প্রচ্ছদ / ক্যাম্পাস / বিস্তারিত

আইইউবিএটিতে ‘বাংলাদেশের কৃষি-অর্থনীতিতে বিশ্বব্যাপী কোভিড এর প্রভাব’ সংক্রান্ত সেমিনার

   
প্রকাশিত: ৪:১০ অপরাহ্ণ, ১৪ অক্টোবর ২০২১

ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এগ্রিকালচার এন্ড টেকনোলজি (আইইউবিএটি) বাংলাদেশের কৃষি অর্খনীতির উপর কোভিড প্যানডেমিক (করোনা) এর প্রভাব শির্ষক জাতীয় সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারটি সেন্টার ফর পলিসি রিসার্চ, আইইউবিএটি, ঢাকা এর উদ্যোগে ৯ অক্টোবর, ২০২১ইং রোজ শনিবার ভার্চূয়ালী অনুষ্ঠিত হয়েছে ।সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসাবে যুক্ত হয়েছিলেন বাংলাদেশের প্রখ্যাত অর্থনীতিবিদ ও বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রাক্তন গভর্নর ড. আতিউর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন আইইউবিএটি’র উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. হামিদা আখতার বেগম, সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন আইইউবিএটি’র উপাচার্য অধ্যাপক ড. আব্দুর রব।সেমিনারে স্বাগত ভাষণসহ সেন্টার ফর পলিসি রিচার্স এর সংক্ষিপ্ত বিবরণ তুলে ধরেন প্রফেসর ড. ইসমাইল হোসেন, চেয়ার, সেন্টার ফর পলিসি রিচার্স, আইইউবিএটি ।সেমিনারে টেকনিক্যাল সেশনে সভাপতিত্ব করেন প্রফেসর ড. মো. শহীদুল্লাহ মিয়া, ডিন, কলেজ অব এগ্রিকালচারাল সাইন্সেস, আইইউবিএটি

ড. আতিউর রহমান তাঁর বক্তব্যে বিশেষভাবে কৃষি অর্থনীতিতে কোভিড প্যান্ডেমিকের প্রভাব তুলে ধরেন। কৃষিকে জাতীয় অর্থনীতির মেরদন্ড হিসাবে তিনি উল্লেখ করেন। কৃষিকে বাদ দিয়ে বাংলাদেশকে মধ্য আয়ের দেশ হিসাবে পাওয়া অসম্ভব। তিনি বলেন যে, কৃষির উন্নয়নে যান্ত্রিকীকরণ, উচ্চ ফলনশীল ফসল উৎপাদন, লবণাক্ত সহনীয় জাত উদ্ভাবন, অতিমাত্রায় ঠান্ডা সহনীয় জাত উদ্ভাবন এক বিরাট অবদান। এছাড়াও দেশের উত্তরাঞ্চলের মঙ্গা দূরীকরণে স্বল্প সময়ে চাষ করা যায় এমন ধানের জাত উদ্ভাবন এক অবিশ্বরণীয় পদক্ষেপ।তিনি কৃষি উন্নয়নে অতীব সন্তোষ প্রকাশ করেন ও দেশের বিজ্ঞানীদের নিকট আরও সাফল্য কামনা করেন যাতে দেশে কোন খাদ্য ঘাটতি না দেখা দেয়। পরিশেষে তিনি কৃষির সঙ্গে জড়িত সকলকে করোনকালীন সয়য়ে দেশের খাদ্য উৎপাদন ও সরবরাহের জন্য আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

উপস্থিত ছিলেন এবং তিনি এক গুরুত্বপূর্ণ ভাষণ প্রদান করেন। তিনি গুরুত্বের সঙ্গে সেন্টার ফর পলিসি রিচার্স এর কার্যক্রম পরিচালনার জন্য বলেন যে, এই সেন্টারটি অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করা প্রয়োজন। তিনি জোর দিয়ে কৃষির গুরুত্ব ও আধুনিকায়ন তুলে ধরেন। কৃষিতে বাংলাদেশ সরকারের প্রণোদনাকে স্বাগত জানান। তিনি বলেন যে আমাদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বাংলাদেশের কৃষি অর্থনীতিকে শক্তিশালী করতে হবে।

অধ্যাপক ড. আব্দুর রব বলেন কোভিড প্যান্ডেমিকের প্রভাব থেকে প্ররিত্রাণ পেতে কৃষির উন্নয়নের উপর জোর দেন। কৃষক যাতে ন্যায্য মূল্য পায় তার ব্যবস্থা করার প্রতি্ ইঙ্গিত প্রদান করেন। মধ্যসত্বভোগীদের দৌরাত্ব কমানোর প্রতি জোর দেন এবং কৃষককে খাদ্য প্রক্রিয়াজাত করণের উপর ট্রিনিং দেওয়ার কথা বলেন। তিনি বলেন শিল্প স্থাপন, রাস্তাঘাট নির্মাণ ইত্যাদিতে জমির পরিমাণ কমে যাচ্ছে তাই কৃষককে শহরের লোকজনের মত স্বল্পসুদে বা বিনা সুদে বহুতল আবাস ভবন নির্মানের ঋণ দেওয়ার কথা উল্লেখ করেন। তিনি জোর দিয়ে উল্লেখ করেন যে কৃষকদের জন্য স্বাস্থ্য ও শিক্ষা ব্যবস্থাসহ ট্রেনিং সেন্টর ও কৃষকের স্কুল তৈরি করতে হবে। গ্রাম ও গ্রামীণ অর্থনীতিকে শক্তিশালী করতে হবে। পরিশেষে তিনি সেন্টার ফর পলিসি রিসার্চের কার্যক্রম সরকারের প্লানের সংগে সংযুক্তি রেখে সেন্টারের কাজ করলে আরো বেশি সাফল্য পাওয়া যাবে।

অধ্যাপক ড. ইসমাইল হোসেন বলেন তিনি বিশেষভাবে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন বিভিন্ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান ও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আগত সকল বিজ্ঞানী ও শিক্ষকদের এবং বিদেশ থেকে যোগদানকারী গবেষক ও শিক্ষকদেরকে আন্তরিকভাবে অভিনন্দন জানান। সেন্টার ফর পলিসি রিসার্চ এর লক্ষ্য, কার্যকারিতা, উদ্দেশ্য, অতীত কার্যবিবরণ ও বর্তমান চলমান কার্যাদির বর্ণনা তুলে ধরেন।

এই সেশনে মোট ৫টি পেপার উপস্থাপন করা হয়। বাংলাদেশ আনবিক কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম বাংলাদেশের কৃষি অর্থনীতিতে বিশ্বব্যাপী কোভিড (করোনা) এর প্রভাবের উপর প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। তিনি কোভিড প্যান্ডেমিকের সময়ে নতুন জাত উদ্ভাবন ও তার গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে আলোচনা করেন। দ্বিতীয় প্রবন্ধে “বাংলাদেশের মশলাজাতীয় শস্যের উপর বিশ্বব্যাপী কোভিড বা করোনার প্রভাব” নিয়ে বিশদ আলোচনা করেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটউটের মশলা গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. কে এম খালেকুজ্জামান। বাংলাদেশের সুগারক্রপস রিসার্চ ইনস্টিটউটের মূখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. সাইদা সুলতানা বাংলাদেশের চিনি উৎপাদক শস্য উৎপাদন ও বিপণনে করোনার প্রভাব নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সম্বলিত প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। “বাংলাদেশের আর্থসামাজিক ব্যবস্থাপনায় করোনার প্রভাব, চ্যালেঞ্জ ও করণীয়” এর উপর প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড. অনামিকা নাসরিন, সহকারী অধ্যাপক, কলেজ অব এগ্রিকালচারাল সাইন্সেস, আইইউবিএটি। বাংলাদেশের মৎস্য উৎপাদন, বিপণন ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে বিশ্বব্যাপী কোভিড বা করোনার প্রভাবের উপর প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলোদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটউটের উর্ধতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা জনাব এইচ এম রফিকুল ইসলাম। উক্ত সেমিনারে মুক্ত আলোচনা ছাড়াও দুই জন মূখ্য আলোচক অধ্যাপক ড. সায়াদুর রহমান ও ড. ফারজানা সুলতানা, কলেজ অব এগ্রিকালচারাল সাইন্সেস, আইইউবিএটি আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন।

সালাউদ্দিন/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: