প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

মাদরাসা ছাত্রী ধর্ষণের ১১ দিন পর আসামি গ্রেফতার

প্রকাশিত: ০৯:৫৪ অপরাহ্ণ, ২১ মে ২০১৯

ছবি: প্রতিনিধির পাঠানো।

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে চাঞ্চল্যকর মাদরাসা ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় একমাত্র এজাহারভুক্ত আসামি আল আমিন (২১) কে ১১ দিন পর গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ। 

মঙ্গলবার (২১ মে) দুপুরে কোলা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। ধর্ষক আল-আমিন কোলা বৃত্তিপাড়া গ্রামের রউফ আলীর ছেলে।

পুলিশ জানায়, গত ১০ মে দিনগত রাত আনুমানিক ৯ টার দিকে বাড়ির পাশে মোবাইল ফোনের চার্জার আনতে যায় ওই মাদ্রাসা ছাত্রী। সে সময় চার্জার নিয়ে বাড়ি ফিরার পথে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ওৎ পেতে থাকা আল-আমিন ও তার সহযোগি ওই ছাত্রীকে জোর করে তুলে নিয়ে রাত ভর ধর্ষণ করে। ধর্ষণের পর তাকে হাত পা ও মুখ বেঁধে মাঠের মধ্যে ফেলে রেখে পালিয়ে যায় তারা। রাতে পরিবারের লোকজন তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করে পায় না। পরদিন (১১ মে) শনিবার সকালে গ্রামের কৃষক মাঠে কাজ করতে গিয়ে ওই ছাত্রীটির হাত-পা ও মুখ বাঁধা অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে। পরে পরিবারের লোকজন ও এলাকাবাসী তাকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ধর্ষিতার পিতা বাদি হয়ে কালীগঞ্জ থানায় আল-আমিনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে কালীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার পর ধর্ষক আল-আমি পালিয়ে যায়।

কালীগঞ্জ থানার ওসি ইউনুচ আলী বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে দীর্ঘ ১১ দিন পর মাদ্রাসা ছাত্রী ধর্ষণ মামলার একমাত্র এজাহারভুক্ত আসামি আল-আমিনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। ঘটনার পর থেকে সে পালিয়ে ছিল। এছাড়া ধর্ষণে সহযোগিতার অভিযোগে গত ১৯ মে খালকোলা গ্রামের তহরুজ্জামান ক্যাপ্টেনের ছেলে আল-আমিন কেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বিডি২৪লাইভ/এএস

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: