প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

মোঃ জামাল বাদশা

লালমনিরহাট প্রতিনিধি

গৃহবধুকে ধর্ষণের পর মোবাইলে ভিডিও ধারন, গ্রেফতারের দাবিতে বিক্ষোভ

   
প্রকাশিত: ৪:২৬ অপরাহ্ণ, ১৯ নভেম্বর ২০২২

লালমনিরহাটের আদিতমারীতে কাঁথা সেলাইয়ের কথা বলে বাড়িতে ডেকে নিয়ে গিয়ে সনাতন র্ধমালম্বী এক নারীকে (৪০) ঘরে আটকিয়ে জোরর্পূবক র্ধষণ ও গোপনে মোবাইলে ভিডিও ধারনের ঘটনায় অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়েছে এলাকা জুড়ে। এ ঘটনায় মামলা হলেও পুলিশ এখনো কোন আসামী গ্রেফতার করতে পারেনি। আসামীদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবিতে শুক্রবার বিকালে এলাকাবাসি একটি বিক্ষোভ করেন।

মামলার আাসামীরা হলেন আদিতমারী উপজেলার কমলাবাড়ী ইউনিয়নের চন্দনপাট কালীর চড়া গ্রামের মৃত আব্দুল বারেক পচুর ছেলে আসাদ মিয়া (৫০), মৃত আব্দুল মোত্তালেব দুক্কার ছেলে মিলন মিয়া (৪০) এবং মৃত মোক্তার আলীর ছেলে কুলু মিয়া (৪৫)।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, আসাদ মিয়া তার বাড়িতে ওই নারীকে আটকিয়ে প্রাণনাশের ভয় দেখিয়ে জোরর্পূবক র্ধষণ করেন। মিলন মিয়া ও কুলু মিয়ার সহযোগিতায় আসাদ মিয়া র্ধষণের ঘটনাটি গোপনে মোবাইলে ধারন করেন। মোবাইলে ধারনকৃত র্ধষণের দৃশ্য ওই নারীকে দেখিয়ে বলা হয় ‘এ ঘটনা কারো কাছে প্রকাশ করলে এই ভিডিও ফেসবুক, ইউটিউব ও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়া হবে।’ ধর্ষণের এই ভিডিও দেখিয়ে ওই নারীকে একাধিকার ব্লাকমেইল করার চেষ্টা করা হয়।
গত ৯ অক্টোবর থেকে র্ধষণের ভিডিওটি ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে গ্রামের মানুষের মোবাইলে মোবাইলে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। ওই নারীর ছেলের মোবাইলেও এই ভিডিওটি পাঠানো হয়। গেল ১২ নভেম্বর শনিবার রাতে র্ধষণের শিকার ওই নারী বাদী হয়ে আদিতমারী থানায় তিনজনকে আসামী করে একটি মামলা করেন।

ধর্ষণের শিকার গৃহবধু বলেন, `ভিডিও দেখিয়ে আমাকে ভয়ার্ত করে রেখেছিলেন আসাদ, মিলন ও কুলু। তারা ভিডিওটি ছড়িয়ে দিবে এই ভয়ে আমি আমার স্বামীসহ কাউকে র্ধষণের ঘটনাটি বরতে পারিনি।’ `তারা ভিডিওটি ছড়িয়ে দিয়েছে। এমনকি আমার ছেলের মোবাইলেও ভিডিওটা পাঠিয়েছে। আমি এখন কাউকে মুখ দেখাতে পারছি না।

ওই নারীর স্বামী বলেন, মামলা করার এক সপ্তাহ হচ্ছে কিন্তু পুলিশ এখনো কোন আসামীতে গ্রেফতার করতে পারেনি। উল্টো আসামীদের লোকজন মামলা তুলে নেওয়ার হুমকি দিচ্ছেন। রাতের অন্ধকারে বাড়িতে ইট, পাটকলে দিয়ে ঢিল দেওয়া হচ্ছে। `পুলিশকে আসামী গ্রেফতার করতে বার বার বলা হচ্ছে কিন্তু পুলিশ এ ব্যাপারে কোন আন্তরিকই নন।’ আমরা এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছি।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা কান্তেশ্বর রায় জানান, আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তুমুলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার করা না হলে আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে ও হুশিয়ারী দেন তিনি।

আদিতমারী থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) মোক্তারুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনার পর থেকে আসামীরা এলাকা ছেড়ে আত্মগোপন করেছেন। পুলিশ তাদের অবস্থান চিহ্নিত করতে কাজ করছেন। খুব দ্রুত আসামীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে বলে।

সালাউদ্দিন/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: