প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

বিএনপির অনেক অভিযোগ!

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৬:০৩:০০

ফাইল ফটো

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে একের পর অভিযোগ কর যাচ্ছে বিএনপি। প্রতিদিনের মত আজকেও সংবাদ সম্মেলনে বেশকিছু অভিযোগ করেছে দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

মঙ্গলবার (১১ সেপ্টেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সামনে বিভিন্ন অভিযোগ তুলে ধরেন তিনি।

রিজভী তার অভিযোগে বলেন, ‘আওয়ামী সমর্থিতদের নির্বাচনী কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেয়ার কার্যক্রম চলছে। এমনকি সরকারের নীলনকশার অংশ হিসেবে আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী ও সক্রিয় নেতা-কর্মী এবং সমর্থকদের বিরুদ্ধেও ঢালাওভাবে মামলা দেয়া হচ্ছে। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকেও একতরফা করতে সরকার নানা নীলনকশা করেই যাচ্ছে।’

বিএনপি নেতার যত অভিযোগ-

১. দেশব্যাপী বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় থানায় গায়েবি মামলা হচ্ছে।

২. স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার শিক্ষকদের তালিকা করা হচ্ছে, কারা বিএনপি করে বা বিএনপি পরিবারের সঙ্গে যুক্ত।

৩. বেছে বেছে আওয়ামী সমর্থিত লোকদেরকে নির্বাচনী কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেয়ার কার্যক্রম চলছে।

৪. প্রশাসনকে দলীয়করণ করে ধ্বংস করা হয়েছে।

৫. আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে সরকারের দলীয় বাহিনীতে পরিণত করা হয়েছে।

৬. বিচার বিভাগের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা হয়েছে।

৭. নিম্ন আদালতে এখন ন্যায়বিচার উধাও হয়ে গেছে।

৮. গোমেজ গ্রেফতার, বকর কই?

রিজভী অভিযোগ করে বলেন, ‘গতকালও বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সহ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক জন গমেজকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।’

‘এছাড়া বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু বকর সিদ্দিককে গতকাল থেকে কোথাও পাওয়া যাচ্ছে না। খোঁজ না পাওয়ায় তার পরিবার ও বিএনপির সকল নেতাকর্মী গভীরভাবে উৎকন্ঠিত। নিশ্চয়ই তিনি সরকারি কোনো বাহিনীর নিকটই আছেন,’ দাবি করেন রিজভী।

‘বিএনপি চেয়ারপারসনের চিকিৎসা নিয়ে ছলচাতুরি চলছে এবং কালক্ষেপণ করা হচ্ছে’ এমন অভিযোগ করে রিজভী বলেন, ‘বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও দলের স্থায়ী কমিটির একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার দুদিন পার হয়ে গেলেও খালেদা জিয়ার চিকিৎসা বিষয়ে কোনো কার্যকর উদ্যোগ দেখা যায়নি।’

রিজভী বলেন, ‘তার ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা আশঙ্কা প্রকাশ করছেন দ্রুত বেগম জিয়ার চিকিৎসা না দেয়া হলে তার বাম পা ও হাত অবশ হয়ে যেতে পারে। তার শারীরিক অবস্থা দিন দিন অবনতি যাচ্ছে। তাই আমি দলের পক্ষ থেকে কাল বিলম্ব না করে বেগম খালেদা জিয়াকে বেসরকারি বিশেষায়িত হাসপাতালে সুচিকিৎসার জোর দাবি জানাচ্ছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘জনগণের মধ্যে আওয়ামী নির্যাতনে যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে, যেকোনো সময় তার বিস্ফোরণ ঘটবেই। কারণ সরকারের প্রধানের বর্বর অহমিকার প্রতি ঘৃণা মিশ্রিত রোষে দেশের জনতা আজ উত্তাল।’

‘দাঁড়ানোর কোনো শক্ত জমিন তাদের নেই। তাই গাছের পাতা নড়লেও সরকার এখন চমকে উঠছে,’ মন্তব্য করেন রিজভী।

বিডি২৪লাইভ/ওয়াইএ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: