ঢাকা, সোমবার, ২২ এপ্রিল, ২০১৯

সম্পাদনা: আমিনুল ইসলাম রোমান

ডেস্ক এডিটর

ফের ২৫০ রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাচ্ছে সৌদি

২১ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৬:১৫:১৬

সৌদি আরবে প্রায় তিন লাখ রোহিঙ্গা বসবাস করে। রোহিঙ্গা নাগরিক হয়েও বাংলাদেশের পাসপোর্ট নিয়ে তারা সৌদি আরবে বসবাস করছে। ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে অনেক রোহিঙ্গাই সৌদি আরবে বসবাস করছে।

এসব রোহিঙ্গার মধ্যে অনেকে সৌদি আরবের শুমাইসি আটক কেন্দ্রে আটক রয়েছে। তাদের মধ্য থেকে গত ৭ জানুয়ারি ১‌৩ রোহিঙ্গাকে ঢাকায় ফেরত পাঠিয়েছিল রিয়াদ। এবার সেখান থেকে একই অভিযোগে আরো আড়াইশ রোহিঙ্গাকে ফেরত পাঠানো হচ্ছে।

নতুন বছরের প্রথম মাসেই দ্বিতীয়বারের মতো আরো আড়াইশ রোহিঙ্গা নাগরিককে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর পরিকল্পনা করছে সৌদি আরব। তাদেরকে ফেরত পাঠানো হলে তা হবে এ বছরে দ্বিতীয়বার জোরপূর্বক ফেরত পাঠানোর ঘটনা।

ফ্রি রোহিঙ্গা কোয়ালিশন নামের অধিকার বিষয়ক গ্রুপকে উদ্ধৃত করে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সংবাদ সংস্থা আলজাজিরা আজ সোমবার এক প্রতিবেদনে এই তথ্য উল্লেখ করেছে।

ফ্রি রোহিঙ্গা কোয়ালিশনের প্রচারণা বিষয়ক সমন্বয়কারী নাই সান লুইন বলেছেন, ভয়ানক ব্যাপার হচ্ছে, এসব রোহিঙ্গা ঢাকায় ফেরার পর কারাবাসের মুখোমুখি হতে পারে। আমরা সৌদি কর্তৃপক্ষকে তাদের ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া বন্ধ রাখার জোর দাবি জানাচ্ছি।

আল জাজিরাকে তিনি আরো বলেন, এসব রোহিঙ্গার বেশির ভাগেরই সৌদি আরবে বসবাসের অনুমোদন আছে (রেসিডেন্সি পারমিট)। তারা বৈধভাবে সৌদি আরবে বসবাস করতে পারেন।

কিন্তু জেদ্দার শুমাইসি বন্দি শিবিরে যেসব রোহিঙ্গাকে আটকে রাখা হয়েছে তাদের সঙ্গে অন্য রোহিঙ্গাদের মতো আচরণ করা হচ্ছে না। উল্টো তাদের সঙ্গে এমন আচরণ করা হচ্ছে যেন, তারা ক্রিমিনাল।

নাই সান লুইনের দেয়া একটি ভিডিওতে দেখা যায় রোহিঙ্গাদের। এদের অনেকেই বেশ কয়েক বছর আগে সৌদি আরবে গিয়েছেন। তাদেরকে রোববার জেদ্দা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত করা হয়েছিল। তাদেরকে সরাসরি ঢাকাগামী ফ্লাইটে রোববার দিনের শেষে বা সোমবার রাতে তুলে দেয়ার কথা।

নাই সান লুইন আরো বলেন, পাচারকারীদের মাধ্যমে ভুয়া কাগজপত্র ব্যবহার করে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভারত অথবা নেপালের মতো দেশের পাসপোর্ট সংগ্রহ করেছে অনেক রোহিঙ্গা। তা ব্যবহার করে তারা সৌদি আরবে প্রবেশ করেছে।

উল্লেখ্য, ১৯৮২ সালে মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব কেড়ে নেয়। এর ফলে তারা রাষ্ট্রহীন মানুষ হয়ে পড়েন। ১৯৮২ সালের নাগরিকত্ব আইনের অধীনে রোহিঙ্গাদেরকে মিয়ানমারের ১৩৫টি জাতিগত পরিচয়ের অধীনে নেয়া হয় নি। এর ফলে তাদের পড়াশোনা, কাজকর্ম, ভ্রমণ, বিয়ে, ভোট দেয়ার অধিকার, ধর্মীয় চর্চা ও স্বাস্থ্যসেবা পড়ে বিধিনিষেধের মধ্যে। এমন অবস্থায় ২০১১ সালের পরে যেসব রোহিঙ্গা সৌদি আরবে প্রবেশ করেছেন তাদেরকে আবাসিক অনুমোদন দেয়া বন্ধ করে দিয়েছে সৌদি আরব।

নাই সান লুইন বলেছেন, এ পরিস্থিতিতে হস্তপক্ষেপ করতে বেশকিছু মানবাধিকার বিষয়ক কর্মী সৌদি কর্তৃপক্ষের প্রতি দু’বছরের বেশি আবেদন করেছে। তিনি নিজেও সৌদি আরব ও কূটনীতিকদের দ্বারস্থ হয়েছেন। তিনি বলেন, এসব রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পৌঁছার পর তাদের জেল হতে পারে। তাই তাদেরকে ফেরত পাঠানো বন্ধ করা উচিত সৌদি আরবেন। অন্য রোহিঙ্গাদের যেভাবে আবাসন অনুমোদন দেয়া হয়েছে তাদেরকেও সেই একই সুবিধা দেয়া উচিত।

বিডি২৪লাইভ/এআইআর

সর্বশেষ

এডিটর ইন চিফ: আমিরুল ইসলাম আসাদ
বিডি২৪লাইভ মিডিয়া (প্রাঃ) লিঃ, বাড়ি # ৩৫/১০, রোড # ১১, শেখেরটেক, মোহাম্মদপুর, ঢাকা - ১২০৭, 
ই-মেইলঃ info@bd24live.com, 
ফোন: ০২-৫৮১৫৭৭৪৪

বার্তা প্রধান: ০৯৬১১৬৭৭১৯০
নিউজ রুম: ০৯৬১১৬৭৭১৯১
মফস্বল ডেস্ক: ০১৫৫২৫৯২৫০২
ই: office.bd24live@gmail.com

Site Developed & Maintaned by: Primex Systems