দুই পক্ষের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে প্রতিবেশী নিহত

৬ এপ্রিল ২০২০, ১১:১৫:১১

ময়মনসিংহের নান্দাইলে দুই পক্ষের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে আবুল বাশার (৬০) নামে একজন নিহত হয়েছেন। এ সময় দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৪ জন। তাঁদের মধ্যে দুইজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নিহত আবুল বাশার উপজেলার ভাটি সভার গ্রামের বাসিন্দা। সোমবার (৬ এপ্রিল) দুপুরের পর উপজেলার ভাটি সভার গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এর আগে রবিবার (৫ এপ্রিল) ওই গ্রামের শাহাব উদ্দিন নামে এক ব্যক্তির শসা ক্ষেতে একটি শসা ছাগলে খেয়ে ফেলা নিয়ে দুইপক্ষের মধ্যে মারামারি হয়।

শাহাব উদ্দিন বলেন, তাঁর ক্ষেতের অনেকগুলো শসা গাছ নষ্ট করে ফেলে প্রতিবেশী সিরাজুল ইসলামের ছাগল। এ নিয়ে তাঁর ছেলে সুজন প্রতিবাদ করে। এতে সিরাজুল ও তাঁর আত্মীয় মজিবুর রহমান ক্ষিপ্ত করে তাঁর দুই ছেলে সুজন ও শাকিলকে মারধর করে। হাসপাতালে চিকিৎসা করিয়ে তাঁদের সুস্থ করে তোলা হয়। সোমবার তিনি খবর পেয়ে কর্মস্থল ঘোড়াশাল থেকে বাড়ি ফিরে ঘটনাটি মীমাংসা করার চেষ্টা করেন। এ নিয়ে সালিস চলার সময় সিরাজুল ও মজিবুর দলবল নিয়ে এসে আমার বাড়িতে হামলা চালায়। এ ঘটনায় স্ত্রী বেদেনা খাতুন (৪৫) সহ চারজন আহত হয়। এ সময় বাশার নিহত হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়লে হামলাকারীদের মধ্যে মজিবুর পালিয়ে যায়।

নিহতের ছোট ভাই মো. আবুল ইসলাম বলেন, উভয়পক্ষ মারামারি করার সময় তাঁর ভাই দুপক্ষকে নিবৃত্ত করতে যান। এ সময় সিরাজুলের পক্ষের লোকজনের কারো আঘাতে ভাই মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

নান্দাইল মডেল থানার ওসি মনসুর আহমেদ বলেন, এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে পুলিশ সিরাজুল ইসলাম ও রহুল আমীন নামে দুই জনকে নান্দাইল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ও বাড়ি থেকে মজিবুরকে গ্রেপ্তার করা হয়। নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে নিহত আবুল বাশার দুই পক্ষের কেউ নন বলেও জানান তিনি।

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।