শ্রীলঙ্কান সরকারকে সবার আগে সতর্ক করেছিল মুসলিমরাই

২৪ এপ্রিল, ২০১৯ ০৯:৪০:১৯

শ্রীলঙ্কার শেখ উসমান মসজিদে নামাজ আদায় করছে মুসলিমরা। ছবি: ইন্টারনেট

শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোতে গির্জা ও অভিজাত হোটেলে ৮ দফা সিরিজ বোমা হামলা ও আত্মঘাতী বিস্ফোরণে এখন পর্যন্ত ৩২১ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও প্রায় ৫০০ জন। নিহতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

জানা গেছে, তৌহিদ জামাত সহ জঙ্গি তৎপরতার ব্যাপারে শ্রীলঙ্কান সরকারকে সবার আগে সতর্ক করেছিল দেশটির মুসলিম কাউন্সিল।

এ ব্যাপারে সকল তথ্য-প্রমাণসহ শ্রীলঙ্কান সেনা গোয়েন্দা বিভাগের প্রধানের সঙ্গে দেখা করেছিলেন কাউন্সিলের সহ-সভাপতি। কিন্তু কোন সতর্কতাই আমলে নেয়া হয়নি। খবর ব্লুমবার্গ।

শ্রীলঙ্কান মুসলিম কাউন্সিলের সভাপতি হিলমি আহমেদ ব্লুমবার্গকে বলেন, ‘তৌহিদ জামাত অমুসলিমদেরকে টার্গেট করাকে উৎসাহিত করে। তারা বলে ইসলাম অনুযায়ী তাদেরকে হত্যা করা উচিত।’

তিনি জানান, ৩ বছর আগে তিনি ব্যক্তিগতভাবে গিয়ে জঙ্গিদের নামসহ বিস্তারিত তথ্য ও প্রমাণ সেনা গোয়েন্দাদের সরবরাহ করেছিলেন।

তার ভাষ্যমতে, ‘তারা সেই ডকুমেন্টগুলোকে আমলে নেয়নি। এবং সেটিই সবচেয়ে বড় ট্রাজেডি।’

মঙ্গলবার (২৪ এপ্রিল) শ্রীলঙ্কায় সিরিজ বোমা হামলার দায় স্বীকার করেছে ইসলামিক স্টেট (আইএস)। আইএসের বার্তা সংস্থা আমাক এজেন্সি দায় স্বীকার করে বলে জানিয়েছে সাইট ইন্টেলিজেন্স।

এর আগে, শ্রীলঙ্কান সরকার হামলার জন্য উগ্র ইসলামপন্থী সংগঠন তৌহিদ জামাত ও আন্তর্জাতিক জঙ্গি নেটওয়ার্ককে দায়ী করছিল। এ সংগঠনটিও দায় স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছে রুশ বার্তা সংস্থা তাস।

শ্রীলঙ্কান প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে বলেছেন, নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মুসলিমদের ওপর হামলার বদলা নিতেই শ্রীলঙ্কায় হামলা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, রবিবার (২১ এপ্রিল) শ্রীলঙ্কায় ইস্টার সানডের প্রার্থনার সময় ৩টি গির্জা, ৩টি অভিজাত হোটেল ও রাজধানী কলম্বোর পার্শ্ববর্তী অপর দুটি এলাকার সহ মোট ৮ জায়গায় আত্মঘাতী সিরিজ বোমা হামলা চালানো হয়। আত্মঘাতী বিস্ফোরণে ৩২১ জন নিহত হন, আহত হয় ৫০০ জন। নিহতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বিডি২৪লাইভ/টিএএফ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: