প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

প্রতিদিন ৪ লাখ টাকা চাঁদা আদায়!

প্রকাশিত: ০৭:১০ অপরাহ্ণ, ২২ মে ২০১৯

ফাইল ফটো

বঙ্গবন্ধুসেতু-ঢাকা মহাসড়কে টাঙ্গাইল অংশে চলাচলকারী বালুবাহী ট্রাক থেকে প্রতিদিন ৪ লাখ টাকা চাঁদা আদায় করছেন ট্রাক মালিক ও শ্রমিক নেতারা। দিন-রাত মিলিয়ে ২৪ ঘণ্টা প্রতিটি ট্রাক থেকে ২০০ টাকা করে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। আর এই চাঁদার টাকা বিভিন্ন প্রভাবশালীদের পকেটে যাচ্ছে বলে অভিযোগ ওঠেছে।

রসুলপুর মহাসড়কের পাশে মালিক ও শ্রমিক নেতাদের তৈরি করা অস্থায়ী কার্যালয়ের সামনে গিয়ে দেখা যায়, কয়েকজন ট্রাক মালিক ও শ্রমিক নেতা বসে রয়েছেন। এর মধ্যে বালু ভর্তি একটি ট্রাক দাঁড় করান অন্য এক শ্রমিক। এর পর ট্রাকের চালক দুইশত টাকা দিয়ে চলে যান।

ওই শ্রমিক জানান, প্রতিটি বালু ভর্তি ট্রাক থেকে দুইশত টাকা চাঁদা আদায় করা হয়। প্রতিদিন গড়ে প্রায় দুই হাজার বালুভর্তি ট্রাক এই মহাসড়ক দিয়ে চলাচল করে। প্রত্যেকটির কাছ থেকেই টাকা নেয়া হয়।

পরিচয় প্রকাশ না করে এক শ্রমিক নেতা জানান, আগে ঘারিন্দা বাইপাস এলাকায় ট্রাক থামিয়ে চাঁদার টাকা আদায় করা হত। প্রশাসনের সাথে একটু সমস্যা হওয়ায় এখন এই স্থান (রসুলপুর) থেকে টাকা আদায় করা হয়। আর এই টাকা স্থানীয় এমপি থেকে শুরু করে প্রশাসনের বিভিন্ন স্তুরের কর্মকর্তাদের ভাগ দেয়া হয়।

মির্জাপুরগামী বালু ভর্তি ট্রাক চালক মো. মান্নান মিয়া জানান, তিনি কালিহাতী উপজেলার পুংলী থেকে বালু নিয়ে যাওয়ার সময় তার ট্রাক থামিয়ে দুইশ টাকা চাঁদা দাবি করা হয়। এসময় শ্রমিক নেতারা তাকে জানান, এই মহাসড়ক দিয়ে বালু নিতে হলে দুইশ টাকা দিতে হবে। পরে তিনি বাধ্য হয়ে তাদের দুইশ টাকা দিয়ে চলে যান।

ভূঞাপুরের বালু ব্যবসায়ীরা জানান, তাদের বালু মহল থেকে প্রতিদিন গড়ে প্রায় দেড় হাজার ট্রাক বালু নিয়ে মির্জাপুর, গোড়াই, পাকুল্যাসহ গাজীপুর ও এর আশেপাশের এলাকায় যায়।

নাটিয়াপাড়াগামী ট্রাকের চালক সাইদুর রহমান জানান, পুংলী বা ভূঞাপুর থেকে বালু নিয়ে এ সড়কে আসলেই রসুলপুরে তাদের দুইশ টাকা করে দিতে হয়। তা না হলে বালু নেয়া বন্ধ করে দেয়া হয়। তিনি প্রতিদিন গড়ে তিন থেকে চার বার এ সড়ক দিয়ে বালু নিয়ে চলাচল করেন বলে জানান।

একটি সূত্র জানায়, প্রতিদিনের চাঁদার টাকা জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনসহ স্থানীয় বেশ কয়েকজন সরকার দলীয় নেতাকে ভাগ দিয়ে বাকি অংশ মালিক ও শ্রমিক নেতারা ভোগ করেন।

টাঙ্গাইল ট্রাক শ্রমিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক বালা মিয়া এ বিষয়ে গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

টাঙ্গাইল ট্রাক মালিক সমিতির সভাপতি পৌর মেয়র জামিলুর রহমান মিরন জানান, বালু ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট ভাঙ্গতে এবং সাংগঠনিক খরচের জন্য প্রতি ট্রাক থেকে দুইশত টাকা নেয়া হচ্ছে।

বিডি২৪লাইভ/এজে

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: