ধামাকা শপিংয়ের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ

   
প্রকাশিত: ৩:৪২ অপরাহ্ণ, ২৭ জুলাই ২০২১

ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ধামাকা শপিং ডটকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) জসিম উদ্দিন চিশতির ব্যক্তিগত ব্যাংক অ্যাকাউন্টসহ ধামাকা সংশ্লিষ্ট ১৪টি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তাদের বিরুদ্ধে গ্রাহকদের কাছ থেকে নেওয়া অর্থ পাচারের অভিযোগ উঠেছে। গত বছরের নভেম্বরে যাত্রা শুরু করেছে প্রতিষ্ঠানটি। কিন্তু ধামাকার নিজস্ব কোনো অ্যাকাউন্ট না খুলে ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে ক্রেতাদের কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহ করে আসছিল তারা। সেই টাকার বিশাল একটা অংশ বিদেশে পাচার করার অভিযোগ উঠেছে।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে কোম্পানিটির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ১৪টি অ্যাকাউন্ট জব্দ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর মধ্যে ধামাকা শপিং ডটকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) জসিম উদ্দিন চিশতির ব্যক্তিগত ৫টি অ্যাকাউন্ট এবং তার মালিকানাধীন ইনভেরিয়েন্ট টেলিকম বাংলাদেশ লিমিটেডের ৭টি, মাইক্রো ট্রেডের ১টি ও মাইক্রো ফুড অ্যান্ড বেভারেজের ১টি অ্যাকাউন্ট।

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) প্রাথমিক অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে, এই অ্যাকাউন্টগুলো থেকে গ্রাহকদের অন্তত ৫০ কোটি টাকা পাচার করা হয়েছে। কিছু প্রমাণসহ অনুসন্ধানের তথ্য বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে হস্তান্তর করেছে সিআইডি। সেই প্রেক্ষিতে উল্লিখিত ১৪টি অ্যাকাউন্ট ৩০ দিনের জন্য জব্দ করা হয়েছে। শুধু অ্যাকাউন্ট জব্ধ করা নয়, প্রতিষ্ঠানটির চিফ অপারেটিং অফিসার সিরাজুল ইসলাম রানাসহ পাঁচ কর্মকর্তার বিদেশ ভ্রমণের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। ব্লক করা হয়েছে তাদের ন্যাশনাল আইডেনটিটি নম্বর (এনআইডি)। বাংলাদেশ ব্যাংকের ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট জানিয়েছে, প্রয়োজনে আদালতের অনুমতি নিয়ে আরও বেশি সময়ের জন্য ওই অ্যাকাউন্টগুলো জব্দ করে রাখা হবে।

ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ই-ক্যাব) সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াহেদ তমাল বলেন, ইভ্যালির বিরুদ্ধে যখন অভিযোগ উঠেছে, তখন আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি। একইভাবে অভিযোগ সত্য হলে ধামাকার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সেই প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে ইতোমধ্যেই কারণ দর্শাতে চিঠি দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজনে ই-ক্যাব থেকে তাদের মেম্বারশিপ বাতিল করা হবে।

এআইআ/এইচি

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: