প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

জমে উঠেছে ঈদ বাজার

পোশাকের দোকান গুলোতে উপচে পড়া ভিড়

প্রকাশিত: ০৪:৫১ অপরাহ্ণ, ২৩ মে ২০১৯

ছবি: প্রতিনিধি

১৭ তম রমজান অতিবাহিত হচ্ছে রমজান শেষেই পবিত্র ঈদুল ফিতর।  ঈদ এখন মুসলমানদের  দরজায় কড়া নাড়ছে। আগামী ৫ জুন হতে পারে পবিত্র ঈদুল ফিতর আর এই ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে সাধ্যমত ক্রেতারা বিপনী বিতান গুলো থেকে ছেলে মেয়ে, ভাই, বোন, স্ত্রী পরিজনদের পোশাক ক্রয় করতে ভীর জমিয়েছে।

রাজবাড়ীর পাংশা বাজারের বিভিন্ন দোকানে গিয়ে দেখা যায় বিভিন্ন বসয়ের ক্রেতারা তাদের পছন্দের পোশাক ক্রয় করছে। আবার আপন জনদের উপহার দিতেও পোশাকই তাদের প্রথম প্রছন্দ। বিভিন্ন পোশাকের দোকান গুলোতে উপচে পড়া ভীর লক্ষ্য করা যায়।

পাংশা বাজারের সুনামধন্য দত্ত মার্কেটে অবস্থিত বিক্রমপুর গার্মেন্সে গিয়ে দেখাযায় উপচেপাড়া ভীর এ সময় ওই গার্মেন্স’র মালিক আব্দুল করিম (শিবলু)’র সাথে কথা হলে তিনি বলেন, শিশুদের পোশাবের চাহিদা অনেক বেশী সেই সাথে মেয়েদের গাউন, ডাবল থ্রি পিসসহ সকল প্রকার পোশাকেরই চাহিদা রয়েছে ক্রেতাদের মধ্যে আর ক্রেতাদের চাহিদাকে প্রাধ্যন্য দিয়েই আমরা পরসা সাজিয়েছি।

ঈদের বাজার কেমন দেখছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, মোটামুটি আমাদের পাংশাতে ১০/১২ রমজান থেকেই ঈদের বাজার শুরু হয়। বেচা বিক্রি বেশ ভালই হচ্ছে আল্লাহর রহমতে সেই সাথে পোশাকের দাম সহনীয় প্রর্যায় থাকায় ক্রেতারাও বেশ সাজছন্দে পোশাক ক্রয় করছেন।

উপজেলার পাট্টা থেকে পাংশা বাজারে পোশাক ক্রয় করেত আসা সাদিয়া জাহান বলেন, দেখছি এখনও কিনতে পারিনি কুষ্টিয়া রাজবাড়ী থেকে মনে হচ্ছে পাংশায় পোশাকের দাম একটু বেশী তাই এখনও কেনা হয়নি দেখে শুনে কিনব। এখন পর্যন্ত পাংশা বাজারে ঈদকে সামনে রেখে কোন অপ্রিতিকর ঘটনার সংবাদ পাওয়া যায়নি আইন শৃংখলা পরিস্থিত ভাল রয়েছে, সেই সাথে পাংশা বাজারের বিভিন্ন পয়েন্টে সিসি ক্যামেরা দ্বার মনিটরিং করায় ক্রেতা-বিক্রেতারা বেশ সুন্দুর পরিবেশেই ঈদের কেনা কাটা করছেন বলে সংশ্লিষ্ঠরা জানিয়েছেন।

তবে ঈদের দিন যত বেশী কাছে আসবে ক্রয় বিক্রয় ততো বেশী বাড়বে বলে প্রত্যাশা করছেন ব্যবসায়ীরা। ব্যবসায়ীরা বলছেন চাঁদ রাত পর্যন্ত চলবে এই ঈদের বাজার। 

বিডি২৪লাইভ/এজে

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: