প্রচ্ছদ / স্পোর্টস / বিস্তারিত

বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের পরিসংখ্যান

প্রকাশিত: ১২:৫২ অপরাহ্ণ, ২০ মে ২০১৯

আসন্ন বিশ্বকাপে স্বাগতিক দেশের নাম ইংল্যান্ড। আবার বিশ্বআসরে সবচেয়ে হতভাগা দলের তালিকায়ও আছে তাদের নাম। এবারের আসরে শীর্ষ ফেভারিটও সেই ইংল্যান্ড। দলে রয়েছে অসংখ্য অলরাউন্ডার। আর সুপার ফর্মে থাকা ক্রিকেটাররা ঘরের মাঠেই শিরোপা না জিততে পারার আক্ষেপ ঘোচাতে মরিয়া। 

বিশ্বকাপের বাকি আর মাত্র ১০ দিন তাই আজ থেকে বিডি২৪লাইভের পাঠকদের জন্য শুরু হলো বিশকাপে দশ দলের পরিচিতি। আজ জনাবো ইংল্যান্ড দলের শক্তি, পরিসংখ্যান, ইতিহাসের কথা।

বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ফুটবল লিগ হয় ইংল্যান্ডে। সবচেয়ে পুরনো ক্রিকেট কাঠামোও ইংল্যান্ডে। এমনকি খেলাটির আইনও তৈরি হয় দেশটির মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের (এমসিসি) মাধ্যমে। কিন্তু ক্রিকেট আর ফুটবল এই দুই খেলাতেই দেসশটির কান্না বিশ্বকাপের বড় মঞ্চে। 

ফুটবলে ১৯৬৬ সালে একবার বিশ্বসেরা হয়েছিল ইংলিশরা। কিন্তু ক্রিকেটে থ্রি লায়ন্সদের সেই অপেক্ষা আজও ফুরায়নি। তিন তিনবার ফাইনালের মঞ্চে উঠলেও বিশ্বকাপ ট্রফি ছোয়া হয়নি তাদের। ১৯৭৯, ১৯৮৭, ১৯৯২ এই তিন বিশ্বকাপে রানার্সআপ হয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে ইংল্যান্ডকে। এবার ঘরের মাঠে ২০১৯ বিশ্বকপে শেষ হবে কি ইংলিশদের সেই আক্ষেপ। সেটাই এখন দেখার পালা। 

রাঙ্কিংয়ে বিশ্বের এক নম্বর দল ইংল্যান্ড। পারফরম্যান্স আর বাজিকরদের বাজিতে ইংল্যান্ড ফেভারিটদের ফেভারিট। সেটাই এখন চিন্তার কারণ হয়ে দারিয়েছে মরগ্যানের দলের। কেননা প্রত্যাশার সঙ্গে স্বাগতিক হওয়ার চাপ সঙ্গী হয়ে দারিয়েছে তাদের।

ইংল্যান্ডের আছে অসাধারণ ব্যাটিং লাইন। জেসন রয়, জস বালটার, জনি বেয়ারস্টো, এউইন মরগ্যান গত ক’বছরে ভয়ঙ্কর হয়ে দেখা দিয়েছে তাছাড়া জো রুটকে বাদ দেওয়া যায় কিভাবে ওয়ানডেতে যার গড় পঞ্চাশেরও উপর।

গতি আর সুইংয়ের সঙ্গে স্বাগতিকদের বোলিং শক্তি নির্ভর করছে দুই স্পিনার আদিল রশিদ ও মইন আলীর উপর। এছাড়া বিশ্বের সেরা লেগ স্পিনার মধ্যে একজন হলেন আদিল। তবে তাদের অলরাউন্ডারের আধিপত্য দলের সবচেয়ে বড় শক্তি। আট জন অলরাউন্ডার উপস্থিতিতে ব্যাটিং আর বোলিং শক্তিকে করেছ ভয়ঙ্কর। আর আলোচিত জোফরা আর্চারকে স্কোয়াডে নিলে ভয়ঙ্কর থেকে আরো বেশী ভয়ঙ্কর হয়ে উঠবে ইংলিশরা।  

১৯৭১ সালে আন্তর্জাতিক প্রথম ওয়ানডে ছিলো ইংল্যান্ডের অংশগ্রহণ। এরপর গত ৪৮ বছরে খেলা ৭৩২ ওয়ানডে ৩৬৬ ম্যাচ জিতেছে ইংল্যান্ড। আর হেরেছে ৩৩১টি ওয়ানডে। তবে গত ২০১৮ সাল থেকে অবিশ্বাস্য ইংল্যান্ডের ফর্ম ৩৪ ওয়ানডেতে রয়েছে ২৩টিতে জয়।

বিশ্বকাপের ১১ আসরে খেলেছে ৭৩টি ম্যাচে যার মধ্যে জয় আছে ৪১ ম্যাচে আর পরাজয় আছে ৩০ টি ম্যাচে। পরিত্যক্ত ও টাই হয়েছে ১টি করে ম্যাচ।

৩০ মে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে উদ্বোধনী ম্যাচে এবারে বিশ্বকাপ আসর শুরু করবে ইংল্যান্ড।

বিডি২৪লাইভ/আরআই

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: