সম্পাদনা: মামুন কবীর

ডেস্ক কন্ট্রিবিউটর, বিডি২৪লাইভ

সরিষাবাড়ী হাসপাতালে সর্বত্রই অনিয়মের অভিযোগ

২০ মে, ২০১৮ ১৫:০৮:৩৮

ছবি: প্রতিনিধি

জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে কোন নিয়ম নীতির বালাই নেই। চিকিৎসা নিতে আসা রোগী এবং হাসপাতালের কর্মচারীরা অভিযোগ করেন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা থেকে শুরু করে সর্বত্রই অনিয়মের ছোঁয়া। ডাক্তারের অনুপস্থিতির কারণে বিভিন্ন এলাকা থেকে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এ অভিযোগ দীর্ঘ দিনের।

সরিষাবাড়ী হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা দীর্ঘ সময় অনুপস্থিত রয়েছেন বলে রোগীরা অভিযোগ করেন। আবার অনেকে মাসে এক দিন এসে হাজিরা খাতায় পুরো মাসের স্বাক্ষর করে চলে যান।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ কাজী শামসুল হক মাসের বেশীর ভাগ সময় তার কর্মক্ষেত্রে অনুপস্থিত থাকেন বলে জানাগেছে। তার অনুপস্থিতির কারণে হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা মারাত্মক ভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

বিশেষ করে হাসপাতালের বিভিন্ন বিভাগের কর্মচারীরা প্রয়োজনীয় কাগজপত্রে তার স্বাক্ষর নেয়া দুস্কর হয়ে পড়েছে। তিনি যেদিন অফিসে আসেন সেদিন তার স্বাক্ষর চাইলে তাকে উৎকোচ দিয়ে ফাইলে স্বাক্ষর নিতে হয় বলে জোরালো অভিযোগ উঠেছে।

স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ কাজী শামসুল হকের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগের কোন সুরাহা না হওয়ায় রবিবার (২০ মে) সকাল ১১টার দিকে তার অফিসের সামনে হাসপাতালের কর্মচারীরা এক যোগে প্রতিবাদ জানান। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ কাজী শামসুল হককে লাঞ্ছিত করা হয়। অবস্থা বেগতি দেখে তিনি দৌড়ে দোতলায় আশ্রয় নেন বলে জানাগেছে। এ সময় হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা বন্ধ হয়ে যায়।

অধিকাংশ ডাক্তার তাদের দায়িত্বে অবহেলা করলেও ২/১জন ডাক্তার তাদের কর্ম দক্ষতা দিয়ে রোগীদের যথাসম্ভব চিকিৎসা দিয়ে হাসপাতালকে টিকিয়ে রাখছেন বলে রোগীদের স্বজনরা জানান।

হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্সের ড্রাইভার জোবায়দুর বলেন, আমার গাড়ী একমাস যাবৎ নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। মূমুর্ষ রোগীদের দ্রুত অন্য কোন হাসপাতারে নিতে পারছি না। গাড়ী মেরামত করার কথা বললে স্যার এখন না তখন বলে চলে যান।

এ বিষয়ে মোবাইলে জানতে চাইলে ডাঃ কাজী শামসুল হক ব্যস্ত আছেন বলে এড়িয়ে যান।

বিডি২৪লাইভ/এমকে

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: