নাইমের ঝড়ো ফিফটিতে রংপুরের বড় সংগ্রহ

১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, ৩:২০:০২

বঙ্গবন্ধু বিপিএলের সপ্তম ম্যাচে রংপুর রেঞ্জার্সের বিপক্ষে টস জিতে প্রথমে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নেন চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স এর অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ভারত সফরে ইনজুরির কারণে বিপিএলে দলের প্রথম ২ ম্যাচে খেলেননি মাহমুদুল্লাহ। একাদশে ফিরেই টস জেতেন মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যান। চট্টগ্রাম একাদশে এসেছে ৩ পরিবর্তন। মাহমুদউল্লাহ ছাড়া দলে ফিরেছেন রায়ান বার্ল ও মেহেদী হাসান রানা। আর রংপুরের একাদশে বদল এসেছে চারটি। সুযোগ পেয়েছেন লেগস্পিনার রিশাদ হোসেন।

চলতি বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের উদ্বোধনী ম্যাচেই ঝড় তুলেছিলেন মোহাম্মদ মিঠুন এবং ইমরুল কায়েস। দুজনই করেছিলেন পঞ্চাশোর্ধ্ব রান। ফিফটি না পেলেও দুই ম্যাচেই ঝড়ো ব্যাটিং করেছেন লিটন কুমার দাস। আর সবশেষ শুক্রবার (১৩ ডিসেম্বর) রাতে ফর্মে ফিরে ৭৪ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলেছেন তামিম ইকবাল। দেশি ব্যাটসম্যানদের এমন ব্যাটিং পারফরম্যান্সের তালিকায় এবার যোগ হলো আরেকটি ইনিংস। যেটি এসেছে জাতীয় দলের তরুণ ওপেনার, বর্তমানে রংপুর রেঞ্জার্সে খেলা বাঁহাতি ব্যাটসম্যান নাইম শেখের ব্যাট থেকে। ঢাকার প্রথম পর্বের শেষদিনের প্রথম ম্যাচে আজ মুখোমুখি হয়েছে রংপুর রেঞ্জার্স ও চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। টস হেরে ব্যাট করতে নামে রংপুর। চট্টগ্রাম বোলারদের ওপর আধিপত্য বিস্তার করে ব্যক্তিগত ফিফটি তুলে নিয়েছেন নাইম শেখ।

রংপুরের আফগান ওপেনার মাত্র ৯ রান করে ফিরে গেলেও অপর প্রান্তে ইতিবাচক ব্যাটিং করতে থাকেন নাইম। মাত্র ২৬ বলে তুলে নেন টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ফিফটি। অর্ধশতক পূরণ করার পথে ৬টি চারের সঙ্গে ৩টি চার মারেন তিনি। ছক্কা তিনটি তিনি হাঁকিয়েছেন মেহেদি হাসান রানা, রুবেল হোসেন ও নাসির হোসেনের ওভারে। নাইম ম্যাচের হাল ধরলেও অপর প্রান্তে যাওয়ার আসার মধ্যে ছিল বাকি ব্যাটসম্যানরা অবশেষে ৫৪ বলে ৭৮ রানের এক দারুণ ইনিংস খেলে নাইম। নাইমের আউটের পর তাসকিন ও আরাফাত সানির কল্যাণে ২০ ওভারে ১৫৭ রান পায় রংপুর। জিততে হলে চট্টগ্রামের প্রয়োজন ১২০ বলে ১৫৮ রান।

আসরে এরই মধ্যে ২টি ম্যাচ খেলেছে চট্টগ্রাম। প্রথমটি জিতলেও দ্বিতীয়টি হেরেছে তারা। রংপুর অবশ্য একটি ম্যাচ খেলেছে। কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের বিপক্ষে ১০৫ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছে তারা। মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দুই দলের জন্যই জয়ে ফেরার মিশন এই ম্যাচটি।

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স একাদশ:
আভিশকা ফার্নান্দো, চ্যাডউইক ওয়ালটন, ইমরুল কায়েস, রায়ান বার্ল, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, নাসির হোসেন, রুবেল হোসেন, কেসরিক উইলিয়ামস, মুকতার আলি এবং মেহেদি হাসান রানা।

রংপুর রেঞ্জার্স একাদশ:
মোহাম্মদ শাহজাদ, মোহাম্মদ নাইম শেখ, জহুরুল ইসলাম, লুইস গ্রেগরি, টম অ্যাবল, নাদিফ চৌধুরী, মোহাম্মদ নবী, মোস্তাফিজুর রহমান, আরাফাত সানি, তাসকিন আহমেদ ও রিশাদ হোসেন।

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।