মধ্যপ্রাচ্য থেকে

চকোলেট-বাদামের প্যাকেটে আসে ইয়াবা, ছড়ায় সারাদেশে

   
প্রকাশিত: ৯:৪৩ অপরাহ্ণ, ২ মার্চ ২০২১

রবিউল হোসেন রবি: সৌদি আরব, আরব আমিরাতসহ মধ্যপ্রাচ্য থেকে প্রবাসীদের নিয়ে আসা বিদেশি চকলেট ও বাদামের প্যাকেট থেকে ফেলে দেয়া হয় খাবারগুলো। এরপর সেই প্যাকেটে ‘বিশেষ কায়দায়’ ঢোকানো হয় ইয়াবা। পরে গামের মাধ্যমে বাইরে থেকে প্যাকেটগুলা এমনভাবে সীল করা হয় যে দেখলে বোঝাই যাবেনা এর ভেতর ইয়াবা।— কোতোয়ালী থানায় এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতারের পর উঠে এসেছে ইয়াবা পাচারের এমনই চাঞ্চল্যকর কৌশলের তথ্য।

সোমবার (২ মার্চ) রাতে মধুবন মিষ্টির দোকানের সামনে থেকে ১৭ হাজার ইয়াবাসহ ওই যুবককে গ্রেফতার করে পুলিশ।

ইমতিয়াজ ইকরাম কাঞ্চন নামে ওই ইয়াবা ব্যবসায়ী কক্সবাজার জেলার হলদিয়া ইউনিয়নের মোস্তফা কামালের পুত্র।

পুলিশ জানায়, মাদক পাচারে এখন সম্পূর্ণ নতুন কৌশলের আশ্রয় নিয়েছেন মাদক ব্যবসায়ীরা। মধ্যপ্রাচ্যে থেকে প্রবাসীরা আসার সময় যে চকোলেট বা বাদামগুলো আনেন সেইগুলো থেকে খাবার ফেলে তার মধ্যে ইয়াবা ঢোকানো হয়। বিশেষ একটি গাম দিয়ে বাইরে থেকে এমনভাবে সিল করে দেয়া হয় যে বাইরে থেকে বোঝার উপায় নেই ভেতরে আছে ইয়াবা।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কোতোয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নেজাম উদ্দীন বিডি২৪লাইভকে বলেন, ‘আজ (সোমবার) রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কোতোয়ালী মোড়ের মধুবন মিষ্টির দোকানের সামনে থেকে ইমতিয়াজ ইকরাম কাঞ্চনকে আটক করা হয়। পরে তার ট্রাভেল ব্যাগ তল্লাশি করে বিদেশি চকলেট ও বাদামের প্যাকেটে থাকা ১৭ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।’

ওসি জানান, জিজ্ঞাবাদে গ্রেফতার কাঞ্চন জানিয়েছে সে এর আগে চারবার একইভাবে কক্সবাজার ও চট্টগ্রাম থেকে বিমানযোগে ইয়াবা পাচার করেছে।

এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এআইআ/এইচি

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: