রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিক আদালতের রায়কে স্বাগত জানাল বাংলাদেশ

২৩ জুলাই ২০২২, ১০:০৩:২৫

মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গণহত্যা ও যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে গাম্বিয়া যে মামলা করেছে, সে বিষয়ে নেপিডোর আপত্তি নাকচ করে দিয়েছেন আন্তর্জাতিক বিচার আদালত (আইসিজে)।আর আইসিজে’র এই রায়কে স্বাগত জানিয়েছে বাংলাদেশ। গতকাল শুক্রবার (২২ জুলাই) এক বিবৃ‌তি‌তে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ বার্তা দেয়।

বার্তায় বলা হয়েছে, আইসিজের রায় আইনি ও পদ্ধতিগত ভিত্তিতে মিয়ানমারের চারটি প্রাথমিক আপত্তি এক যোগে প্রত্যাখ্যান করেছে। এতে ন্যায়বিচার ও জবাবদিহিতার প্রশ্নে রোহিঙ্গা সঙ্কটের একটি টেকসই সমাধানে গুরুত্বপূর্ণ ভূ‌মিকা রাখ‌বে ব‌লে বাংলা‌দেশ আশা কর‌ছে। এ বিচারে রোহিঙ্গাদের বৈধ অধিকার পুনরুদ্ধার করে মিয়ানমারে তাদের নিজভূ‌মিতে প্রত্যাবাসনের সুযোগ তৈরি হবে।

এর আগে  দ্য হেগে শুক্রবার বিকেলে ঘোষিত এ রায়ের ফলে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা গণহত্যা মামলার শুনানির পথ খুলে গেল। গাম্বিয়ার দায়ের করা মামলার শুনানি প্রশ্নে মিয়ানমারের সামরিক সরকার আপত্তি জানিয়েছিল। ১৬ সদস্যের আদালত ১৫-১ ভোটে গাম্বিয়ার দায়ের করা গণহত্যার মামলা বিচারের জন্য গ্রহণ করেছেন। ভিন্নমত পোষণকারী হলেন চীনের বিচারপতি শোয়ে হানচিন। বিচারপতি শোয়ে মামলা দায়ের করার সময় গাম্বিয়া ও মিয়ানমারের মধ্যে কোনো বিরোধ ছিল কি না, সে প্রশ্নেও আদালতের অপর ১৫ জন বিচারপতির সঙ্গে ভিন্নমত পোষণ করেন। আদালতের প্রেসিডেন্ট জোয়ান ডনাহিউ রায় পড়ে শোনান।

গত ২১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের প্রাথমিক আপত্তির ওপর শুনানি শুরু হয়। ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চার দিন বিষয়টির ওপর আদালত উভয় পক্ষের যুক্তি ও পাল্টাযুক্তি শোনেন। আদালতে মিয়ানমারের প্রাথমিক আপত্তির শুনানিতে দেশটির প্রতিনিধিত্ব করেন আন্তর্জাতিক সহযোগিতাবিষয়ক মন্ত্রী কো কো হ্ল্যাং। এর আগে একই আদালত গাম্বিয়ার আবেদনের ভিত্তিতে ২০২০ সালের ২৩ জানুয়ারি রোহিঙ্গাদের গণহত্যা থেকে সুরক্ষা দেওয়ার জন্য মিয়ানমারের প্রতি নির্দেশনা দিয়ে একটি অন্তর্বর্তী আদেশ জারি করেছিলেন।

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।