প্রচ্ছদ / জেলার খবর / বিস্তারিত

ভিক্ষুকদের পূনর্বাসন সহয়তা প্রদান

শ্রীবরদী সদর ও গোশাইপুর ইউনিয়ন ভিক্ষুকমুক্ত ঘোষণা

প্রকাশিত: ০২:০০ পূর্বাহ্ণ, ১৯ এপ্রিল ২০১৯

ছবি: প্রতিনিধি

শেরপুরের শ্রীবরদী সদর ও গোশাইপুর ইউনিয়নকে ভিক্ষুক মুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) দুপুরে শেরপুরের জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব ওই ঘোষণা দেন।

এ সময় ৫৮ জন ভিক্ষুককে পূনর্বাসন সহায়তা দেওয়া হয়। এর মধ্যে ২০ ভিক্ষুককে ১০টি ভ্যান গাড়ি, ২ জনকে সেলাই মেশিন, ৪ জনকে  ওজন মাপার মেশিন, ৩৮ জনকে ১০ হাজার করে ঋণ সহায়তা, ৫৮ জন সবাইকে ন্যাযমূল্যের কার্ড, ১ জনকে টং দোকান ও ১০ হাজার  টাকা ঋণ, ৮ জনকে বিধবা-বয়স্ক ও একজনকে প্রতিবন্ধী ভাতা দেওয়া হয়।

এ উপলক্ষে শ্রীবরদী সদর ইউনিয়ন পরিষদ সভাকক্ষে ইউএনও সেঁজুতি ধরের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব। উপস্থিত ছিলেন, এসিল্যান্ড মঞ্জুরুল আহসান ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. রকিবুল হাসান। সভা শেষে ‘আর কখনো ভিক্ষা করব না’ হাত তুলে এমন শপথ নেন উপস্থিত সকল ভিক্ষুক।

ভ্যান গাড়ি, ন্যায্য মূল্যের কার্ড ও বয়স্ক ভাতা পেয়ে দারুণ খুশি গোশাইপুর ইউনিয়নের বৃদ্ধা ভিক্ষুক আজিরন (৭০) বলেন, ‘৩৩ বছর ভিক্ষা কইরা খাই। মানুষের দুর দুর ছাই ছাই হুনতে হুনতে আর ভাল লাগে না। অহন থেইকা ভ্যান গাড়ি ভাড়া দিমু। তাতে দৈনিক  দুই-আড়াইশ টাকা পামু। ডিসি সাব কার্ড দিল ১০ টাকা কেজি চাল পামু। আবার বয়স্ক ভাতা পামু ৫০০ ট্যাহা। আর ভিক্ষা করমু না।’

জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব বলেন, চলতি বছর জেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত করার জন্য আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা চালাচ্ছি। এজন্য প্রশাসনের কর্মকর্তা, স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীরা মনিটরিং করবে। যাদের পূণর্বাসন করা করা হচ্ছে তাদেরকে পর্যায়ক্রমে আরও সুবিধা দেওয়া হবে। এটি কথার কথা নয়। আমরা সত্যি সত্যিই জেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত করব।

বিডি২৪লাইভ/এজে

বিডি২৪লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মন্তব্য: