প্রচ্ছদ / জাতীয় / বিস্তারিত

মেয়ের জিম্মায় বাড়ি ফিরলেন রহিমা বেগম

   
প্রকাশিত: ৯:৫০ অপরাহ্ণ, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২

২৯ দিন নিখোঁজ থাকার পর উদ্ধার হওয়া রহিমা বেগমকে (৫২) তার ছোট মেয়ে আদরী খাতুনের জিম্মায় হস্তান্তর করেছেন আদালত। পরে খুলনা মহানগরীর বয়রা এলাকায় আদরীর বাসায় তাকে নিয়ে যাওয়া হয়। আজ রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে আদালত থেকে বেরিয়ে ইজিবাইকযোগে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন তারা। এর আগে সন্ধ্যা ৬টার দিকে খুলনা চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-২ এর বিচারক আল আমিনের কাছে জবানবন্দি দেন রহিমা বেগম।

এসময় বাদীপক্ষের আইনজীবী আফরুজ্জামান টুটুল বলেন, ভিকটিম আদালতে তার অপহরণের বিষয়ে বিস্তারিত বর্ণনা দিয়েছেন। সেখানে তিনি উল্লেখ করেন- জমিজমা নিয়ে যাদের সঙ্গে বিরোধ ছিল, মূলত তারাই তাকে অপহরণ করে চট্টগ্রামে নিয়ে যায়। সেখানে থেকে তিনি ফরিদপুরে আসেন। মামলায় যাদের নাম রয়েছে, তাদের মধ্যে ৪-৫ জন অপহরণের সঙ্গে জড়িত। জবানবন্দি গ্রহণ শেষে চিফ মেট্রোপলিটন আদালত-৪ এর বিচারক সারোয়ার আহমেদ তাকে তার মেয়ে ও এজাহার দায়েরকারী আদরী খাতুনের জিম্মায় হস্তান্তর করেন। আফরুজ্জামান টুটুল বলেন, রহিমাকে অপহরণ করা হয়েছিল। তাকে চারজন লোক উঠিয়ে নিয়ে যান। সেখানে তার কাছ থেকে জোর করে সাদা স্টাম্পে স্বাক্ষর করিয়ে নেওয়া হয়। এরপর এক হাজার টাকা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়।

আদালত থেকে বেরিয়েই রহিমা বেগমের মেয়ে মরিয়ম মান্নান বলেন, আমার মাকে জীবিত ফিরে পেয়েছি। এই মুহূর্তে আমার চেয়ে সুখী আর কেউ নেই। ইনশাআল্লাহ আমার মায়ের হাত এক মুহূর্তের জন্যও আমি ছাড়ব না। এর আগে শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) রাত পৌনে ১১টার দিকে ফরিদপুরের বোয়ালমারীর সৈয়দপুর গ্রামের কুদ্দুসের বাড়ি থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। রহিমা বেগমকে নিয়ে পুলিশের একটি টিম শনিবার দিবাগত রাত ২টার দিকে দৌলতপুর থানায় পৌঁছায়। পরে রোববার বেলা ১১টার দিকে পুলিশ রহিমা বেগমকে পিবিআইয়ের কাছে হস্তান্তর করে।

রেজানুল/সা.এ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: