প্রচ্ছদ / সারাবিশ্ব / বিস্তারিত

পশ্চিমবঙ্গের ক্ষমতায় আসছেন যিনি

প্রকাশিত: ০৩:৩৬ অপরাহ্ণ, ১৯ মে ২০১৯

একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ভারতের ক্ষমতায় আবারো আসছে দেশটির বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নেতৃত্বাধীন সরকার। আন্তর্জাতিক জরিপকারী সংস্থা আইপিএসওএস ও দেশটির প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম সিএনএন নিউজ১৮ এর বুথ ফেরত জরিপে মোদির পরিষ্কার জয়ের চিত্র উঠে এসেছে।

তবে পশ্চিমবঙ্গে আবারো মমতা বন্দোপাধ্যায় নেতৃত্বাধীন তৃণমূল কংগ্রেস জয়ী হতে যাচ্ছে বলে চারটি সংস্থা ও সংবাদমাধ্যমে বুথ ফেরত জরিপের ফলাফলে বলা হয়েছে।

দেশটির প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম টাইমস নাউ-এর বুথ ফেরত জরিপ বলছে, পশ্চিমবঙ্গে অন্তত ২৮টি আসনে জয় পেতে যাচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেস। বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ ১১ এবং কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ জোট দুটি আসনে জয় পেতে পারে।

ইন্ডিয়া টিভি ও পোলস্ট্র্যাটের বুথ ফেরত জরিপ বলছে, মমতা বন্দোপাধ্যায় নেতৃত্বাধীন তৃণমূল কংগ্রেসই আবারো পশ্চিমবঙ্গের ক্ষমতায় বসছে। ৪২ আসনের পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেস ২৬, কংগ্রেস ২, বিজেপি ১৪ আসনে জয় পাবে বলে আভাস দেয়া হয়েছে। তবে পশ্চিমবঙ্গের ব্যাপক আলোচিত বামপন্থীরা শূন্য।

টাইমস নাউ ভিএমআরের জরিপে তৃণমূল কংগ্রেস ২৮, কংগ্রেস ২, বিজেপি ১১ এবং বামপন্থী দলগুলো ১টি আসনে জয় পতে পারে বলে জানানো হয়েছে।

অন্যদিকে, রিপাবলিক জন কি বাতের বুথ ফেরত জরিপ বলছে, তৃণমূল কংগ্রেস ১৩ থেকে ২১, কংগ্রেস ৩, বিজেপি ১৮ থেকে ২৬ আসনে জয় পাবে। রিপাবলিকের জরিপে পশ্চিমবঙ্গে বামপন্থীরা কোনো আসনেই জয় পাবে না বলে আভাস দিয়েছে।

রিপাবলিক-সি ভোটারের জরিপ বলছে, তৃণমূল কংগ্রেস ২৯, কংগ্রেস ২, বিজেপি ১১ এবং বামরা শূন্য আসনে জয় পাবে।

জরিপ সংস্থা রিপাবলিক সি-ভোটার তাদের বুথ ফেরত সমীক্ষার ফলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নেতৃত্বাধীন রাজনৈতিক দল বিজেপি আবারও ক্ষমতায় আসছে বলে ইঙ্গিত দিয়েছে। তাদের জরিপের ফলাফলে বলা হয়েছে, ৫৪৩ আসনের লোকসভায় ৩ শতাধিক আসনে জয়ী হতে পারে বিজেপি। পাশাপাশি রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বাধীন দেশটির প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস এবং মিত্ররা ১২৮ আসনে জয় পেতে পারে।

ভারতের এবারের ১৭তম লোকসভা নির্বাচনে প্রায় ৯০ কোটি ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। সাত দফার এ নির্বাচনে প্রায় ১০ লাখ ভোটকেন্দ্র তৈরি করা হয়।

বিশ্বের সর্ববৃহৎ এই ম্যারাথন ভোটযজ্ঞ শুরু হয়েছিল গত ১১ এপ্রিল। প্রথম দফার ভোটে ভোটদানের হার ছিল ৬৯.৪৩ শতাংশ। ১৮ এপ্রিল দ্বিতীয় এবং ২৩ এপ্রিল তৃতীয় দফায় ৬৬ শতাংশ ভোট পড়ে। ২৯ এপ্রিল চতুর্থ দফায় ভোটদানের হার ছিল ৬৪ শতাংশ। ৫৭.৩৩ শতাংশ ভোট পড়ে পঞ্চম দফায়। ৬৩.৩ শতাংশ ভোট পড়েছে ষষ্ঠ দফার ভোটে।

বিডি২৪লাইভ/আরআই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: