প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

৪ বছরের মেয়েকে ধর্ষণ, হাসপাতালে জ্ঞান হারালেন মা

   
প্রকাশিত: ১:২৬ অপরাহ্ণ, ২৫ জানুয়ারি ২০২১

শরীয়তপুরের রুদ্রকর ইউনিয়নে চার বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় শিশুর মা থানায় একটি মামলা করেছেন। ভুক্তভোগী শিশুটি শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের মহিলা সার্জারি ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছেন। মেয়ের এ অবস্থা দেখে শিশুটির মা হাসপাতালে জ্ঞান হারিয়ে শুয়ে আছেন।

এলাকাবাসী ও মামলা সূত্রে জানা যায়, শিশুটি ধর্ষণের শিকার হয়েছে গত ১৭ জানুয়ারি বিকেল ৫টার দিকে। শিশুটি বাড়ির পাশে খেলতে গিয়েছিল। তখন প্রতিবেশী খলিল সরদারের ছেলে সোহেল সরদার (২৫) শিশুটিকে তার একটি কক্ষে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে কাউকে যেন কিছু না বলে তার জন্য শিশুটিকে মারধরের হুমকি দেয় সোহেল।

শুক্রবার (২২ জানুয়ারি) শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়লে তার মা কি হয়েছে জিজ্ঞেস করলে, ঘটনা খুলে বলে। পরে ওইদিন তাকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অভিযুক্ত সোহেল রাজমিস্ত্রির কাজ করেন।

শিশুটির নানি বলেন, ‘আমার নাতনিকে ডেকে নিয়ে খারাপ কাজ করেছে সোহেল। আবার তাকে ১৫০ টাকার ওষুধ কিনে দিয়েছেন তিনি। আমার মেয়ে মামলা করবে বললে, সোহেল মেয়েকে মারধর করেছে। মেয়ে হাসপাতালে জ্ঞান হারিয়ে শুয়ে আছে। সোহেলকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হোক’।

সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) সুমন কুমার পোদ্দার বলেন, ‘২২ জানুয়ারি যৌন নির্যাতনের অভিযোগ নিয়ে চার বছরের এক শিশু ভর্তি হয়। এখনো ভর্তি আছে। প্রাথমিক মেডিকেল পরীক্ষা করা হয়েছে। ডিএনএ পরীক্ষার জন্য ঢাকায় রিপোর্ট পাঠানো হয়েছে। ওই রিপোর্ট পেলে বলা যাবে শিশুটিকে ধর্ষণ করা হয়েছে কি না’।

শরীয়তপুর সদরের পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসলাম উদ্দিন বলেন, এ ঘটনায় শিশুর মা বাদী হয়ে মামলা করেছেন। মামলার আসামি পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

কাওসার/নিএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: