বৃষ্টি নামলেও খোলা হয়নি হলের গেট, ভিজেই ছাত্রীদের অবস্থান

৮ নভেম্বর ২০১৯, ১১:৪৭:০৩

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে চলছে আন্দোলন। এর মধ্যেই ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে সারাদেশে নেমেছে বৃষ্টি। এই বৃষ্টি ভিজেই বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেসা হলের সামনে অবস্থান করছেন ছাত্রীরা কারণ হলের গেট খুলে দেয়া হয় নি। শুক্রবার (৮ নভেম্বর) রাত সাড়ে দশটায় এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এখনো ছাত্রীরা বৃষ্টিতে ভিজছেন।

হলের আবাসিক শিক্ষার্থী তাপসী প্রাপ্তি জানান, হঠাৎ করে হল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আমরা কোথায় যাব। আমাদের থাকার জায়গা নেই। হল না খোলা পর্যন্ত আমরা এখানে অবস্থান করব।

এ বিষয়ে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক মুজিবুর রহমান বলেন, আমরা সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্ত অমান্য করতে পারব না। ওরা আমাকে কল দিয়েছে। আমি তাদের সাথে কথা বলতে আসতেছি। আমি প্রক্টর ও অন্যান্যের সাথে কথা বলছি। এ বিষয়ে আমি কোনো সিদ্ধান্ত দিতে পারব না।

এর আগে, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলামের অপসারণ দাবিতে প্রশাসনের সকল বাধা নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে বন্ধের দিনেও চলমান ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারে আন্দোলনরত শিক্ষক -শিক্ষার্থীদের আন্দোলন কর্মসূচি। অনির্দিষ্ট কালের জন্য ক্যাম্পাস বন্ধ ও সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্রবার উপেক্ষা করেই চিত্র কলার মাধ্যমে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন আন্দোলনকারীরা।

শুক্রবার (৮ নভেম্বর) বেলা ১২টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরাতন প্রশাসনিক ভবনের সামনে জড়ো হয়ে পূর্বঘোষিত কর্মসূচী অনুযায়ী আন্দোলনের অংশ হিসাবে প্রতিবাদী চিত্রাঙ্কন কর্মসূচিতে অংশ নেয় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

দেখা যায় চিত্রাঙ্কনে শিল্পীরা ‘দড়ি ধরে মারো টান, ফারজানা ইসলামের গদি হোক হোক খানখান’, ‘ভাঙ্গবে শিকল খুলবে চোখ, ধ্বংস হবে ভন্ড লোক’, ‘গুলিবিদ্ধ গান একদিন ঠিক কেড়ে নেবে স্বৈরাচারের প্রাণ’, ‘হাও মাও খাও প্রতিবাদ এর গন্ধ পাও! বন্ধ করো ক্যাম্পাস, বন্ধ করো হল, ভয় পাও সব বেয়াদবের দল’ ইত্যাদি স্লোগানসহ চিত্রের মাধ্যমে প্রতিবাদের ভাষা তুলে ধরেন। এরপর সন্ধ্যায় পটচিত্র নিয়ে তারা ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা প্রদক্ষিণ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন।

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।