লোডশেডিংয় এর প্রতিবাদে হারিকেন মিছিল

২৫ জুলাই ২০২২, ১১:০৬:১৪

দেশে শিডিউল ভিত্তিক লোডশেডিং ও জনভোগান্তির প্রতিবাদে হারিকেন হাতে নিয়ে মিছিল ও সমাবেশ করছে বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন। এ ছাড়া সংহতি প্রকাশ করে সমাবেশে অংশ নেন গণসংহতি আন্দোলন ও বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের নেতাকর্মীরা।

সোমবার (২৫ জুলাই) সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে সমবেত হন। পরে ছাত্র ফেডারেশন সভাপতি মশিউর রহমান খান ও সাধারণ সম্পাদক সৈকত আরিফের নেতৃত্বে নীলক্ষেত অভিমুখে হারিকেন মিছিল করে হাতিরপুলের দলীয় কার্যালয়ে শেষ করে।

এর আগে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মশিউর রহমানের সভাপতিত্বে এক বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে ফেডারেশনের কেন্দ্রীয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) সহ বিভিন্ন শাখার নেতারা অংশ নেন।

সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে মশিউর রহমান বলেন, বিদ্যুতের ক্ষেত্রে আমরা করব সাশ্রয়, তারা করবে লুটপাট। আমরা রাত আটটার পর সকল শপিংমল, দোকানপাট বন্ধ করে দিব, আর তারা তাদের ভাই ব্রাদারদের নতুন নতুন প্রকল্প দিয়ে বেড়াবেন। আমরা দেশের কথা চিন্তা করে যে টাকা বাচাব, তারা সেই অর্থ দিয়ে তাদের ভাই ব্রাদারদের সমৃদ্ধ করবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা বারবার বলে এসেছি বাংলাদেশের জ্বালানি খাতকে নবায়নযোগ্য জ্বালানির দিকে নিয়ে যেতে হবে। কিন্তু তারা কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। তারা শুধু উন্নয়ন উন্নয়ন বলে, আজকে সেই উন্নয়ন আমাদের হাতে হারিকেন ধরিয়ে দিচ্ছে। তাই আমরা হারিকেন মিছিল করছি।

সমাবেশে গণসংহতি আন্দোলনের নির্বাহী সমন্বয়ক আবুল হাসান রুবেল বলেন, দেশের বিদ্যুৎ খাতের নৈরাজ্যকে রাশিয়া-ইউক্রেনের ওপর চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে। হোক বা না হোক এটা অবশ্যম্ভাবী ছিল। ১১বার বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়েছে। জনগণের পকেট কাটা হয়েছে। ভর্তুকি লুটেরাদের দেওয়া হয়েছে। সেপ্টেম্বরে এটা ঠিক হবে না। আসলে কোনো ব্যবস্থা নেই। পরিস্থিতি শ্রীলঙ্কার দিকে যাচ্ছে। এর দায় এই লুটেরা সরকারের।

ছাত্র অধিকার পরিষদের সভাপতি বিন ইয়ামিন মোল্লা বলেন, আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী সব কিছুর বিকল্প সমাধান দিয়ে দেন। বিদ্যুৎ যে নেই এর বিকল্প কী? দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। এর বিকল্প কী? আমরা হীরক রাজার দেশে বসবাস করছি। তাদের বন্দনা করতে হবে, সমালোচনা করা যাবে না। জনগণকে সাশ্রয়ী হতে বলা হলেও সরকারি অফিস-আদালতে এসি চলছে। জনগণকে উপদেশ না দিয়ে নিজেরা সচেতন হোন। দেশ দেউলিয়া হলে আমাদের সবাইকে ভোগ করতে হবে। সবাইকে প্রতিবাদ করতে হবে।

এ সময় অন্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন সংগঠনটির অর্থ সম্পাদক আরমানুল হক, নাগরিক ছাত্র ঐক্যের সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের সভাপতি বিন ইয়ামিন মোল্লাসহ অনেকে।

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।