ধারিত স্থানে উপস্থিত হলেই শুরু হয় তাদের ওপর নির্যাতন।

বিডি২৪লাইভ/টিএএফ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: