নটরডেম ইউনিভার্সিটিতে ‘সিএসই ফেস্ট প্রোগ্রামিং কনটেস্ট’ অনুষ্ঠিত

১৭ নভেম্বর ২০১৭ , ০৭:১৩:৩৭

প্রোগ্রামিং নিয়ে ‘নটরডেম ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ সিএসই ফেস্ট প্রোগ্রামিং কনটেস্ট’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার (১৭ নভেম্বর) রাজধানীর মতিঝিলে নটরডেম ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ ক্যাম্পাসে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। নটরডেম ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ কম্পিউটার ক্লাব (এনডিইউবিসিসি) এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। প্রতিযোগিতায় ১৮টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৯টি দলের হয়ে মোট ৮৫ জন প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করে। এ আয়োজনে অনলাইন মিডিয়া পার্টনার ছিল দেশের জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল বিডি২৪লাইভ ডটকম।

এ দিন সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত মোট ৪ ঘন্টা, প্রতিযোগীরা প্রোগ্রামিং পরীক্ষা দেয়। এসময় পরীক্ষা পরিদর্শন করেন বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য ফাদার প্যাট্রিক। পরীক্ষায় প্রতি দলকে অভিন্ন ৯টি প্রশ্ন দেয়া হয়। পরীক্ষা শেষে দুপুরে আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষণা করা হয়। এতে প্রথম হয় লিডিং ইউনিভার্সিটির ‘দাড়িওলা ভাইস’ দল। দ্বিতীয় মিলিটারি ইন্সটিটিউট অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজির ‘বোবো’ এবং তৃতীয় হয় জগন্নাথ ইউনিভার্সিটির ‘স্ল্যাকারকোডার’ দল।

এরপর বিকেল সাড়ে ৩টায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়টি উপাচার্য ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়টির স্টুডেন্ট কাউন্সিলর সিস্টার সাগরিকা, সিএসই ডিপার্টমেন্টের মোডারেটর সাইফুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. অলক চক্রবতী, লেকচারার নাবিদ আনজুম অদিত উপস্থিত ছিলেন।

এসময় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহনকারী শিক্ষার্থীরা জানান, এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে প্রোগ্রামিংয়ের ওপর তাদের দক্ষতা আরও বাড়বে। ভবিষ্যতে দেশে এরকম আরও প্রতিযোগিতার আয়োজন করার আহ্বান জানান তারা।

প্রতিযোগিতা সম্পর্কে নটরডেম ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ কম্পিউটার ক্লাবের প্রেসিডেন্ট রাফসান রাতুল বিডি২৪লাইভকে বলেন, শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রোগ্রামিংয়ের দক্ষতা বাড়াতেই মূলত এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়া প্রতিবছর বিশ্বে আন্তর্জাতিকভাবে প্রোগ্রামিংয়ের বিভিন্ন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে বাংলাদেশ থেকেও বিভিন্ন প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করে। তবে দেশের ভেতর এরকম প্রতিযোগিতায় শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করলে সেখানে তারা ভাল করতে পারবে। তাই আমরা এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছি। যাতে করে দেশ থেকে প্রশিক্ষিত হয়ে আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে।

তিনি আরও বলেন, এ আয়োজনে আমরা অনেক সাড়া পেয়েছি। এখানে ২৯টি দলের হয়ে ৮৫ জন প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করেছে। কম্পিউটারের মাধ্যমে প্রতিযোগিতার ফলাফল নির্ধারণ হলেও তা তদারকি করার জন্য ৪ জন্ বিচারক ছিলেন। কম্পিউটারে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই প্রতিযোগিতার বিজয়ী নির্ধারণ হয়ে যায়।

বিডি২৪লাইভ/এস এ

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: