ক্রাইস্টচার্চ হামলা

সন্তানের দাফনের পর মায়ের মৃত্যু

২৩ মার্চ, ২০১৯ ১৫:২৯:২৭

ছবি: ইন্টারনেট

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হন ফিলিস্তিনি কামেল দারবিশ (৩৮)। সন্তানের লাশ দাফনে হাজির হওয়ার পর হার্ট অ্যাটাকে মারা গেছেন মা। এক শোক কাটাতে না কাটাতেই আর এক শোকে স্তব্ধ পুরো এলাকা। এতে ঘটনাস্থলে এক হৃদয় বিধারক পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

শনিবার (২৩ মার্চ) সন্তানের দাফন অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়েছিলেন মা সাউদ আবদেল ফাত্তাহ মহসিন আদওয়ান (৬৫)। সন্তান হারানোর পর অন্য মায়েদের মতোই তার হৃদয়ে ক্ষরণ হচ্ছিল। অবশেষে তিনি হার্টঅ্যাটাকে মারা গেলেন মা। এ খবর প্রকাশ করেছে দেশটির জাতীয় সংবাদমাধ্যম নিউজিল্যান্ড হেরাল্ড।

প্রতিবেদনে বলা হয়, নিহত কামেল দরবিশ একটি ডেইরি ফার্মে কাজ করতেন। তিনি বিবাহিত ছিলেন,রয়েছে তিনটি সন্তান। বড় ভাইয়ের সঙ্গে যোগ দিতে তিনি গত বছর জর্ডান থেকে নিউজিল্যান্ডে পাড়ি জমান। তার সঙ্গে থাকার জন্য ভিসা আবেদন করেছিলেন স্ত্রী ও সন্তানরা। গত সপ্তাহের শুক্রবারে অন্য মুসলিমদের সঙ্গে তিনিও গিয়েছিলেন আল নূর মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করতে। অকস্মাৎ সেখানে সন্ত্রাসী হামলা চালায় ব্রেনটন টেরেন্ট। তার গুলিতে ঝাঁঝরা হয়ে নিহত হন ৫০ জন মুসলিম। তার মধ্যে কামেল দরবিশ অন্যতম। তার দাফন অনুষ্ঠানে শুক্রবার জর্ডান থেকে নিউজিল্যান্ডে পৌঁছেন মা সাউদ আবদেল ফাত্তাহ মহসেন আদওয়ান (৬৫)। এদিন কামেলের দাফন সম্পন্ন হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন মা। সন্তানকে কবরদেশে নামানোর পর আজ শনিবার হার্টঅ্যাটাকে মারা গেছেন তিনি। কারণ, সন্তান হারানোর বেদনা তিনি আর বহন করতে পারছিলেন না।

নিউজিল্যান্ডে অবস্থানরত কামেলের বড় ভাই-ছোট ভাইকে দাফন করার পর এখন মায়ের মৃতদেহ জর্ডানে নিয়ে যাওয়ার আয়োজন করছেন। ক্রাইস্টচার্চের হামলার পর আরো দু’চারজন আত্মীয় হার্টঅ্যাটাকের শিকারে পরিণত হয়েছেন।

এদিকে আল নূর মসজিদে দু’দফা গুলিতে মারাত্মক আহত হন বাংলাদেশের সাজেদা আখতার। এ খবরে বাংলাদেশে হার্টঅ্যাটাকে আক্রান্ত হন তার মা। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সৌদি আরবের নাগরিক মোহসিন আল হারবি (৬১)। তিনি টেরেন্টের প্রথম দফা হামলা থেকে রক্ষা পেয়েছেন। তার স্ত্রী মানাল এতে ভীষণ ভেঙে পড়েন। তাকে খুঁজতে গিয়ে তিনি হার্টঅ্যাটাকে আক্রান্ত হন। তাকে নেয়া হয়েছে হাসপাতালে। সেখানে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

বিডি২৪লাইভ/এসবি/এসএ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: