মানিকগঞ্জের নিম্নাঞ্চলে বন্যার পানি কমছে, বেড়েছে ভোগান্তি

১১ আগস্ট ২০২০, ১১:৩৭:৫৫

সাহিদুজ্জামান সাহিদ, মানিকগঞ্জ থেকে: মানিকগঞ্জে পদ্মা-যমুনাসহ জেলার ভেতর দিয়ে প্রবাহিত আঞ্চলিক নদ-নদীর পানি বিপৎসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। কমতে শুরু করেছে জেরার নিম্নাঞ্চলের বন্যার পানি, উন্নতি হয়েছে মানিকগঞ্জ জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতিরও। তবে এমন সময় আতঙ্কের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে নদী ভাঙন। পানি কমার সঙ্গে সঙ্গে ভাঙছে নদী। নদী ভাঙনের কারণে অনেকেই হারাতে বসেছেন মাথা গোজার শেষ ঠিকানা টুকুরও।

উজান থেকে নেমে আসা ঢল এবং টানা বৃষ্টিতে জেলার ৬টি উপজেলায় বন্যার পানি প্রবেশ করে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত করে। বন্যার পানি কমতে শুরু করলেও নদী ভাঙনের কারণে বেড়ে গেছে চরাঞ্চলের মানুষের দুর্ভোগ। নদী ভাঙনের কবলে পড়ে ইতোমধ্যে বসতবাড়ি হারিয়েছে শতাধিক পরিবার।

সরেজমিনে দৌলতপুর এলাকার বিভিন্ন স্পটে গিয়ে দেখা গেছে, যমুনার পানি কমতে শুরু করায় ৫টি উপজেলার নিম্নাঞ্চলের বন্যার পানি নামতে শুরু করেছে। তবে দেখা দিচ্ছে নদী ভাঙন। ভাঙনের ভয়ে অনেকেই ঘরের বেড়া খুলে অন্যত্র তুলছেন। আবার অনেকে বাড়ি ফেলে আশ্রয় নিচ্ছেন দূরে বাস করা কোনো আত্মীয়ের কাছে। অনেকে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখছেন কীভাবে তাদের বাড়িঘর নদীগর্ভে হারিয়ে যাচ্ছে সে দৃশ্য।

জিয়নপুর ইউনিয়নের ধল্লা এলাকার বাসিন্দা গহের আলী বলেন, নদীর সঙ্গে যুদ্ধ করে বড় হয়েছি, এখন আর ভয় পাইনা। বন্যার পানি বাড়িতে চলে আসার কারণে এক আত্মীয়ের বাসায় আশ্রয় নিয়েছিলাম। পানি নামছে ঠিকই কিন্তু এমন সময় দেখা দিয়েছে নদী ভাঙন। তাই ঘরের বেড়া অন্য জায়গায় সরিয়ে নিচ্ছি।

একই এলাকার মালেক মিয়া নামের একজন বলেন, প্রত্যেক বছর আমাগো এলাকায় নদী ভাঙন দেখা দেয়। কয় বস্তা বালি ফেলে তার আর কোনো খোঁজ পাওয়া যায় না। আমার দুইটা ঘর নদীতে ভাইঙ্গা গেছে। আরও একটা যে কোনো সময় যাইবো।

দৌলতপুর উপজেলার জিয়নপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন বলেন, আমার ইউনিয়নের কিছু কিছু স্থানে পানি কমার সঙ্গে সঙ্গে নদী ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভাঙন এলাকা সম্পর্কে কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। তারা আশ্বাস দিয়েছে দ্রুত সময়ের ভেতর ভাঙন প্রতিরোধের জন্য জিও ব্যাগ ফেলবেন।

মানিকগঞ্জ পানি উন্নয়ন বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মাঈন উদ্দিন বলেন, নদীতে মাত্র পানি কমতে শুরু করেছে, এখনো নদীর পাড় জাগেনি। জেলার চরাঞ্চলের বাজার, হাট, মসজিদ, মন্দির, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানের জন্য জিও ব্যাগ প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এছাড়া নদীর ভাঙন রোধে বর্ষা মৌসুম শেষে ভাঙন প্রতিরোধের কাজ করানো হবে।

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।