প্রচ্ছদ / স্পোর্টস / বিস্তারিত

মাশরাফির আস্থা হতে তৈরি রুবেল

২২ মে ২০১৯ , ০২:৪৭:০০

ছবি: বিডি২৪লাইভ

২০১৫ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে রুবেল হোসেনের করা দুটি বলই তার ক্রিকেট জীবনে টার্নিং পয়েন্ট। বাংলাদেশের বিশ্বকাপ স্মৃতির সবচেয়ে সেরা মুহূর্ত ধরা যেতে পারে। 

নায়িকা হ্যাপী কাণ্ডে সারাদেশে ভিলেন বনে যাওয়া মানুষটা এক ঝটকায় নায়ক। অথচ বিশ্বকাপ শুরুর দুই মাস আগে কি দুঃসহ পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে গিয়েছিলেন রুবেল। বান্ধবীর করা ধর্ষণ ও নির্যাতন মামলায় আদালতের চৌকাট পেরিয়ে কারাভোগও করতে হয়েছে তাকে।

চার বছর পেরিয়ে সেই যন্ত্রণা এখন অতীত। বিয়ে করে থিতু হয়েছেন। এখন ক্রিকেটের শর্টার ফরমেট রুবেল হোসেনের ধ্যান-জ্ঞান। ৫ ফুট ১০ ইঞ্চি উচ্চতার এই পেসারের জন্ম ১৯৯০ সালে বাগেরহাটে। সে ছোটবেলা থেকেই ক্রিকেট পাগল। পুরো খুলনাঞ্চলে টেপ টেনিসে ভালোই নাম ডাক ছিল তার।

দুই বারের চেষ্টায় টিকে গেলেন গ্রামীণফোন পেসার হান্টে। এরপর অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ। ২০০৯ সালের জানুয়ারিতে ‘এ’ দলের হয়ে লাল সবুজের জার্সিতেও অভিষেক হয় রুবেলের।

মিরপুর শেরে-ই-বাংলায় অভিষেক ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪ উইকেট তুলেন নেন। লাসিথ মালিঙ্গার মতো বোলিং অ্যাকশনের কারণে উপাধি পান বাংলার মালিঙ্গা নামে। ২০১০ সালে নিউজিল্যান্ডকে বাংলাওয়াশের নেপথ্যের নায়কও ছিলেন রুবেল।

পরের সফরে কিউদের আরও ভোগালেন তিনি। তৃতীয় টাইগার বোলার হিসেবে ওয়ানডেতে হ্যাটট্রিক। ওই ম্যাচে ক্যারিয়ার সেরা বোলিং। সুইং, ইয়র্কে দারুণ দক্ষ রুবেল হোসেন, পুরনো বলে মাশরাফির আস্থা হতে তৈরি। পুরোনো বলে কার্যকর হলেও নতুন বলে বিবর্ণ। ৯৭ ওয়ানডেতে ১২৩ উইকেটের রেকর্ড হয়তো উজ্জ্বল নয়। তবে বাংলাদেশে যেভাবে পেসারদের মূল্যায়ন করা হয় সেই বিচারে রুবেল ফেলনাও নয়।

২০১১ ও ২০১৫ এই দুই বিশ্বকাপ খেলেছেন রুবেল। সেখানে ১২ ম্যাচে নিয়েছেন ১৩ উইকেট। পাইপলাইন থেকে কখনো ট্রাকচ্যুত না হওয়া ক্রিকেটারদের মধ্যে একজন হলেন রুবেল। ফিট থাকলে শর্টার ফরমেটে স্কোয়াডের অটোমেটিক চয়েস তিনি। কিন্তু এমন বোলারও একাদশে থাকার নিশ্চয়তা হারিয়েছেন। ২০১৬ সালে ৮ মাস আর পরবর্তী তিন সিরিজ দলের বাহিরে ছিলেন তিনি।

বাংলাদেশের খেলা সর্বশেষ ১৩ ম্যাচের ৯টিতেই একাদশে ছিলেন না তিনি। মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন ও মিরাজের উপস্থিতি কন্ডিশন আর টিম কম্বিনেশনের যোগ সূত্রে মিললেই এবার বিশ্বকাপে খেলবেন। তবুও আক্ষেপ নেই দলের অন্তঃপ্রাণ রুবেলের। আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে দশ বছর পেরিয়ে মাশরাফি-সাকিবদের মত সিনিয়রদের তকমা রুবেল হোসেনের পাশে। নিজের সাফল্যের ব্যাপারে যতটা প্রত্যয়ী রুবেল ততটাই বিশ্বাস বাংলাদেশের বিশ্বকাপ জয়ের পক্ষেও।

বিডি২৪লাইভ/আইএইচ/টিএএফ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: