প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

আব্দুল ওয়াদুদ

বগুড়া প্রতিনিধি

ভাড়া বাড়লে বাস ছাড়বে মালিকরা

   
প্রকাশিত: ৭:০১ অপরাহ্ণ, ৬ আগস্ট ২০২২

রাতে জ্বালানী তেলের দাম বৃদ্ধির পর বগুড়ায় সকাল থেকে দূরপাল্লা ও অভ্যন্তরীণ রুটে তেলচালিত বাস-ট্রাক চলাচল বন্ধ রয়েছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম থেকেও কোনো বাস-ট্রাক বগুড়ায় আসেনি। তবে কয়েকটি পরিবহন এরই মধ্যে বাসের ভাড়া বাড়িয়েছে। শনিবার (৬ আগস্ট) সকালে বগুড়া চারমাথা ও ঠনঠনিয়া আন্তঃজেলা বাস টার্মিনাল ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে। তবে জেলার পরিবহন মালিক নেতারা জানিয়েছেন, বাস চলাচলে স্থানীয়ভাবে কোনো নির্দেশনা বা ধর্মঘট ডাকা হয়নি। চালকের নিজে থেকে বাস চলাচল বন্ধ রেখেছে। ভাড়া বৃদ্ধির বিষয়ে কেন্দ্রের নির্দেশনার জন্য অপেক্ষা করছেন তারা। সকালে চারমাথা বাস টার্মিনালে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, হঠাৎ করে সরকারিভাবে তেলের দাম বাড়ার কারণে বেশিরভাগ চালক বাস বন্ধ রেখেছেন। তেলের নতুন দামে তাদের আয়ের থেকে ব্যয় অনেক বেশি হবে।

এ কারণে বাধ্য হয়ে বাস ছাড়ছেন না চালকেরা। এর আগে সকালে বগুড়া ও সিরাজগঞ্জ রুটের চেইন মাস্টার মিনহাজুল ইসলাম বলেন, সকাল থেকে আমার রুটে মাত্র ১ টি বাস ছেড়ে গিয়েছে সেটিও গ্যাসের। তেলের কোন গাড়ি চলাচল করছে না। অন্য রুটগুলোরও একই অবস্থা। ঠনঠনিয়া আন্তঃজেলা টার্মিনালে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে কয়েকটি বাস পরিবহন ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছে।

এদের একটি হানিফ পরিবহন। ঠনঠনিয়া টার্মিনালের এই পরিবহনের কাউন্টারের নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক টিকিট বিক্রেতা জানান, আমাদের মালিকপক্ষ থেকে বাস ভাড়ার বাড়াতে বলেছে। এ জন্য ঢাকার রুটের ভাড়া ১০০ টাকা বাড়িয়ে ৫৫০ টাকা নেয়া হচ্ছে। বাস চলাচল বন্ধের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাস, মিনিবাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম।

তিনি জানান, বগুড়া থেকে অধিকাংশ বাস বাইরে যাচ্ছে না। সকাল থেকেও ঢাকা-চট্টগ্রামের রুটের বাস বগুড়ায় আসেনি। আমরা কোনো ধর্মঘটের নির্দেশনা দেইনি। আবার চালকদের রাস্তায় বাস নামানোর জন্যও বলিনি। আমিনুল ইসলাম বলেন, শুক্রবার সরকারিভাবে তেলের দাম প্রায় ৩০ টাকা বেশি বাড়ানো হয়েছে। এখন বগুড়ায় আন্তঃথানা ও জেলার আটটি রুটে প্রায় এক হাজার বাস চলে। শুধু থানা রুটে একটি বাস আপডাউন করতে অন্তত ৩০ লিটার তেল লাগে। অর্থ্যাৎ প্রায় হাজার টাকার ওপরে বাড়তি খরচ হচ্ছে। কিন্তু ওই পরিমাণ আয় কখনই সম্ভব নয়।

এ জন্য তেলের দাম কিছু কমিয়ে ভাড়া সমন্বয় করার দাবি জানান জেলা বাস, মিনিবাস মালিক সমিতির সম্পাদক। তিনি বলেন, আমরা নিজে থেকে কোনো সিদ্ধান্ত নিব না। কেন্দ্রের নির্দেশনার অপেক্ষায় রয়েছি। তবে তেলের দাম এত বেশি হওয়া ঠিক হয়নি। সরকার দাম কিছুটা কমিয়ে ভাড়ার সঙ্গে সমন্বয় করে দিবে এমনটা আশা করছি। এদিকে রাস্তায় বাস চলাচল কমে যাওয়ায় ভোগান্তিতে পড়েছেন বহু যাত্রী। অধিকাংশ যাত্রীরা অনিশ্চয়তায় পড়েছেন। অনেকে বাড়তি ভাড়া দিয়ে যাতায়াত করছেন। চারমাথা টার্মিনালে সকাল ৯টার দিকে এসেছেন রুহুল আমিন। যাবেন পাবনায়। রুহুল বলেন, সকাল থেকে বসে আছি। কিন্তু বাস নেই। কি করব জানি না।

গোবিন্দগঞ্জের ফাঁসিতলা থেকে বাসে চড়ে বগুড়া এসেছেন খোকন হাসান নামে এক শিক্ষার্থী। তিনি জানান, বুধবার বাড়িতে গিয়েছিলাম। বাসের ভাড়া ছিল ৩০ টাকা। আজ সকালে সেই ভাড়া নিয়েছে ৫০ টাকা। জিজ্ঞেস করতেই জানালো তেলের দাম বাড়তি।

সালাউদ্দিন/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: