জয়পুরহাটে স্ত্রীকে হত্যা মামলার রায়ে স্বামীর মৃত্যুদণ্ড

২৪ জুলাই ২০২২, ১:৪১:১৫

স্ত্রীকে হত্যা সংক্রান্ত এক মামলায় রায়ে আজ রবিবার (২৪ জুলাই) স্বামীকে মৃত্যুদন্ড প্রদান করেছে জয়পুরহাটের একটি আদালত। অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো: গোলাম সারোয়ার জনাকীর্ণ আদালতে রবিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় এই রায় ঘোষনা করেন। মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামী হচ্ছে জেলার পাঁচবিবি উপজেলার গোহারা (দামপাড়া) গ্রামের আনসার আলীর ছেলে নয়ন (৪২)। আসামীর মৃত্যু না হওয়া পর্যন্ত ফেজদারী কার্যবিধির বিধান অনুসারে গলায় ফাঁসি দ্বারা ঝুলিয়ে রেখে মৃত্যু নিশ্চিত করার নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে রায়ে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গোহারা (দামপাড়া) গ্রামের আনসার আলীর ছেলে নয়নের সঙ্গে ঢাকারপাড়া মহল্লার মোকছেদ মন্ডলের মেয়ে রেশমা ওরফে ফুরকুনির বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে স্ত্রী রেশমার উপর নির্যাতন চালাতে থাকে স্বামী নয়ন। এক পর্যায়ে ২০০২ সালের ৯ নভেম্বর বিকাল বেলা রেশমাকে লাঠি দিয়ে মারপিট করে গলা চেপে ধরে পাশের পুকুরে ফেলে দেয়। পরিবারের লোকজন খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছে রেশমার চিকিৎসার ব্যবস্থা করে। পরের দিন আবার রেশমাকে মারপিট করলে বেলা ৩ টার দিকে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে রেশমা।

এ ঘটনায় বড় ভাই আবির মন্ডল বাদী হয়ে ৩০২ ধারায় পাঁচবিবি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পাঁচবিবি থানার এস আই আব্দুস সাত্তার ২০০৩ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি আদালতে আসামী নয়নকে অভিযুক্ত করে চার্জসীট দাখিল করেন। আদালত এ মামলায় ৯ জনের স্বাক্ষ্য গ্রহন করেন। দীর্ঘ শুনানী শেষে জয়পুরহাটের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো: গোলাম সারোয়ার আজ স্ত্রী রেশমাকে হত্যা মামলায় ৩০২ ধারা মোতাবেক মৃত্যুদন্ডের আদেশ প্রদান করেন।

এ সময় আদালতে থাকা আসামী নয়নকে স্বাভাবিক দেখা যায়। সরকার পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন এপিপি এ্যাড: গকুল চন্দ্র মন্ডল ও আসামী পক্ষে ছিলেন এ্যাড: হাসান আলী ও আবু কাইসার। মামলার রায়ে খুশি বলে জানান, মামলার বাদী রেশমার বড় ভাই আবীর হোসেন। উচ্চতর আদালতে আপিল করার কথা জানান, আসামী পক্ষের আইনজীবী এ্যাড: হাসান আলী।

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।