‘ছোট কারাগার থেকে বেরিয়ে এখন বৃহৎ কারাগারে এসেছি’

১১ জুলাই ২০১৯, ৮:৪৬:২১

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর বিএনপির (দক্ষিণ) সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেল জামিনে মুক্তি পেয়েছেন।

আজ বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) নারায়ণগঞ্জ কারাগার থেকে তাকে মুক্তি দেওয়া হয়। নারায়ণগঞ্জ জেলা কারাগারের জেল সুপার সুভাষ ঘোষ গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সন্ধ্যায় ৭টায় কারাগার থেকে বের হওয়ার সময় কারা ফটকে উপস্থিত ছিলেন তার স্ত্রী কামরুন নাহার সৃষ্টি দুই কন্যা জান্নাতুন ইনি সূচনা ও অপরাজিতা খান মিতু সহ দলীয় নেতাকর্মীরা।

কারাগার থেকে বেরিয়ে হাবিব উন নবী সোহেল এক প্রতিক্রিয়ায় গণমাধ্যমকে বলেন, দীর্ঘ ১০ মাস পর মুক্তি পেলাম। ছোট কারাগার থেকে বেরিয়ে এখন বৃহৎ কারাগারে এসেছি। এর আগে রাজধানীর রমনা থানায় করা নাশকতার এক মামলায় বুধবার সোহেলকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেয় হাইকোর্ট। জামিনের একদিন পরেই থেকে মুক্তি পেলেন সাবেক এই ছাত্রনেতা।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন সিকদার বলেন, খবর পেয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে কারাগারের সামনে এসে সোহেল ভাইকে ফুলের শুভেচ্ছা জানিয়েছি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল কারাগার থেকে বেরিয়ে দ্রুত গাড়িতে উঠে চলে যান। এ সময় দলীয় নেতাকর্মীরাও তাকে শুভেচ্ছা জানিয়ে যে যার মতো দ্রুত চলে যান। সোহেলের মুক্তির সময় আশপাশে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাউকে দেখা যায়নি।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলশানের গোলচত্বর থেকে হাবিব-উন-নবী খান সোহেলকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে ১১২টি মামলা রয়েছে।

তারেক রহমানকে দেশে আসতে দিন: সরকারকে ফারুক

সরকারকে উদ্দেশ করে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক বলেছেন, খালেদা জিয়া ১৮ মাসের ওপরে কারাগারে আছেন। তারেক রহমান বিদেশে। তারপরও কেন এত ভয়।

‘তারেক রহমানকে দেশে আসতে দিন, রাজনীতি করতে দিন। তাকে নির্বাসিত করে তার বিরুদ্ধে কথা বলবেন সেটা তো রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড না।’

বৃহস্পতিবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

খালেদা জিয়ার মুক্তি ও গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে এই কর্মসূচির আয়োজন করে ‘অপরাজেয় বাংলাদেশ’ নামের একটি সংগঠন।

বিএনপির সিনিয়র নেতাদের উদ্দেশ্য করে ফারুক বলেন, আমাদেরকে কর্মসূচি দেন। গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি, দেশে গুম, হত্যা, মামলা, ছোট ছোট শিশুদেরকে ধর্ষণের প্রতিবাদ জনগণ আপনাদের কাছ থেকে চায়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কি কিছু দেখতে পান না? সারা দেশে ধর্ষণের ঘটনায় আমি তো মনে করেছিলাম আপনার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পদত্যাগ করবেন। কিন্তু পদত্যাগ তো করলেন না। ভেবেছিলাম দোষীদের আইনের আওতায় আনবেন।

‘কিন্তু আইনের আওতায় না এনে ক্রসফায়ার করে মেরে ফেলবেন সেটা তো বিচার হয় না। বিএনপির বহু লোককে এভাবে গুম করে, ক্রসফায়ারে হত্যা করেছেন। একদিন এর বিচার বাংলার বুকে হবেই।’

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।