‘জুমচাষীদেরই বেশী ম্যালেরিয়া রোগ হয়’

২৫ আগস্ট ২০১৯, ৪:১২:২০

পার্বত্য চট্টগ্রামের জুমচাষীরা জঙ্গলে দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করার ফলে জুমচাষীদেরই বেশি ম্যালেরিয়া রোগ হয়। মশাবাহিত যেসব রোগ রয়েছে তার মধ্যে ম্যালেরিয়া একটি ভয়াবহ রোগ। পার্বত্য চট্টগ্রামে এক সময় এই মশাবাহিত ম্যালেরিয়া রোগে অনেকেই মারা গেছে। তাই এই রোগকে অবহেলা করলে চলবেনা।

রবিবার (২৫ আগস্ট) সকালে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের আয়োজনে পরিষদের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত জেলা উন্নয়ন কমিটির মাসিক সভায় সভাপতির বক্তব্যে জেলা পরিষদ ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী এসব কথা বলেন।

ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বলেন, ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ থেকে শুরু করে সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থা সবারই মশাবাহিত ম্যালেরিয়া প্রতিরোধে দায়িত্ব পালনের সুযোগ রয়েছে। প্রতিটি সভা সেমিনারে এ বিষয়ে সচেতনতামূলক বার্তাগুলো নিয়ে আলাপ করতে হবে। সরকারি সহযোগিতা বা অবদানের দিকে না তাকিয়ে আমরা আমাদের বাসার আশপাশ এবং এলাকার যেখানে পানি জমে আছে তা পরিষ্কার রাখার ব্যবস্থা করতে পারি। পানিপ্রবাহের রাস্তায় পানির সঞ্চালন বাড়িয়ে দিতে পারি, যাতে ডিম পরিপূর্ণতা না পায়। তাই তাদের এ বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে ব্র্যাক ও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন।

তিনি আরও বলেন, রূপের রানী খ্যাত পর্যটন নগরী রাঙ্গামাটিকে রক্ষার্থে সবাইকে আরও আন্তরিক হতে হবে। রাস্তার আশপাশসহ যেখানে সেখানে বর্জ্য নিক্ষেপের ফলে যে পরিস্থিতি হচ্ছে তা বন্ধ করতে হবে। এ জন্য পৌর কর্তৃপক্ষের পাশাপাশি প্রশাসন ও আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

এ সময় পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা ছাদেক আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য সাথোয়াই প্রু মারমা, সহকারী পুলিশ সুপার রনজিত কুমার পালিত, রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সিরাজুল ইসলাম, রাঙ্গামাটি পৌরসভার প্যানেল মেয়র জামাল উদ্দিনসহ পরিষদের হস্তান্তরিত বিভাগের কর্মকর্তা, জেলা ও উপজেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।