প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

রবিন খান

সিংড়া (নাটোর) প্রতিনিধি

শতভাগ বাড়ি বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত করেছেন প্রধানমন্ত্রী: পলক

   
প্রকাশিত: ৮:০৫ অপরাহ্ণ, ৭ ডিসেম্বর ২০২২

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি বলেছেন, আমরা আরাম আয়েশের জন্য নয়, জনকল্যাণে রাজনীতি করি। জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাতদিন বাংলাদেশের মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর জন্য রাজনীতি করেন।

প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, আজ একটি শুভ দিন। আজকে আমাদের প্রাণপ্রিয় নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা নিংগইনবাসির স্বপ্ন পূরণ করেছেন। একটা সেতু সম্ভব হবে কিনা এটা নিয়ে হয়তো অনেকের মধ্যেই সন্দেহ ছিল এই নদীর ওপরে সাড়ে ৯ কোটি টাকা ব্যয়ে ৯৬ মিতার দির্ঘ্য সেতু জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাদেরকে উপহার দিয়েছেন। আজ থেকে ১৩ বছর আগে ইউনিয়নের প্রত্যকটি গ্রাম অন্ধকারাচ্ছন্ন ছিলো। বীর মুক্তিযোদ্ধা শাজাহান আলী চাচা বুড়া পীরতলার ওই ব্রিজটা নির্মাণ করে দেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কাছ থেকে। যে রাস্তা দিয়ে আমরা এখন আসলাম এই রাস্তা চলাচলের অনুপযোগী ছিল। ১৩ বছরে যতগুলো রাস্তা কালভার্ট স্কুল বিল্ডিং, স্কুল মাঠ সবই শেখ হাসিনার উন্নয়ন।

বিগত দিনে যারা আমাদের ভোট নিয়ে গেল একটা করে ভোট নিয়ে যাওয়ার পর আমানতটা তারা শুধু নিজের স্বার্থে দেখলো। ১ কিলোমিটার রাস্তা করতে ৩৭ বছরও অপেক্ষা করতে হয়েছে।

শেখ হাসিনা প্রত্যেকটা গ্রামে রাস্তা দিয়েছেন,বিদ্যুৎ দিয়েছেন। আগে পৌর এলাকার অনেক বাড়ি কিন্তু অন্ধকারাচ্ছন্ন ছিল। ২৯ ডিসেম্বর আপনারা আমাকে ভোট দিয়েছেন, তখন ষাট শতাংশ ঘরে বিদ্যুৎ ছিল না। আত্মীয়-স্বজন আমাদের নেতা কর্মীরা কারো বাড়িতে কি বিদ্যুৎবিহীন আছেন। শতভাগ বাড়িতে বিদ্যুতের আলোকিত করেছেন জননেত্রী শেখ হাসিনা। আপনার যে ভোটটা নিয়ে আসলেন এখন আপনারা মাথা উঁচু করে কথা বলতে পারেন, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ দেব ফসল তোলার জন্য রাস্তা করে দেব কিংবা মসজিদের উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ দিব মন্দির বা কবরস্থান শাসনের জন্য বরাদ্দ দিব রাস্তা করে দিব। আমরা সকল দাবি পূরণ করতে পেরেছি। অসমাপ্ত যে সামান্য কিছু কাজ আছে সে জন্য যদি আমরা নৌকা মার্কার পক্ষে ভোট চাই এটা কি আমাদের চাওয়া ভুল হবে, এক থেকে ছয় সাল পর্যন্ত অনেক সময় আমাদের সারারাত জেগে পাহারা দিতে হয়েছে। তখন যে কখন কোন বিল থেকে ডাকাত এসে গ্রামে হামলা করে আমাদের সন্ত্রাসীদের ভয়ে নির্ঘুম রাত কাটাতে হয়েছে।

আপনারা জানেন যে এই নিংগইন মাটিতে আমার এতিম পিতা বড় হয়েছেন। আমিও এতিম হয়েছি। এই মাটির প্রতি আমার ভালোবাসা আছে। আপনাদের ভালোবাসা নিয়ে আগামী দিন গুলো আপননাদের প্রকৃত সেবা হয়ে নিজেকে নিয়োজিত রাখবো, ইনশাআল্লাহ।

প্রতিমন্ত্রী বুধবার বিকেলে সিংড়া পৌর এলাকার ৭ নং ওয়ার্ডে ১১ কোটি টাকা ব্যয়ে ৯৬ মিটার দৈর্ঘ্য সেতুর নির্মাণ কাজের শুভ উদ্বোধন করেন।

৭ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবর রহমানের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন সিংড়া পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব মোঃ জান্নাতুল ফেরদৌস, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট ওহিদুর রহমান শেখ, গুরুদাসপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ঠিকাদার আনোয়ার হোসেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সিংড়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ডালিম আহমেদ ডন, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন, উপজেলা প্রকৌশলী আহমেদ রফিক সহ আরো অনেকে।

শাকিল/সাএ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: